শিশুদের মুহব্বতের তরীকা


“কোন এক সময় এক বেদুঈন রাসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট এসে বললো, ‘ইয়া রসূলাল্লাহ্, ইয়া হাবীবাল্লাহ্ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি কি শিশুদের চুমু দেন? আমি তো কখনো শিশুদের চুমু দেই না।’ জবাবে খাইরুল আলম, হাবীবাল্লাহ্ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঐ বেদুঈনকে লক্ষ্য করে বললেন, “আল্লাহ্ পাক যদি তোমার অন্তর থেকে দয়া ছিনিয়ে নেন তাহলে আমার কি করার আছে।”
-বুখারী, মুসলিম, মিশকাত শরীফ
*শিশু বাচ্চাদের চুমু (বুছা) দেওয়া সুন্নত।
*হযরত আয়েশা ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম বলেন, ছহিবে আলক্বাব, হাবীবুল্লাহ্ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট যখন কোন নবজাতক শিশু নিয়ে আসা হতো তখন রহমতে আলম, হাবীবুল্লাহ্ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁদের জন্য দোয়া করতেন এবং তাদের মিষ্টি মুখ করাতেন।”

-মুসলিম শরীফ
*রাসূল ছল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম তিনি শিশুদের দেখামাত্র সালাম দিতেন।
-বুখারী শরীফ
* শিশুরা উনার কাছে আসলে কোল (নুরুল আযহার) মুবারকে তুলে নিতেন এবং তাদের কে আদর করে মাথায় হাত বুলাতেন।
-বুখারী শরীফ
* কখনো খেজুর কখনো টাটকা ফল বা সামান্য কিছু কিছু হলেও খাওয়াতেন।
*একাধিক শিশু একত্রিত হলে তাদেরকে এক কাতারে দাঁড় করিয়ে দূর হতে দুই বাহু মুবারক প্রসারিত করে বলতেন তোমরা সকলে দৌড়ে আমার কাছে এসো।যে সকলের আগে আমাকে স্পর্শ করবে তাকে এটা দিব, ওটা দিব।অতঃপর শিশুরা দৌড়ে উনার কাছে আসত এবং কেউ পেট (নুরুল ওয়ারা) মুবারকের উপর, কেউ বুক(নুরুল আত্বহার) মুবারকের উপর পড়ে যেত আর রাসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের বুকে জড়িয়ে ধরতেন এবং আদর করতেন।
-খাসায়েলে নববী
*আর কখনও শায়িত অবস্থায় শিশুকে পদযুগল (নুরুদ দারাজাহ্) মুবারকের উপর বসিয়ে নিতেন এবং কখনও বুক (নুরুল আত্বহার) মুবারকের উপর বসিয়ে নিতেন।
-হযরত উসমান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু।
যেখানে শিশুরা রাসুল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে পেত দৌড়ে চলে আসত।
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে