যে আমলের মাধ্যমে পবিত্র কুরবানী উনার পূর্ণ ছওয়াব লাভ করা যায়


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত হয়েছে-
عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عَمْرٍو رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اُمِرْتُ بِيَوْمِ الْاُضْحِىَّ عِيْدًا جَعَلَهُ اللهُ لِـهٰذِهٖ الْاُمَّةِ قَالَ لَهُ رَجُلٌ يَا رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اَرَايْتَ اِنْ لَـمْ اَجِدْ اِلَّا َمَنِيْحَةَ اُنْثٰى اَفَاُضَحّى بِـهَا قَالَ لَا وَلٰكِنْ خُذْ مِنْ شَعْرِكَ وَاَظْفَارِكَ وَتَقُصْ شَارَبَكَ وَتَـحْلَقْ عَانَتَكَ فَذٰلِكَ تَـمَام اُضْحِيَّتَكَ عِنْدَ اللهِ.
অর্থ : “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত, মহান আল্লাহ্ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমি পবিত্র কুরবানী উনার দিনকে ঈদের দিন হিসেবে নির্ধারণ করার জন্য আদিষ্ট হয়েছি। মহান আল্লাহ পাক তিনি উক্ত দিনটিকে এই উম্মতের জন্য ঈদ হিসেবে নির্ধারণ করেছেন। এক ব্যক্তি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমি যদি একটি মাদী মানীহা (উটনী) ব্যতীত অন্য কোন পশু পবিত্র কুরবানী উনার জন্য না পাই, তাহলে উক্ত মাদী মানীহাকে কুরবানী করার ব্যাপারে আপনার কি মত? জবাবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, না। আপনি উক্ত পশুটিকে কুরবানী করবেন না বরং আপনি পবিত্র কুরবানী উনার দিন আপনার (মাথার) চুল ও হাত-পায়ের নখ কাটবেন। আপনার গোঁফ খাট করবেন এবং অতিরিক্ত পশম কাটবেন, এটাই মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট আপনার পূর্ণ কুরবানী অর্থাৎ এর দ্বারা আপনি মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট পবিত্র কুরবানী উনার পূর্ণ ছওয়াব পাবেন।” সুবহানাল্লাহ! (আবূ দাঊদ শরীফ)
অর্থাৎ যারা পবিত্র কুরবানী করবেনা অথবা করবে উভয়ের জন্যই পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাসের চাঁদ দেখার পর থেকে পবিত্র কুরবানী করার পূর্ব পর্যন্ত নিজ শরীরের চুল, নখ, ইত্যাদি না কাটা মুস্তাহাব। আর যে ব্যক্তি তা কাটা থেকে বিরত থাকবে, সে একটি পবিত্র কুরবানী উনার ছওয়াব পাবে। সুবহানাল্লাহ!
সুতরাং যারা পবিত্র কুরবানী উনার পূর্ণ ছওয়াব পেতে চান, তাদেরকে অবশ্যই পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাসের চাঁদ উঠার পূর্বেই নিজ শরীরের চুল, নখ, মোচ বা গোঁফ ইত্যাদি কাটতে হবে। এ বছর ১৪৪০ হিজরীর পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ উনার চাঁদ তালাশ করতে হবে আগামী ইয়াওমুল জুমুয়াহ (জুমুয়াবার) দিবাগত সন্ধায় এবং সেদিন চাঁদ উঠার সম্ভাবনাও রয়েছে। তাই আগামী ইয়াওমুল জুমুয়াহ (জুমুয়াবার) দিনের মধ্যেই সকলকে নিজ শরীরের চুল, নখ, মোচ বা গোঁফ ইত্যাদি কাটতে হবে।
মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদের সকলকে উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার আমল করার মাধ্যমে পবিত্র কুরবানী উনার পূর্ণ ছওয়াব হাছিল করার তাওফীক্ব দান করুন। আমীন

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে