মেয়েদের বালেগা হওয়ার সর্বনিম্ন বয়স সাধারনভাবে ৯ বছর আর ছেলেদের বালেগ হওয়ার সর্বনিম্ন বয়স সাধারনভাবে ১২ বছর


কাফির, মুশরিক ও মুনাফিকদের আইন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার হুকুম বা বিধানের খিলাফ বা বিরোধী। কাফির, মুশরিক ও মুনাফিকরা প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার জন্য মেয়েদের ক্ষেত্রে নির্ধারণ করেছে ১৮ বছর আর ছেলেদের ক্ষেত্রে নির্ধারণ করেছে ২১ বছর। নাউযুবিল্লাহ! এবং তারা প্রচার করে যে, উক্ত বয়সের নিচে অর্থাৎ ১৮ বছর বয়সের নিচে মেয়েরা শিশু এবং ২১ বছর বয়সের নিচে ছেলেরা শিশু। নাউযুবিল্লাহ!
ফলে উক্ত বয়সের নিচে বিবাহ বন্ধনের তারা বিরোধিতা করে থাকে। যা পবিত্র কুরআন শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের সম্পূর্ণ খিলাফ ও কুফরী এবং কাফির ও জাহান্নামী হওয়ার কারণ।
আশরাফুল মাখলূক্বাত মানুষসহ সমস্ত প্রাণীর খ¦ালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি কোন প্রাণী কখন পরিণত বয়সে পৌঁছবে সেটা মহান আল্লাহ পাক তিনিই নির্ধারণ করে দিয়েছেন।
কাজেই, ছেলে এবং মেয়ে কখন বা কোন বয়সে বালেগ ও বালেগা হবে সেটাও মহান আল্লাহ পাক তিনিই ফায়ছালা করে দিয়েছেন। যা সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে স্পষ্ট বর্ণিত হয়েছে। সম্মানিত দ্বীন ইসলাম বলতে পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজাম শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ উনাদের সম্মানিত ইলিমকে বুঝায়।
যেমন এ প্রসঙ্গে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার কিতাবে বর্ণিত হয়েছে, হযরত ইমাম শাফিয়ী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, আমি এক মহিলাকে দেখেছি যে-
حاضت البنت ابنة تسع وولدت ابنة عشر
অর্থ: তিনি ৯ বছর বয়সে বালেগা বা প্রাপ্তাবয়স্ক হয়েছেন এবং ১০ বছর বয়সে সন্তান জন্ম দিয়েছেন।
আর হযরত মুগীরাতাদ্ব দ্বব্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে বর্ণিত। তিনি নিজেই বলেন-
احتلمت وانا ابن اثنة عشرة سنة
অর্থ: আমি বালেগ বা প্রাপ্ত বয়সে উপনীত হয়েছি যখন আমার বয়স ১২ অর্থাৎ আমি যখন ১২ বছর বয়সের ছেলে তখন আমি বালেগ বা প্রাপ্ত বয়সে উপণীত হই।
অতএব, মেয়েদের বালেগা বা প্রাপ্ত বয়স হওয়ার জন্য সর্বনিম্ন বয়স হচ্ছে সাধারনভাবে ৯ বছর এবং ঊর্ধ্বতম বয়স হচ্ছে ১৫ বছর। আর ছেলেদের বালেগা বা প্রাপ্ত বয়স হওয়ার জন্য সর্বনিম্ন বয়স হচ্ছে সাধারনভাবে ১২ বছর এবং উর্ধ্বতম বয়স হচ্ছে ১৫ বছর।
এর বিপরীত মত পোষণ করে যারা ছেলেদের ২১ এবং মেয়েদের ১৮ বছর প্রাপ্ত বয়সের সময়সীমা নির্ধারণ করবে তারা সম্মানিত দ্বীন ইসলাম ও মুসলমান থেকে খারিজ হয়ে কাট্টা কাফির, মুরতাদ ও মুনাফিকে পরিণত হবে। নাউযুবিল্লাহ! (সুনানে কুবরা বায়হাক্বী : ১ম খন্ড ৪৭২ পৃষ্ঠা হাদীছ শরীফ নং ১৫৩১ প্রকাশনা: দারুল কুতুবুল ইলমিয়া বইরুত লেবানন , জাওয়াহিরুন নক্বী ১ম খণ্ড ৩১৯ পৃষ্ঠা)

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে