যাকাতের আহকাম ও মাসায়িল ॥ আপনার যাকাত কোথায় প্রদান করবেন?


কুরআন শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, “বড় সৎ কাজ হলো এই যে, ঈমান আনবে আল্লাহ পাক উনার উপর, ফেরেশতাদের উপর এবং সমস্ত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের উপর। আর সম্পদ ব্যয় করবে উনারই মুহব্বতে আত্মীয়-স্বজন, ইয়াতীম, মিসকীন, মুসাফির, ভিক্ষুক ও মুক্তিকামী ক্রীতদাসের জন্য। আর নামায কায়েম করবে, যাকাত দান করবে, কৃত অঙ্গীকার পূর্ণ করবে, অভাবে রোগে-শোকে এবং যুদ্ধের সময় ধৈর্যধারণকারী হয়ে থাকবে। তারাই হলো সত্যাশ্রয়ী, আর তারাই পরহিযগার।” (সূরা বাক্বারা : আয়াত শরীফ- ১৭৭)

আরো ইরশাদ হয়েছে, (ইয়া রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি তাদের ধন-সম্পদ থেকে (যাকাত ও) ছদকা গ্রহণ করুন, ছদকা তাদেরকে পাক সাফ ও পরিশোধিত করে দেবে, আপনি তাদের জন্য দোয়া করবেন। কেননা আপনার দোয়া তাদের জন্যে (হবে পরম) সান্তনা; আল্লাহ পাক তিনি সব কিছু শোনেন এবং সব কিছু জানেন। (সূরা তওবা : আয়াত শরীফ- ১০৩)

হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, “হযরত উমর ইবনুল খত্তাব রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন- হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, ‘স্থলে এবং পানিতে যেখানেই কোন সম্পদ ধ্বংস হয়, তা হয় কেবল যাকাত আদায় না করার কারণে।” (তবারানী শরীফ )

হাদীছ শরীফ-এ আরো ইরশাদ হয়েছে, “যে ব্যক্তি যাকাত প্রদান করেনা, তার নামায কবুল হয়না।” (বুখারী শরীফ )

যাকাত কাকে বলে:

যাকাত শব্দটি আরবী। অর্থ পবিত্রতা বা বৃদ্ধি। শরীয়তের পরিভাষায় যাকাত হলো আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে শরীয়তের নির্দেশ মুতাবিক এক নির্দিষ্ট (নিসাব) পরিমাণ সম্পদ ছদকা গ্রহণের উপযোগী কোন মুসলমানের অধিকারে দিয়ে দেয়া। এ স্থলে দাতা গ্রহীতা থেকে বিনিময়স্বরূপ কোন ফায়দা হাছিল করতে পারবে না। কোন সুবিধা হাছিল করলে বা হাছিলের আশা রাখলে তার যাকাত আদায় হবেনা।

যাকাতের নিসাব কাকে বলে:

‘নিসাব’ বলা হয় শরীয়তের নির্ধারিত আর্থিক নিম্নতম সীমা বা পরিমাণকে অর্থাৎ যে পরিমাণ সম্পদ-মাল, অর্থ কোন ব্যক্তির সাংসারিক সকল মৌলিক প্রয়োজন মিটানোর পর বছর শেষে নির্দিষ্ট তারিখে ওই ব্যক্তি মালিকানায় থাকলে যাকাত প্রদান করতে হয় তাকে ইসলামী পরিভাষায় ‘নিসাব’ বলে। মালের প্রকৃতি ধরন অনুযায়ী বিভিন্ন মালের নিসাব বিভিন্ন।

যাকাত কার উপর ফরয:

(১) যাকাত দাতাকে মুসলমান হতে হবে। (২) প্রাপ্ত বয়স্ক ও বিবেক বুদ্ধি সম্পন্ন হতে হবে। (৩) নিসাব পরিমাণ মাল অর্থাৎ সাড়ে সাত ভরি স্বর্ণ অথবা সাড়ে বায়ান্ন ভরি রূপা অথবা তার সমপরিমাণ মূল্য বা টাকা তার বৎসরের সকল মৌলিক প্রয়োজনের পর অতিরিক্ত থাকতে হবে। (৪) যদি এককভাবে কোন পণ্য বা দ্রব্যের মূল্য নিসাব পরিমাণ না হয় কিন্তু ব্যক্তির সবগুলো সম্পদের মূল্য মিলিয়ে একত্রে সাড়ে ৫২ তোলা রৌপ্য মূল্যের সমান হয় তবে ওই ব্যক্তির নিসাব পূর্ণ হবে। অর্থাৎ যাকাত আদায় করতে হবে। (৫)   সাংসারিক প্রয়োজনে গৃহীত ঋণ কর্তনের পর নিসাব পরিমাণ সম্পদ থাকলে যাকাত দিতে হবে। (৬) স্বামী-স্ত্রীর সস্পদ একই পরিবারের গণ্য হলেও মালিকানা ভিন্নহেতু পৃথকভাবে নিজ নিজ সম্পদের যাকাত আদায় করতে হবে। (৭) নির্ধারিত যাকাত পরিশোধের পূর্বেই সম্পদের মালিক মারা গেলে যাকাত পরিশোধের পর ওয়ারিশগণ মালিক বলে গণ্য হবে।

যাকাতের নিয়ত করতে হবে:

যাকাত পরিশোধে অবশ্যই নিয়ত করতে হবে। এটা ফরয ইবাদত, এর নিয়ত করা ওয়াজিব। মুখে উচ্চারণ করা বা যাকাত গ্রহণকারীকে শুনিয়ে বলা প্রয়োজন নেই। তবে মনে মনে নিয়ত অবশ্যই করতে হবে যে ‘আমি যাকাত আদায় করছি’ অন্যথায় যাকাত আদায় হবে না। তা সাধারণ দান হিসেবে গণ্য হবে।

যাকাত পাওয়ার হক্বদার কে?

নিম্নলিখিত আট খাতে যাকাতের অর্থ ব্যয় করা ফরয। পবিত্র কুরআন শরীফ-এ আল্লাহ পাক তিনি বলেন, “যাকাত কেবল ফকির, মিসকিন ও যাকাত আদায়কারী কর্মচারীদের জন্য, যাদের চিত্ত আকর্ষণ করা প্রয়োজন তাদের জন্য অর্থাৎ নও মুসলিম, দাস মুক্তির জন্য, ঋণে জর্জরিত ব্যক্তিদের ঋণমুক্তির জন্য, আল্লাহ পাক উনার রাস্তায় জিহাদকারী এবং মুসাফিরদের জন্য। এটা আল্লাহ পাক উনার নির্ধারিত বিধান এবং আল্লাহ পাক সর্বজ্ঞ প্রজ্ঞাময়।” (সূরা তওবা : আয়াত শরীফ- ৬০)

১। ফকির : ফকির ওই ব্যক্তি যার নিকট খুবই সামান্য সহায় সম্বল আছে।

২। মিসকীন : মিসকীন ওই ব্যক্তি যার আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি এবং আত্ম সম্মানের খাতিরে কারো কাছে হাত পাততে পারে না।

৩। আমিল বা যাকাত আদায় ও বিতরণের কর্মচারী।

৪। মন জয় করার জন্য নওমুসলিম : অন্য ধর্ম ছাড়ার কারণে পারিবারিক, সামাজিক ও আর্থিকভাবে বঞ্চিত হয়েছে। অভাবে তাদের সাহায্য করে ইসলামে সুদৃঢ় করা।

৫। ঋণমুক্তির জন্য : জীবনের মৌলিক বা প্রয়োজনীয় চাহিদা পূরণের জন্য সঙ্গতকারণে ঋণগ্রস্ত ব্যক্তিদের ঋণ মুক্তির জন্য যাকাত প্রদান করা যাবে।

৬। দাসমুক্তি :  কৃতদাসের মুক্তির জন্য।

৭। ফি সাবিলিল্লাহ বা জিহাদ : অর্থাৎ ইসলামকে বোল-বালা বা বিজয়ী করার লক্ষ্যে যারা কাফির বা বিধর্মীদের সাথে জিহাদে রত সে সকল মুজাহিদদের প্রয়োজনে যাকাত দেয়া যাবে।

৮। মুসাফির : মুসাফির অবস্থায় কোন ব্যক্তি বিশেষ কারণে অভাবগ্রস্থ হলে ওই ব্যক্তির বাড়িতে যতই ধন-সম্পদ থাকুক না কেন তাকে যাকাত প্রদান করা যাবে।

কাদেরকে যাকাত দেয়া যাবে না:

১। উলামায়ে ছূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মাওলানা দ্বারা পরিচালিত মাদরাসা অর্থাৎ যারা জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও অন্যান্য কুফরী মতবাদের সাথে সম্পৃক্ত সেই সমস্ত মাদরাসাতে যাকাত প্রদান করলে যাকাত আদায় হবে না।

২। নিসাব পরিমাণ মালের অধিকারী বা ধনী ব্যক্তিকে যাকাত দেয়া যাবে না।

৩। মুতাক্বাদ্দিমীন অর্থাৎ পূর্ববর্তী আলিমগণের মতে কুরাঈশ গোত্রের বনু হাশিম-এর অন্তর্গত আব্বাস, জাফর, আকীল রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণের বংশধরের জন্য যাকাত গ্রহণ বৈধ নয়। তবে মুতাআখখিরীন অর্থাৎ পরবর্তী আলিমগণের মতে বৈধ।

৪। অমুসলিম ব্যক্তিকে যাকাত দেওয়া যাবে না

৫। যে সমস্ত মাদরাসায় ইয়াতীমখানা ও লিল্লাহ বোডিং আছে সেখানে যাকাত দেয়া যাবে এবং যে সমস্ত মাদরাসায় লিল্লাহ বোডিং নেই সেখানে যাকাত দেয়া যাবেনা ।

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. আজকাল মানুষ যাকাতকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে। কিন্তু যাকাত যে ফরয ইবাদাত, এটা কেউ ভাবে না, গুরুত্বও দেয় না। যাকে তাকে যাকাত দিলে যে যাকাত আদায় হবে না, এটাও জানে না। আবার ইচ্ছামত না দিয়ে সম্পদের হিসেব করে যাকাত দিতে হবে, এটাও তারা জানে না।

    পোস্টটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। লেখককে ধন্যবাদ

  2. quraisqurais says:

    যাকাতের মাসয়ালা জানা সকল মুসলমান নর-নারীর জন্য ফরজ।

  3. আপনাদের যাকাত ও উশর ‘মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মাদরাসা ও ইয়াতীমখানা’ তে দিবেন

  4. Blue-skyBlue-sky says:

    সহমত দরবেশ ভাইয়ের সাথে Announce Announce

  5. কিন্তু লেখাটি অসম্পূর্ণ‌ কেন?

    এবং যে সমস্ত মাদরাসায় লিল্লাহ বোডিং নেই সেখানে যা…
    (…কাত দেয়া যাবে না)

  6. sundarmon says:

    যাকাত নামায রোজার মতই ফরজ ।
    আফসোস! মুসলমানগন যাকাতকে দান-ছদকার কাতারে নিয়ে গেছে।(নাউযুবিল্লাহ)

    আপনাদের যাকাত ও উশর ‘মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মাদরাসা ও ইয়াতীমখানা’ তে দিবেন Rose

  7. যাকাত না দিলে ফরজ নামাজ ই কবুল হবেনা। আবার মাল সম্পদ ও হারাম হয়ে যাবে।
    বিস্তারিত http://www.ahkamuzzakat.com/

  8.  

     


     

    আপনার কত টাকা যাকাত হয়েছে তা বের করার জন্য যাকাত ক্যালকুলেটার ব্যবহার করুন


     

     

     

  9. মহানন্দামহানন্দা says:

    উলামায়ে সূ’দের ৫/১০ টাকার চান্দা পকেটে ভরে সন্তুষ্ট থাকায় তারা সাধারণ মানুষকে যাকেতের ব্যাপারে না বলায় যাকাতের চেতনা মুসলিম সমাজ থেকে প্রায় উঠে গেছে। আনজুমানে আল বাইয়্যিনাতের কর্মীদেরকে বলিষ্ঠ কর্মোদ্যোগ নিয়ে মাঠে নামতে হবে। মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি মদদ করুন।
    Announce Announce Announce

  10. গোলামে মাদানী আক্বাগোলামে মাদানী আক্বা says:

    sohomot dorbesh vaier sathe

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে