যতদিন এদেশে মুসলিম থাকবে ‪#‎রাষ্ট্রধর্ম_ইসলামই_সংবিধানে_বহাল_থাকবে‬ । ইনশা আল্লাহ্‌ ।


কাফিরের ঘরে মূর্তি না থাকাটা যেরূপ অস্বাভাবিক ,ঠিক তদ্রুপই অস্বাভাবিক হচ্ছে মুসলিমদের ঘরে গান,বাজনা,ছবি,টিভি থাকা ! কিন্তু এই অস্বাভাবিক বিষয়টাই তথাকথিত হুযু্র ,মালানা,আলিম নামধারী ব্যক্তিবর্গ থেকে শু্রু করে যাদের ঘরে কিছুই নাই তাদের ঘরেও আছে ।শুধু্মাত্র গাফেলতি আর অসতর্কতার কারণে ।
তাদেরকে বড়ি গেলানো হয়েছে এগু্লা বিনোদনের জন্য প্রয়োজন রয়েছে । মুসলিম ধর্মের রীতিনীতীতে বিনোদন বলতে কিছুনাই ! বিনোদনের জন্য অনেকে এগু্লাকে জায়েজ ফতোয়া দেয় ,অনেকে হারাম যে তা-ই মেনে নিতে চায় না । আর অনেকে আছে নফসের কারণে ছাড়তে পারে না ।তৃতীয় ব্যক্তি হারামকে হারাম মানার কারণে ঈমানদার থাকবে কিন্তু নফসের কারোনে ফিরে আসতে না পারার কারণে গুণাহগার হবে ।তার দায়িত্ব হবে প্রতিনিয়ত তওবা -ইস্তিগফার করা ,আর হারাম পরিত্যাগ করার সাধ্যানুযায়ী চেষ্টা করা ।মহান আল্লাহ পাক কাউকে নেক কাজের তৌফিক না দিয়ে দুনিয়াতে প্রেরণ করেন নাই । যে নেক কাজ করতে পারে না সে নফসের কারণে ,শয়তানের ওয়াসওয়াসার কারণেই পারে না । শয়তানকে দূ্রে রাখার জন্য তাকে হক্বানী ওলী আল্লাহ উনার কাছে বায়াত হয়ে যিকির-ফিকির করতে হবে । তবেই হারাম থেকে ফিরে হালালে মশগু্ল হওয়া সহজ এবং সম্ভব হবে ।
আর যারা কিনা হারাম কে হালাল মনে করেছে,হারাম হিসেবে মেনে নিতে পারছে না,অস্বীকার করছে তারা কুফরী করছে ,কুফরী করার কারণে কাফির হচ্ছে । শুধু্মাত্র নামেই মুসলিম রয়ে গেছে । এই টাইপ যারা মুসলিম তারা সম্মানিত দ্বীন-ইসলাম উনার কোনো কাজেই আসবে না এটাই স্বাভাবিক ।এরা যেহেতু কাজে আসবে না এদেরকে মহান আল্লাহ পাক জাহান্নামে ফেলে দিতে দয়া দেখাবেন না । এদের উপযুক্ত স্থানই জাহান্নাম । কেননা এরা পরকালের বিনিময়ে দুনিয়া খরিদ করে নিয়েছে । তাই হারামটাতেই তারা আরাম পায় । হালালের মধ্যে অন্ধকার দেখে ! রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থাকবে নাকি থাকবে না তা নিয়ে তাদের বিন্দু থেকে বিন্দুতম মাথা ব্যাথা তো নেইই বরং ধর্মনিরপেক্ষ হলে তাদের জন্য সুবিধা হয় !
এখনো সময় আছে , প্রতিবাদ করুন ,ঈমান হেফাজত করুন । বাতিল গোষ্ঠীকে জানিয়ে দিন যতদিন এদেশে মুসলিম থাকবে ‪#‎রাষ্ট্রধর্ম_ইসলামই_সংবিধানে_বহাল_থাকবে‬ । ইনশা আল্লাহ্‌ ।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+