রক্তের হক্ব আদায় করার জন্য জেগে উঠো


হযরত আব্দুল্লাহ বিন যুবায়ের রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি খ্রিস্টান শাসন কর্তৃক বন্দী হলেন। মুসলমান সৈন্য উনাদেরকে গরম তেলের ডেকচিতে ফেলে শহীদ করা হচ্ছে। উনাকে শর্ত দেয়া হল- যদি বশ্যতা স্বীকার করেন তাহলে শাসকের রাজার মেয়েকে বিয়ে দেয়া হবে- অর্ধেক রাজত্ব দেয়া হবে। রাজি না হওয়ায় গরম তেলের ডেকচিতে আনা হল। উনার চক্ষু মুবারক দিয়ে অশ্রু গড়াচ্ছিল। খ্রিস্টান রাজা তার কারণ জানতে চাইলে বলেন, আমি মহান আল্লাহ পাক উনার মুহব্বতে শহীদ হচ্ছি আমার মাত্র একটি প্রাণ। যদি আমার লোমের সমপরিমাণ প্রাণ থাকতো তা খালিক্ব মালিক রব উনার মুহব্বতে ত্যাগ করতাম। এটা শুনে খ্রীস্টান রাজা উনাকে মুক্ত করে কপাল মুবারকে বুছা দিলো। আবার পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে ফেরৎ আসার পর হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার কপাল মুবারকে বুছা দিলেন। আজ বাংলাদেশ ৯৮% মুসলমান উনাদের দেশ। প্রত্যেক জেলায় গ্রামে গ্রামে ওলী আউলিয়া উনাদের মাযার শরীফ রয়েছে। উনাদের বংশধররা কোথায়? উনাদেরকে রক্তের হক্ব আদায় করতে হবে। প্রত্যেক পাড়ায়, মহল্লায় মুসলমান আছেন উনাদের জাগতে হবে। আজ মুসলমান উনারা সংকীর্ণ অবস্থায়, কাফেরদের দ্বারা আক্রান্ত।
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে