মুসলমানের কি ঈমানী বল নষ্ট হয়ে গেছে নাকি সব কাপুরুষ হয়ে গেছে?


একবার আমি এক হাসপাতালে গিয়েছিলাম ডাক্তার দেখাতে । বসার মত কোন জায়গা পাচ্ছিলাম না। হঠাৎ চোখে পরলো একটা চেয়ার খালি কিন্তু পাশে এক হিন্দু মহিলা বসা, যেহেতু আর কোন সিট খালি নাই তাই কিচ্ছু করার নেই বসে পরলাম। আমি বসতেই ঐ হিন্দু মহিলা উঠে একটু দূরে দুটি চেয়ার খালি হল সেখানে যেয়ে বসলো । তাকে দেখে মনে হল সে আমাকে ঘৃণা করছে কারণ আমি মুসলমান। তাই পরীক্ষা করার জন্য আমিও উঠে গিয়ে সেই মহিলার পাশের খালি চেয়ারে গিয়ে বসলাম । যা ভেবেছি ঠিক তাই হয়েছে। এবারও ঐ মহিলা উঠে গেল । আমার বুঝতে আর বাকি থাকলো না যে, হিন্দুরা মুসলমানদের কত ঘৃণা করে । আমার বাবার কছে শুনেছি হিন্দুরা তাদের কোন জিনিসে মুসলমানদের স্পর্শ লাগলে সাতবার ধৌত করে । নাউযুবিল্লাহ
অথচ মুসলমানগন উনারাই সবচেয়ে বেশী পাক-পবিত্র থাকেন । মুসলমানরা দিনে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে উযু করছেন। বাথরুমে যতবার যান ততবারই পানি ব্যবহার করছেন । আর হিন্দুরা হচ্ছে সবচয়ে নাপাক ও নিকৃষ্ট জাতি। যারা গরুর মূত্র খায় তাদের আবার এত বড়াই যে, মুসলমানদের ঘৃণা করে। কতবড় সাহস যে, মহান আল্লাহ পাক উনাকে কটাক্ষ করে। আর এইসব নিকৃষ্ট ব্যক্তিকে কি ছাড় দিয়া যায় । তাহলে নারায়নগঞ্জের হিন্দু শিক্ষকের এমন মন্তব্য করার পরেও নাস্তিক শিক্ষামন্ত্রী এই মালউনকে স্বপদে বহাল রেখে কি করে ছাড় দিল? কি করে স্কুল পরিচালনা কমিটি বাতিল করলো ? মুসলিম এই দেশে ইসলামকে কটাক্ষকারী মালউন হিন্দু শিক্ষকের পক্ষে শিক্ষামন্ত্রী আর হাইকোর্ট এর নির্লজ্জ পক্ষাবলম্বন কি কোন মুসলমান মেনে নিতে পারে?
মুসলমানের কি ঈমানী বল নষ্ট হয়ে গেছে নাকি সব কাপুরুষ হয়ে গেছে?

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে