” মৃত্যুর পর যিনি কথা বলেছেন “


” মৃত্যুর পর যিনি কথা বলেছেন “
হযরত যায়েদ ইবনে খারেজা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি মৃত্যুর পরও কথা বলেছিলেন।হযরত নোমান ইবনে বশির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু ঘটনাটি এভাবে বর্ণনা করেন, হযরত যায়েদ ইবনে খারেজা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি ইন্তেকালের পর জানাজার নামায পড়ানোর জন্য হযরত উসমান জুন্নুরাইন আালাইহিস সালাম তিনি তাশরীফ আনবেন। সে কারণে উনার আগমনের ব্যবস্থা চলছিল। হযরত নোমান ইবনে বশির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন,আমি(নোমান ইবনে বশির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)ভাবলাম হযরত উসমান জুন্নুরাইন আালাইহিস সালাম উনার মুবারক তাশরীফের আগে দুই রাকাত নামায পড়ে নেই। এদিকে আমি নামায পড়তে শু্রু করেছি আর ঐ দিকে হযরত যায়েদ ইবনে খারেজা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি উনার মুখ মুবারকের উপর থেকে কাপড় সরিয়ে বলে উঠলেন “ আসসালামু আলাইকুম ইয়া আহলাল বাইত’’ অতপর তিনি উপস্থিত সবার সাথে কিছুক্ষন কথা বলছিলেন। এক পর্যায় তিনি বললেন, হে লোক সকল! আপনারা নিরব হয়ে আমার কথা শুনুন। আমাদের প্রিয় রাসূল হুজুরপাক সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তিনি বলেছেন, হযরত আবূ বকর সিদ্দীক আলাইহিস সালাম তিনি সর্বাধিক সত্যের অনুসারী ছিলেন এবং তিনি মহান আল্লাহপাক উনার নির্দেষ মুবারক জারী করার ব্যাপারে খুবই শক্তিশালী ও নির্ভীক ছিলেন। তারপর হযরত ফারুকে আযম আলাইহিস সালাম তিনি সর্বেপেক্ষা সত্যবাদী ছিলেন। তিনি শরিরীক দিক দিয়ে যেমন মজবুত দেহের অধিকারী ছিলেন তেমনি মহান আল্লাহপাক উনার উনার নির্দেষ মুবারক জারী করার ব্যাপারেও ছিলেন খুবই সাহসী ও কঠোর। আর বর্তমানে হযরত উসমান জুন্নুরাইন আালাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত খিলাফত মুবারক উনার পরিচালোনা করছেন। তিনিও সত্যের প্রতীক। উনার খিলাফতের আর মাত্র চার বছর বাকী আছে। এরপর তিনি চুপ হয়ে গেলেন। ইতিমধ্যে হযরত উসমান জুন্নুরাইন আালাইহিস সালাম তাশরীফ মুবারক আনলেন এবং জানাজা নামায পড়ালেন। (সুবহানাল্লহ)

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে