যারা বোমাবাজি করে অন্যায়ভাবে মানুষ হত্যা করে তাদেরকে জঙ্গি না বলে সন্ত্রাসী বলতে হবে


ভালোদের জন্য ভালো আর মন্দদের জন্য মন্দ শব্দের ব্যবহার করা পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনারই নির্দেশ। পবিত্র সূরা বাকারা শরীফ উনার ১০৪ নম্বর আয়াত শরীফ উনার মধ্যে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সম্বোধন করা নিয়ে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “তোমরা উনাকে ‘রঈনা’ বলো না, বরং ‘উনযুরনা’ বলো।” ‘রঈনা’ শব্দের যেহেতু ভালো ও মন্দ উভয় অর্থ রয়েছে, সেহেতু তা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার জন্য ব্যবহার নিষেধ করা হয়েছে। উনার জন্য ‘উনযুরনা’ যেরূপ শুধুমাত্র ভালো অর্থ প্রদান করে, এরূপ শব্দ ব্যবহার করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কাজেই পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার নামে হোক অথবা অন্য নামেই হোক যেসব ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা সংগঠন অনৈসলামিক কাজ ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, হত্যা, লুন্ঠন, বোমাবাজি, গোলাগুলি ও নানা প্রকার ফিতনা-ফাসাদ ইত্যাদি নাশকতামূলক কার্যকলাপ করে তাদেরকে ‘সন্ত্রাসী’ বলে চিহ্নিত করতে হবে এবং তাদের সংগঠন বা দলকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ বলে অভিহিত করতে হবে। তাদেরকে কখনই ‘জঙ্গি’ কিংবা ‘জঙ্গি সংগঠন’ বলা উচিত হবে না। কারণ ‘জঙ্গি’ শব্দটি বর্তমানে মন্দ অর্থ প্রকাশে ব্যবহৃত হলেও প্রকৃতপক্ষে এর ভালো অর্থ রয়েছে। তাই ‘সন্ত্রাসবাদী’ ব্যক্তি ও সংগঠনের জন্য কেবল মন্দ অর্থ প্রদান করে এমন শব্দ ‘সন্ত্রাসী’ বা ‘সন্ত্রাসবাদী’ ব্যবহার করাটাই শরীয়তের নির্দেশ। কারণ যে শব্দের এক অর্থ ভালো হয় সে শব্দ এদের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়। কেননা এরা উত্তম শব্দের উপযুক্ত নয়। তাই এদেরকে ‘জঙ্গি’ না বলে ‘সন্ত্রাসী’ বলতে হবে।
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে