যেভাবে হাতছাড়া স্বাধীন আরাকান


আরাকানি মুদ্রা; যা যুক্তরাজ্যের মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে।

আরাকানি মুদ্রা; যা যুক্তরাজ্যের মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে।

==========
আজকের নির্যাতিত আরাকানের মুসলমানদের রয়েছে গৌরবময় অতীত। একসময় আরাকান রাজ্যের রাজা বৌদ্ধ হলেও সে মুসলমান উপাধি গ্রহণ করতো।
তার মুদ্রায় ফারসি ভাষায় লেখা থাকত কালেমা শরীফ।
 
আরাকান রাজদরবারে কাজ করতেন অনেক বাঙালি মুসলমান। বাংলার সঙ্গে আরাকানের ছিল গভীর রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক।
 
১৪০৬ সালে আরাকানের ম্রাউক-উ রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা নরমিখলা ক্ষমতাচ্যুত হয়ে পালিয়ে বাংলার তৎকালীন রাজধানী গৌড়ে চলে আসেন। গৌড়ের শাসক জালালুদ্দিন শাহ তিনি নরমিখলার সাহায্যে ৩০ হাজার সৈন্য পাঠিয়ে তাকে বিতাড়নকারী বর্মি রাজাকে উত্খাতে সহায়তা করেন। নরমিখলা ইসলাম কবুল করেন ও মোহাম্মদ সোলায়মান শাহ নাম নিয়ে আরাকানের সিংহাসনে বসেন। ম্রাউক-উ রাজবংশ ১০০ বছর আরাকান শাসন করেছে। এর ফলে সেখানে মুসলিম ব্যবসায়ী, বুদ্ধিজীবী, কবি ও শিল্পীদের পৃষ্ঠপোষকতা বৃদ্ধি পায়।
 
মধ্যযুগে বাংলা সাহিত্যচর্চার একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল রোসাং রাজদরবার।
মহাকবি আলাওল রোসাং দরবারের রাজকবি ছিলেন। তিনি লিখেছিলেন মহাকাব্য পদ্মাবতী। এছাড়া সতী ময়না ও লোর-চন্দ্রানী, সয়ফুলমুলক, জঙ্গনামা প্রভৃতি কাব্যগ্রন্থ রচিত হয়েছিল রোসাং রাজদরবারের আনুকূল্যে ও পৃষ্ঠপোষকতায়। (সূত্র : রোহিঙ্গা জাতির ইতিহাস, এন এম হাবিব উল্লাহ্)
 
ঈসায়ী সপ্তম-অষ্টম শতাব্দীতে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উদ্ভব হয়। প্রাথমিকভাবে মধ্যপ্রাচ্যয়ীয় মুসলমান ও স্থানীয় আরাকানিদের সংমিশ্রণে রোহিঙ্গা জাতির উদ্ভব। পরবর্তী সময়ে চাটগাঁইয়া, রাখাইন (মগ), আরাকানি, বার্মিজ, বাঙালি, ভারতীয়, মধ্যপ্রাচ্য, মধ্য এশিয়া ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মানুষের মিশ্রণে এই জাতি ঈসায়ী ত্রয়োদশ-চতুর্দশ শতাব্দীতে পূর্ণাঙ্গ জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।
 
রোহিঙ্গাদের বসবাসস্থল রাখাইন (আরাকান) রাজ্য। এর আদি নাম আরাকান। এ নামকরণ স্মরণ করিয়ে দেয় মুসলিম ঐতিহ্যের কথা। কারণ ইসলামের পাঁচটি মূল ভিত্তিকে একত্রে বলা হয় ‘আরকান’। আর এই ‘আরকান’ থেকেই মুসলমানদের আবাস ভূমির নামকরণ করা হয়েছে ‘আরাকান’।
 
আরাকানে মুসলমানরা বার্মিজ মগ(রাখাইন)দের চেয়ে সুপ্রাচীন। বর্মিদের কয়েকশ বছর আগে থেকে সেখানে মুসলমানদের বসবাস। আরাকানি সূত্রে জানা যায়, আরাকানে দশ কিংবা বারো শতকের আগে বর্মি অনুপ্রবেশ ঘটেনি। (Harvey, G E, History of Burma. p-137-313)
 
সপ্তম শতাব্দীতে বঙ্গোপসাগরে ডুবে যাওয়া একটি জাহাজ থেকে বেঁচে যাওয়া লোকজন পার্শ্ববর্তী উপকূলে আশ্রয় নেন। তাঁরা বলেন, ‘আল্লাহর রহমতের বেঁচে গেছি। ’ সেই ‘রহম’ থেকেই রোহিঙ্গা জাতির উদ্ভব। কিন্তু আগে রোসাং ও রোয়াং শব্দ অধিক পরিচিত ছিল। এককালে চট্টগ্রামের মানুষ ‘রোয়াং’ যেত উপার্জনের জন্য। চট্টগ্রাম দীর্ঘ সময় আরাকানের অধীন ছিল। ড. আহমদ শরীফ লিখেছে, ‘চট্টগ্রাম গোড়া থেকেই সম্ভবত আরাকানী শাসনে ছিল। আর ৯ শতকের শেষপাদে ৮৭৭ (ঈসায়ী) অব্দের পূর্বে কোনো সময়ে সমগ্র সমতট আরাকানী শাসনভুক্ত ছিল। ’ (আহমদ শরীফ, চট্টগ্রামের ইতিহাস, পৃষ্ঠা ২৯)
 
আরাকানে রোহিঙ্গাদের বসবাসের ঐতিহাসিক পটভূমি রয়েছে। ইতিহাস বলছে, রোহিঙ্গারা আরাকানের ভূমিপুত্র (আদিবাসী)। ১৪৩০ থেকে ১৭৮৪ ঈসায়ী সাল পর্যন্ত ২২ হাজার বর্গমাইল আয়তনের আরাকান স্বাধীন রাজ্য ছিল। ১৭৮৫ ঈসায়ী সালের প্রথম দিকে মিয়ানমারের যালিম বৌদ্ধ রাজা ভোধাপোয়া এটি দখল করে বার্মার (মিয়ানমার) করদ রাজ্যে পরিণত করে।
 
১৭৯৯ ঈসায়ী সালে প্রকাশিত ‘বার্মা সাম্রাজ্য’তে ব্রিটিশ ফ্রাঞ্চিজ বুচানন হ্যামিল্টন উল্লেখ করেছে, মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ (ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম.)-এর অনুসারীরা (মুসলিম), যারা অনেক দিন ধরে আরাকানে বাস করছে, তাদের রুইঙ্গা (Rooinga) বা আরাকানের স্থানীয় বাসিন্দা কিংবা আরাকানের মূল নিবাসী (Native of Arakan) বলা হয়। মগ (রাখাইন) জাতি কখনোই নিজেদের আরাকানের স্থানীয় বাসিন্দা বা আরাকানের মূল নিবাসী (Native of Arakan) উল্লেখ করেনি।
 
আরাকান ছিল বরাবরই স্বাধীন ও অতিশয় সমৃদ্ধ একটি দেশ। বাংলার প্রাচুর্যের কারণে যেমন ১৫০০ ঈসায়ী সালের শুরুতে এখানে ইউরোপীয় লুটেরা বণিকদের আগমন ঘটে, তেমনি ১৫০০ ও ১৬০০ ঈসায়ী সালে আরাকানে পর্তুগিজ ও ওলন্দাজ পানিদস্যুদের আগমন ঘটে। ১৬০০ ঈসায়ী সালে ওলন্দাজ পানিদস্যুরা আরাকান থেকে দাস ও চাল ক্রয় করত।
 
মিয়ানমারের বর্তমান বৌদ্ধ সন্ত্রাসীদের আগের নাম মগ। মগরা ঐতিহাসিকভাবেই অসভ্য, বর্বর ও দস্যু প্রকৃতির। মগ দস্যুরা বাংলার উপকূল থেকে লোকজন ধরে নিয়ে তাদের কাছে বিক্রি করত। মগদের বর্বরতার সংক্ষিপ্ত বিবরণ পাওয়া যায় ড. আহমদ শরীফের লেখায়। তিনি লিখেছেন, ‘মগ জলদস্যুরা জলপথে বাংলাদেশের ভুলুয়া, সন্দ্বীপ, সংগ্রামগড়, বিক্রমপুর, সোনারগাঁ, বাকলা, যশোর, ভূষণা ও হুগলী লুণ্ঠন করত। তারা হিন্দু-মুসলিম, নারী-পুরুষ ও বড়-ছোট-নির্বিশেষে ধরে নিয়ে যেত। হাতের তালু ফুঁড়ে বেত চালিয়ে গরু-ছাগলের মতো বেঁধে নৌকার পাটাতনে ঠাঁই দিত। মুরগীকে যেভাবে দানা ছিটিয়ে দেওয়া হয়, তাদেরও তেমনি চাউল ছুড়ে দেওয়া হত খাবার জন্যে। এ অবহেলা ও পীড়নের পরেও যারা বেঁচে থাকত তাদেরকে ভাগ করে নিত মগ ও পর্তুগীজে। ’ (চট্টগ্রামের ইতিহাস, প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ৫১)
 
এ থেকেই বাংলাদেশের ভাষায় “মগের মুল্লুক” বাগধারার প্রচলন হয়।
 
১৫৩১ ঈসায়ী সালে আরাকানের রাজা জেবুক শাহ তিনি পর্তুগিজদের সহায়তায় আরাকানে নৌবাহিনী গঠন করেন। উদ্দেশ্য ছিল, মোগলদের থেকে আরাকানকে স্বাধীন রাখা। নৌসেনা গঠনের উদ্দেশ্য ছিল যেহেতু মোগল মুসলিম শাসকদের মোকাবেলা, তাই জেবুক শাহ তার নৌবাহিনীতে আরাকানের মুসলমানদের পরিবর্তে মগদের স্থান দেন। কিন্তু পরে এরা মানবিকতাবিবর্জিত হিংস্র জলদস্যুতে পরিণত হয়।
 
আরাকানের পতনকাল শুরু হয় ১৬৬০ ঈসায়ী সালে আরাকানের গাদ্দার রাজা চন্দ্র সু ধর্মা কর্তৃক ধোঁকাবাজি করে মোগল রাজপুত্র শাহসুজাকে হত্যার মধ্য দিয়ে। এরপর দীর্ঘ সময় ধরে আরাকানে বিরাজ করে অস্থিরতা। মাঝখানে শান্তি ফিরে এলেও আরাকানি সামন্ত রাজাদের মধ্যে কোন্দল দেখা দেয়। সে সুযোগে ১৭৮৪ ঈসায়ী সালে যালিম বর্মি রাজা ভোধাপোয়া আরাকান দখলে নেয়। যুলুমবাজ ভোধাপোয়ার অত্যাচারে আরাকানের রাজা ঘা থানবি পালিয়ে কক্সবাজারে আশ্রয় নিয়ে বর্মিদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ও আন্দোলনের নেতৃত্ব দেয়। তার মৃত্যুর পর তার ছেলে সিনপিয়ার নেতৃত্বে আরাকান বিদ্রোহ তুঙ্গে পৌঁছে। ১৮১১ সালে সিনপিয়ার বাহিনী রাজধানী ছাড়া গোটা আরাকান দখলে নিলেও পরে পরাজিত হয় যালিম বর্মি রাজার সেনাদের কাছে।
 
আরাকানের বিদ্রোহ দমনের জন্য যালিম বর্মি রাজা ১৮১১ ঈসায়ী সালে গোটা বার্মায় প্রত্যেক পরিবার থেকে একজন যুবক, ২৫০ টাকা, একটি বন্দুক, ১০টি চকমকি পাথর, দুই সের বারুদ, সম ওজনের সিসা, দুইটি কুঠার, ১০টি লম্বা পেরেক সরবরাহের নির্দেশ জারি করে। এভাবে এক সর্বাত্মক যুদ্ধের মাধ্যমে তৎকালীন বর্মি রাজা সে আরাকানি রাজা সিনপিয়ার বাহিনীকে পরাজিত করে। ১৮১৫ ঈসায়ী সালে সিনপিয়ারের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে শেষ হয় আরাকানের স্বাধীনতা উদ্ধার আন্দোলন।
 
১৮২৪ ঈসায়ী সালে লুটেরা ইস্ট ইন্ডিয়া কম্পানি বার্মা দখল করে। এরপর দীর্ঘ ১০০ বছর পর্যন্ত আরাকানি রোহিঙ্গারা ব্রিটিশ অধীনে ছিল। কিন্তু ১৯৪২ সালে আরাকান জাপানিদের অধীনে চলে যায়।
 
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বার্মায় জাপানি সেনাদের দ্বারা এক লাখ ৭০ হাজার থেকে দুই লাখ ৫০ হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই ছিল মুসলমান।
 
অবশেষে ১৯৪৫ ঈসায়ী সালে আবার ব্রিটিশরা আরাকান দখল করে। ১৯৪৮ ঈসায়ী সালে স্বাধীনতা লাভ করে বার্মা। কিন্তু স্বাধীনতার মাধ্যমে বার্মা ব্রিটিশমুক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নতুনভাবে আরাকানের ওপর হত্যা, নির্যাতন আর উচ্ছেদে মেতে ওঠে যালিম দস্যু বর্মি বৌদ্ধরা। আরাকানবাসী মুসলমানদেরকে বহিরাগত আখ্যা দিয়ে শুরু করে চরম হত্যাযজ্ঞ। বলা যায়, বার্মার স্বাধীনতা আরাকানের রোহিঙ্গা মুসলমানদের জন্য বয়ে আনে অভিশাপ।
 
‘রোহিঙ্গাদের উৎস ও বিকাশ’ শীর্ষক এক গবেষণায় অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, ‘রাজা ভোধাপোয়া আরাকান দখল করে বার্মার সঙ্গে যুক্ত করার আগে ১৪০৪ সাল থেকে ১৬২২ সাল পর্যন্ত ১৬ জন মুসলিম রাজা আরাকান শাসন করেন। ’
 
১৭৮২ ঈসায়ী সালে ‘থামাদা’ আরাকানের রাজধানী ‘ম্রোহং’ দখল করে নিজেকে রাজা ঘোষণা করে। গৃহযুদ্ধে বিপর্যস্ত স্বাধীন আরাকান রাজ্য এরপর একেবারে ভেঙে পড়ে।
 
১৭৮৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর বার্মার যালিম বৌদ্ধ রাজা ভোধাপোয়া আরাকান আক্রমণ করে আরাকানকে বার্মার একটি প্রদেশে পরিণত করে। সে সময় দুই লক্ষাধিক মানুষকে (বিশেষতঃ রোহিঙ্গাদেরকে) হত্যা করা হয়। পরিকল্পিতভাবে আরাকানি বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়, যাতে এ জাতির পুনরুত্থানের পথ রুদ্ধ হয়ে যায়।
 
যালিম বৌদ্ধ রাজা ভোধাপোয়ার উচ্চ কর আরোপ আর বর্মি বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে মগ-মুসলিম-নির্বিশেষে আরাকানের জনগণ পালিয়ে এসে চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে বসবাস শুরু করে। চট্টগ্রামে ও পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসকারী আজকের মগ উপজাতিরাই এরা। আরাকানে (রাখাইন রাজ্যে) রোহিঙ্গা নিধনকারী মগ(রাখাইন)রা এরাই।
 
জিন্নাহর ঐতিহাসিক ভুল:
 
বিশ্লেষকরা মনে করেন, জিন্নাহ আরাকানের ব্যাপারে সঠিক ভূমিকা গ্রহণ করলে আজ রোহিঙ্গাদের ইতিহাস ভিন্ন হতে পারত। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলে আরাকান মিয়ানামার থেকে আলাদা হতে চেয়েছিল। কেননা ঐতিহাসিকভাবে আরাকান মিয়ানমারের মূল ভূখণ্ডের অংশ ছিল না। যালিম বার্মিজ বৌদ্ধরা একসময়ের স্বাধীন আরাকান দখলে নেয়। ব্রিটিশ উপনিবেশে ভারত-পাকিস্তান স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় পূর্ব-পাকিস্তানের (বাংলাদেশ) সঙ্গে একীভূত হতেও মত দেয় আরাকান নেতৃত্ব। নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করতে ১৯৪৬ সালে ‘আরাকান মুসলিম লীগ’ গঠন করে তারা। কিন্তু জিন্নাহর ঐতিহাসিক ভুল সিদ্ধান্তের কারণে আরাকান বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্ত হতে পারেনি। পারেনি তার স্বাধীন অস্তিত্ব ফিরিয়ে আনতে। পূর্ব পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্ত না করলেও সে সময় তাদের স্বাধীন থাকার সুযোগ করে দেয়া যেত। কিন্তু এ সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যায়। এর দায় জিন্নাহর। সে আদৌ মুসলিম ছিলো কিনা, সে ব্যাপারেই অনেকের সন্দেহ! জিন্নাহ ছিলো খোজা সম্প্রদায়ের। হিন্দু লোহানা জাতি থেকে ধর্মান্তরিত হয়েছে তারা। এরা শিয়া খোজা সম্প্রদায়ভুক্ত। বার্নার্ড লিউইস খোজাদের বিবরণ দিতে গিয়ে বলেছে, ‘এরা মুসলিম আচ্ছাদনের তলায় হিন্দু মনোভাবাপন্ন। ’ (যশোবন্ত সিংহ, ‘জিন্নাহ ভারত দেশভাগ স্বাধীনতা’, আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা, পৃষ্ঠা ৬২)
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে