রাজাকার।


রাজাকার মালানা সুবহানের নির্দেশে ৪শ ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়-৪
আল ইহসান ডেস্ক:

 

ভীতসন্ত্রস্ত ওই নারী আরো জানান, ২৯ মার্চ ১৯৭১ সালের মধ্যে তার দেখা ওইসব পরিচিত ব্যক্তির সবাইকে মেরে ফেলা হয়।
আল-বাদর বাহিনীর নেতৃত্বে ছিলো রাজাকার আবদুস সুবহান। সাংবাদিক দীপু সারোয়ার রচিত ‘ফিরে দেখা ঘাতকদের চেহারা’ বইয়ে মালানা সুবহানের নাম উল্লেখ আছে।
অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবদুল গনি (কালাচাঁদপাড়া, পাবনা) জানান, ১৭ এপ্রিল দুপুরে কুচিয়াপাড়া ও শাঁখারীপাড়ায় মালানা আবদুস সুবহান পাকিস্তানি আর্মিদের সঙ্গে নিয়ে অপারেশন চালায়। ওইদিন সেখানে ৮ জনকে হত্যা করা হয়। তারা ২০-২৫টি ঘর পুড়িয়েছিল এবং লুটতরাজ ও নারী নির্যাতনও করেছিল। অধ্যক্ষ আবদুল গনি আরো বলেন, মে মাসে পাবনার ফরিদপুর থানার ডেমরায় মালানা আবদুস সুবহান, মালানা ইসহাক, টেগার ও আরো কয়েকজন দালালের একটি শক্তিশালী দল পাকিস্তানি আর্মি নিয়ে ব্যাপক গণহত্যা চালায়। সেখানে ওইদিন আনুমানিক ১০০০ মানুষ হত্যাসহ ঘরবাড়ি পোড়ানো, লুণ্ঠন, নারী নির্যাতন ইত্যাদি করা হয় (সূত্র : গণতদন্ত কমিশন রিপোর্ট)।
পাবনা জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জহুরুল ইসলাম বিশু বলেছেন, একাত্তরে মালানা আবদুস সুবহান পাবনা জেলা জামাতের ভারপ্রাপ্ত আমীর, শান্তিকমিটির সহসভাপতি ও আল-বাদর বাহিনীর সদস্য ছিলো। তিনি তার লেখা ‘পাবনার কথা’ বইয়ে বিষয়টি উল্লেখ করেছেন।

 

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে