শানে হযরত সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম


একজন বুজুর্গ ব্যক্তি মনে মনে চিন্তা ফিকির করছিলেন, হযরত সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের এমন অতুলনীয় শান মান ফযীলত মর্যাদার কারণ কী? উনারা হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে অত্যন্ত মুহব্বত তাযীম তাকরীম মুবারক করেছেন, খিদমত মুবারকের আঞ্জাম দিয়েছেন, এইজন্য? সেটাতো তিনিও করেন!

এরপর তিনি ঘুমিয়ে পড়লেন। স্বপ্নে দেখলেন তিনি একস্থানে দাঁড়িয়ে আছেন। উনাকে জানানো হল, কিছুক্ষণ পরেই হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এক সম্মানিত বাহনে করে এই রাস্তা অতিক্রম করবেন। কিন্তু রাস্তায় এক বিরাট গর্ত দেখা যাচ্ছে। গর্তটা বন্ধ না করা হলে ব্যতিক্রম কিছু ঘটে যেতে পারে। বুজুর্গ ব্যক্তি হন্যে হয়ে চারিদিকে ইট পাথর বালি খড়কুটো ইত্যাদি খুঁজতে লাগলেন। কিন্তু এমন কিছুই পেলেন না যা দিয়ে গর্তটা বন্ধ করা যায়। তিনি খুব পেরেশান হয়ে পড়লেন।

এমন সময় তিনি কয়েকজন সম্মানিত ব্যক্তি উনাদেরকে আসতে দেখলেন। উনারা বুজুর্গ ব্যক্তির অস্থিরতার কারণ জানতে চাইলেন। বুজুর্গ ব্যক্তি সব খুলে বললেন। উনারা শুনে কিন্তু কোনরুপ দুশ্চিন্তা পেরেশানি দেখালেন না; বরং সাহস দিয়ে বললেন যে ঠিক আছে, কোন সমস্যা নেই। এদিকে বুজুর্গ ব্যক্তি তো কিছুতেই স্থির হতে পারছেন না। আর কয়েক মূহুর্ত পরেই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি তাশরীফ মুবারক আনতে যাচ্ছেন, এদিকে গর্ত বন্ধ করার কোন ব্যবস্থাই দেখা যাচ্ছে না।

তখনই দূর থেকে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বাহন মুবারক আগমনের আলামত দেখা গেল। দেখা মাত্রই সেই সম্মানিত ব্যক্তিগণ উনারা গর্তের মধ্যে শুয়ে পড়লেন। গর্ত বন্ধ হয়ে গেল। হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বাহন মুবারক উনাদের শরীর মুবারকের উপর দিয়ে চলে গেল। উনারা শহীদ হয়ে গেলেন। সুবহানাল্লাহ! উনারা ছিলেন হযরত সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম। সুবহানাল্লাহ!

হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি হযরত সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের যে ফানা বাক্বা তা সাধারণ মানুষের চিন্তা কল্পনার ঊর্ধ্বে। উনারা যে মাক্বাম মুবারকের অধিকারী, কিয়ামত পর্যন্ত আর কেউ সেই তা হাসিল করতে পারবে না। হাদীস শরীফে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “তোমরা আমার সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে গাল-মন্দ , সমালোচনা বা দোষারোপ করো না। তোমাদের কেউ যদি উহুদ পাহাড় পরিমাণ স্বর্ণ মহান আল্লাহ পাক উনার রাস্তায় দান করো, তবুও হযরত সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা আমার মুবারক খিদমতে এক মুদ (১৪ ছটাক) বা অর্ধ মুদ (৭ ছটাক) গম হাদিয়া করে যে ফযীলত অর্জন করেছেন তার সমপরিমাণ ফযীলত অর্জন করতে পারবে না।” সুবহানাল্লাহ! (বুখারী শরীফ, মিশকাত শরীফ)

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে