যিকির-ফিকিরের মাধ্যমে মুরীদের কাছে অনেক তথ্য প্রকাশিত হয়


পবিত্র দরবার শরীফে সালেকগণ বিভিন্ন খাতে হাদিয়া পেশ করার সুযোগ লাভ করে থাকেন। এ ব্যাপারে আমার মনে একটা চিন্তা উদয় হলো- যে, সমস্ত হাদিয়া এক খাতে দিলেই তো হতো, তবে বিভিন্ন খাত কেন? বিষয়টি অনেক ভেবেছি কোনো কিণারা পেলাম না। তবে এ বিশ্বাস ছিল যে, মহান আল্লাহ পাক উনার ওলী আলাইহিস সালাম উনাদের কোনো কাজ অনর্থক নয়। অনেক ফিকির করার পরে আমার মনে উদয় হলো- যে এক একটি খাত এক একটি ফায়িয-তাওয়াজ্জুহ, রহমত, বরকত, মাগফিরাত দানের এক একটি রাস্তা। খাতগুলি একত্র হলে একটি রাস্তা হবে, যদি কোনো কারণে এই লাইনটি বন্ধ থাকে তাহলে ফায়েয-তাওয়াজ্জুহ ইত্যাদিও বন্ধ থাকবে। অনেকগুলে লাইন থাকলে কোনো না কোনো লাইন খোলা থাকবে এবং হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার তরফ থেকে সালেক ফয়েয তাওয়াজ্জুহ পাইতেই থাকবে। আমার এটাও মনে হয়েছে, হাদিয়া বাকি থাকলে ফায়েয তাওয়াজ্জুহর প্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। সুতরাং বিভিন্ন খাত সালেকের কল্যাণেই করা হয়েছে। যিকির ও ফিকিরের মাধ্যমেই অনেক তথ্য মুরীদ পেয়ে থাকে।
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে