মুসাল্লামাতুল্লাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল মু’মিনীন হযরত খাদীজাতুল কুবরা আলাইহাস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত সাওয়ানেহে উমরী মুবারক (১২)


বিনতু রসূল আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম:

হযরত বানাতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মধ্যে সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত রুকাইয়া আলাইহাস সালাম তিনি দ্বিতীয়। তবে আওলাদু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মাঝে তিনি পঞ্চম।
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দুনিয়াবী হায়াত মুবারক যখন প্রায় ৩৩ বছর এবং উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার দুনিয়াবী হায়াত মুবারক যখন প্রায় ৪৮ বছর, তখন সাইয়্যিদাতুনা হযরত রুকাইয়া আলাইহাস সালাম তিনি বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন।
সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম উনার জামালিয়ত ও হুসনিয়ত পুরো আরব জুড়ে প্রসিদ্ধি লাভ করে। উনার দুনিয়াবী হায়াত মুবারক যখন প্রায় সাত বছর, তখন আবু লাহাবের বারবার আরজীর প্রেক্ষিতে তার বড় ছেলে উতবার সাথে উনার আক্বদ মুবারক সম্পন্ন হয়। কিন্তু উনার সাথে তার উরুস হয়নি। তার পূর্বেই আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়ত প্রকাশের চতুর্থ বছরের শুরুতে সূরা লাহাব নাযিল হলে আবু লাহাব গোস্বায় এই বিবাহে বিচ্ছেদ ঘটায়।
পরবর্তীতে স্বয়ং খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার মুবারক নির্দেশে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমীরুল মু’মিনীন, খলীফাতুল মুসলিমীন, সাইয়্যিদুনা হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার নিকট সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম উনাকে শাদী মুবারক দেন।
আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত প্রকাশের পঞ্চম বছরে বার (১২) বছর বয়স মুবারকে সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম তিনি খলীফাতুল মুসলিমীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার সাথে আবিসিনায় হিজরত মুবারক করেন। সেখানে উনারা প্রায় সাত বছর অবস্থান মুবারক করেন। অতঃপর পুনরায় মক্কা শরীফ ফিরে আসেন। পরবর্তীতে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে তিনি পবিত্র মদীনা শরীফে হিজরত মুবারক করেন। দু’দুইবার হিজরত মুবারক করায় উনাকে ‘যাতুল হিজরতাইন’ লক্বব মুবারকে অভিহিত করা হয়। (মুসতাদরাকে হাকিম, উসদুল গবাহ)
দ্বিতীয় হিজরী সনের রমাদ্বান শরীফ। যখন বদর জিহাদের জোর প্রস্তুতি চলছিল, তখন সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম তিনি মারিদ্বী শান মুবারক প্রকাশ করেন। উনার মুবারক খিদমতের আনযাম দেয়ার জন্য নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি জামিউল কুরআন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনাকে মনোনীত করে বদর জিহাদে চলে যান।
বদর জিহাদের পরের দিন ১৮ই রমাদ্বান শরীফ যখন বিজয়ের সংবাদ পবিত্র মদীনা শরীফ উনার দ্বারপান্তে, তখন প্রায় ২১ বছর ৫ মাস ১৫ দিন বয়স মুবারকে হযরত সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম তিনি বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। খলীফাতুল মুসলিমীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি জান্নাতুল বাক্বী শরীফে উনার রওজা শরীফ স্থাপন করেন।
হাবশা বা আবিসিনায় অবস্থান মুবারক কালে সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম উনার রেহেম শরীফে কামিলুল হায়া সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার একজন পুত্র সন্তান বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। হাদীছ শরীফে উনার নাম মুবারক হযরত আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম হিসেবে উল্লেখ করা হয়। তিনি ছয় বছর বয়স মুবারকে পবিত্র ২২শে জুমাদাল ঊলা শরীফ পবিত্র মদীনা শরীফে বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। (মুস্তাদরাকে হাকিম)

বিনতু রসূল আছ ছালিছা আলাইহাস সালাম:

বানাতু রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মধ্যে সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত উম্মু কুলসুম আলাইহাস সালাম তিনি তৃতীয়। আর আওলাদু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মধ্যে তিনি ষষ্ঠতম।
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দুনিয়াবী হায়াত মুবারক যখন প্রায় ৩৫ বছর এবং উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার দুনিয়াবী হায়াত মুবারক যখন প্রায় ৫০ বছর, সেই বছর পবিত্র ৩রা রবীউছ ছানী শরীফ সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছালিছা আলাইহাস সালাম তিনি পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। অর্থাৎ আনুষ্ঠানিকভাবে নবুওওয়াত প্রকাশের পাঁচ বছর পূর্বে দুনিয়ার যমীনে উনার মুবারক তাশরীফ।
অন্যান্য বানাতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের ন্যায় সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছালিছা আলাইহাস সালাম তিনিও অকল্পনীয় জামালিয়ত ও হুসনিয়ত উনার অধিকারিনী ছিলেন। সঙ্গতকারণেই খুব অল্প বয়স মুবারকেই উনার জন্য বিভিন্ন প্রস্তাব আসতে থাকে। আবু লাহাবের বারবার অনুরোধের প্রেক্ষিতে তার ছেলে উতাইবার সাথে উনার আক্বদ মুবারক সম্পন্ন হয়। কিন্তু সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম উনার ন্যায় উনাকেও শ্বশুরালয়ে যেতে হয়নি। তার পূর্বেই পবিত্র সূরা লাহাব শরীফ নাযিল হলে আবু লাহাব আক্বদ ভেঙ্গে দেয়।
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক খিদমতে সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছালিছা আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন সদা তৎপর। আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত ঘোষণার পর হতে শি’বে আবু তালিবে অবস্থান করাসহ হিজরত মুবারক উনার পূর্ব পর্যন্ত তিনি মুবারক খিদমতে ছায়ার ন্যায় লেগে থাকতেন। কাফিরদের কোনো প্রকর চক্রান্ত বা ষড়যন্ত্র কোনো কিছুই উনাকে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খিদমত মুবারক হতে বিচ্ছিন্ন করতে পারেনি। পরবর্তীতে হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে তিনিও পবিত্র মদীনা শরীফে হিজরত মুবারক করেন।
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-
عن حضرت ابى هريرة رضى الله تعالى عنه ان النبى صلى الله عليه وسلم لقى عثمان عليه السلام عند باب المسجد فقال هذا جبرائيل عليه السلام اخبرنى ان الله قد زوجك ام كلثوم عليها السلام بـمثل صداق رقية عليها السلام
অর্থ: হযরত আবু হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত। নিশ্চয়ই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে খলীফাতুল মুসলিমীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার সাক্ষাৎ মুবারক হয় মসজিদে নববী শরীফ উনার দরজা মুবারকে। তখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনাকে লক্ষ্য করে বললেন, হযরত জিবরাইল আলাইহিস সালাম তিনি আমাকে সংবাদ দিয়েছেন যে, মহান আল্লাহ পাক তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত রুকাইয়া আলাইহাস সালাম উনার মোহর মুবারক অনুযায়ী সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু কুলছূম আলাইহাস সালাম উনাকে আপনার নিকট শাদী মুবারক দিয়েছেন। (ইবনু মাজাহ শরীফ)
কিতাবে উল্লেখ করা হয় যে, সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছানিয়া আলাইহাস সালাম তিনি ২য় হিজরী সনের ১৮ই রমাদ্বান শরীফ পবিত্র পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করার পর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খলীফাতুল মুসলিমীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার নিকট সাইয়্যিদাতুন নিসা আছ ছালিছা হযরত উম্মু কুলছূম আলাইহাস সালাম উনাকে তৃতীয় হিজরী সনের ৩রা পবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফ শাদী মুবারক প্রদান করেন। উনারা অপরিসীম সুখ-শান্তিতে দিনাতিপাত করেন। সুখী পরিবার হিসেবে পুরো আরব জুড়ে সুখ্যাতি অর্জন করেন। শাদী মুবারক উনার পর তিনি দুনিয়াতে প্রায় সাড়ে ছয় বছর অবস্থান মুবারক করেন।
নবম হিজরীতে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি তাবুক জিহাদ হতে ফিরে আসার পর পবিত্র রমাদ্বান শরীফ উনার ৬ তারিখ সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছালিছা আলাইহাস সালাম তিনি পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। হযরত ছাফিয়্যা বিনতে আব্দিল মুত্তালিব আলাইহাস সালাম তিনি উনাকে গোসল মুবারক করান। স্বয়ং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র জান্নাতুল বাক্বী শরীফে উনার রওজা শরীফ স্থাপন করেন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে