মুসলিম দেশের পাঠ্যপুস্তকে বিধর্মীদের কুফরী শিক্ষায় সয়লাব!!


মুসলিম দেশের পাঠ্যপুস্তকে বিধর্মীদের কুফরী শিক্ষায় সয়লাব!!

বাংলাদেশ একটি স্বাধীন মুসলিম দেশ। এদেশ ভারত নয়, ভারতের অঙ্গরাজ্যও নয়। তাহলে এদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায়, সরকারি পাঠ্যপুস্তকে কেন অমুসলিম, বিধর্মী, মূর্তিপূজারীদের অপশিক্ষায় সয়লাব? যে দেশের রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম সেদেশে শিক্ষা ব্যবস্থায় প্রতিটি শ্রেণীর পাঠ্যপুস্তকে বেশিরভাগ গল্প কবিতা ইসলামবিদ্বেষী, নাস্তিক্যবাদী ও বিধর্মী লেখকদের। এটা কি করে সম্ভব? আর এসব লেখক তাদের লেখার মাধ্যমে দেশের ভবিষ্যৎ মুসলিম প্রজন্ম তাদের মুসলিম আত্মপরিচয় ভুলিয়ে দিচ্ছে। আর এসব লেখায় ইসলামবিরোধী ভাষা, বাক্য, শব্দ ব্যবহার করে এবং ভিন্ন ধর্মীয় সংগীত শুনার জন্য অনুপ্রাণিত করে- এ দেশের মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদেরকে তাদের আত্মপরিচয় ভুলিয়ে ভিন্ন ধর্মীয়বোধের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ! এদেশের শিক্ষার ক্ষেত্রে এটা একটা গভীর চক্রান্ত। এটি বাঙালি মুসলিম জাতিকে মেরুদ-হীন জাতিতে পরিণত করার ভারতীয় ষড়যন্ত্র। এটি দেশের ৯৮ ভাগ মুসলিম জাতির ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বির্ধর্ম-বিজাতীতে পরিণত করার ষড়যন্ত্র। এটি এদেশ ও মুসলমান বাঙালি জাতির স্বকীয়তা ধ্বংস করে দেয়ার গভীর ষড়যন্ত্র।

এসব চক্রান্ত এদেশে চলবে না। তাই অতিসত্বর এ ধরণের সমস্ত পাঠ্যপুস্তক বাতিল করে তাতে ইসলামী ভাবধারায় পরিবর্তন আনতে হবে। সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার সাথে সাংঘর্ষিক বর্তমান শিক্ষানীতি বাতিল করে শিক্ষানীতিকে ইসলামীকরণ করতে হবে।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে