‘সত্য মানুষকে জীবন দান করে; আর মিথ্যা মানুষকে ধ্বংস করে দেয়।’


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমাদেরকে যা আদেশ-নির্দেশ মুবারক করা হয়েছে তার উপর ইস্তিকামত থাক।’ নূরে মুজাস্সাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘সত্য মানুষকে জীবন দান করে; আর মিথ্যা মানুষকে ধ্বংস করে দেয়।’ গাউছুল আ’যম হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি কঠিন পরিস্থিতিতেও সত্য কথা বলেছেন এবং দায়িমীভাবে হক্বের উপর ইস্তিকামত ছিলেন।তাই সকলের জন্য দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে- উনার পবিত্র সাওয়ানেহে উমরী মুবারক থেকে ইবরত-নছীহত হাছিল করে সদা সত্য কথা বলা এবং সত্যের উপর ইস্তিকামত থাকা আর মিথ্যা পরিহার করা ও মিথ্যা থেকে দূরে থাকা। যা সকলের জন্যই ইহকাল ও পরকালে নাজাত লাভের কারণ হবে।Al-ihsan.net যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, গাউছুল আ’যম হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ছিলেন সেই যামানায় মহান আল্লাহ পাক উনার খাছ লক্ষ্যস্থল ও মুজাদ্দিদ। উনার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ দিবস থেকে পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ পর্যন্ত পুরো হায়াত মুবারকেই মুসলমানগণ উনাদের জন্য রয়েছে অনেক ইবরত ও নছীহত। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হলেন- হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খাছ ওয়ারিছ, নায়িব, আওলাদ। উনাকে মহান আল্লাহ পাক উনার নির্দেশ মুবারক অনুযায়ীই উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ৬শ’ হিজরী শতাব্দীতে পাঠিয়েছেন ‘মুজাদ্দিদ’ হিসেবে তাজদীদ মুবারক করার জন্য। অর্থাৎ সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে যে সমস্ত কুফর, শিরক, বিদয়াত প্রবেশ করেছিল সেগুলো বের করে দেয়ার জন্য। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মূলত মহান আল্লাহ পাক তিনি গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে অনেক মর্যাদা-মর্তবা হাদিয়া করেছেন। তিনি সম্মানিত পিতা উনার দিক থেকে সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং সম্মানিতা মাতা উনার দিক থেকে সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের বংশধর। অর্থাৎ তিনি হচ্ছেন খাছ আওলাদুর রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি শিশুবেলায়ই সম্মানিতা মাতা উনার কাছ থেকে সত্য বলার শিক্ষা পান এবং সে সময় থেকেই মহা সঙ্কটময় অবস্থার মধ্যেও তিনি এই শিক্ষার উপর অবিচল বা ইস্তিকামত ছিলেন। যার কারণে উনার উসীলায় ভয়ানক দুর্ধর্ষ ডাকাতরাও হিদায়েত লাভ করেছিল। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, গাউছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি পবিত্র ইলম অর্জন করার লক্ষ্যে কাফিলার সাথে বাগদাদ শরীফ রওয়ানা হলেন। যাওয়ার সময় উনার সম্মানিতা ও বুযূর্গ মাতা উনার কোর্তার ভিতরে ৪০টি স¦র্ণমুদ্রা সেলাই করে দেন এবং নছীহত মুবারক করেন যে, হে হযরত আব্দুল ক্বাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি! যতই বিপদে পড়ন না কেন, তথাপিও কখনো মিথ্যা বলবেন না, বরং সর্বদাই সত্যের উপর ইস্তিকামত থাকবেন। কারণ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “সত্য মানুষকে জীবন দান করে; আর মিথ্যা মানুষকে ধ্বংস করে দেয়।” উক্ত কাফিলা রওয়ানা হয়ে বেশ কিছুদূর যাওয়ার পর রাত ঘনিয়ে আসলো, কাফিলা বিশ্রাম নেয়ার জন্য এক স্থানে তাঁবু টানালো। এদিকে রাতে হঠাৎ করে কাফিলায় ডাকাত আক্রমণ করলো। অনেকের সর্বস¦ লুন্ঠন করে নিলো, অনেককে আহত-নিহত করলো। গাউছুল আ’যম সাইয়্যিদুনা হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি নিজ চোখ মুবারকে তা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে অবলোকন করেন। এক পর্যায়ে ডাকাতরা গাউছুল আ’যম সাইয়্যিদুনা হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে জিজ্ঞেস করলো, হে বালক! আপনার কাছে কিছু রয়েছে কি? তিনি বললেন, হ্যাঁ রয়েছে। কি রয়েছে? চল্লিশটি স¦র্ণমুদ্রা। এটা তো সোজা কথা নয়। চল্লিশটি স¦র্ণমুদ্রা তো অনেক। বর্তমান যামানায় লক্ষ লক্ষ টাকা। তিনি কিন্তু কোনো পরওয়াই করলেন না। ডাকাতরা যে এত যুলুম করে যাচ্ছে, পয়সার জন্য তারা মারধর করতেছে। তিনি কোনো পরওয়া করলেন না। ডাকাত সর্দারকে বলা হলো। সে আসলো। জিজ্ঞেস করলো, হে বালক! আপনার কাছে কি কিছু রয়েছে? তিনি বললেন- হ্যাঁ, চল্লিশটি স¦র্ণমুদ্রা রয়েছে। কোথায় রয়েছে? তিনি জামাটা উল্টিয়ে দেখালেন ভিতরে কাপড় দিয়ে সেলাই করা। ডাকাত সর্দার তো তায়াজ্জুব হয়ে গেল। আপনি বলেন কি? আপনার চোখের সামনে এভাবে ডাকাতি করা হচ্ছে, মারধর করা হচ্ছে, ধন-সম্পদ নেয়া হচ্ছে। আপনি তো এটা না বললেও পারতেন, চুপ করে থাকলেও পারতেন। এটা তো কেউ তালাশ করে বের করতে পারতো না। তিনি বললেন, দেখ ডাকাত সর্দার! যখন আমি পবিত্র ইলম শিক্ষা করার জন্য ঘর থেকে বের হই, তখন আমার যিনি সম্মানিতা মাতা তিনি আমাকে বলেছিলেন, বাবা! কোনো অবস্থাতেই কখনো মিথ্যা কথা বলবেন না। কেননা, মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “মিথ্যাবাদীদের প্রতি মহান আল্লাহ পাক উনার লা’নত।” আর পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “সত্য মানুষকে জীবন দান করে; আর মিথ্যা মানুষকে ধ্বংস করে দেয়।” কাজেই মাত্র চল্লিশটি স¦র্ণমুদ্রার কারণে আমি আমার সম্মানিতা মাতা উনার কথা মুবারক অমান্য করতে পারি না। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, গাউছুল আ’যম সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি, উনার ফয়েযপূর্ণ এ নছীহত মুবারক শুনে ডাকাত সর্দারসহ সকলেই তায়াজ্জুব হলো, আশ্চর্য হলো। তারা উনার ক্বদম মুবারকে পড়ে ইস্তিগফার-তওবা করলো। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মূল কথা হলো- গাউছুল আ’যম সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি কঠিন পরিস্থিতিতেও সত্য কথা বলেছেন এবং দায়িমীভাবে হক্বের উপর ইস্তিকামত ছিলেন। যা মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের উভয়ের সাথে বেমেছাল নিছবতেরই বহিঃপ্রকাশ। অতএব, এ ঘটনা থেকে প্রত্যেক মুসলমান পুরুষ ও মহিলা উনাদের জন্য ইবরত-নসীহত মুবারক হাছিল করতে হবে। প্রথমতঃ সদা সত্য কথা বলতে হবে, সত্যের উপর ইস্তিকামত থাকতে হবে এবং কোনো অবস্থাতেই মিথ্যা বলা যাবে না। দ্বিতীয়তঃ সব অবস্থায় পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনার আদেশ-নিষেধ মুবারক উনাদের উপর ইস্তিকামত থাকতে হবে। যা সকলের জন্যই ইহকাল ও পরকালে নাজাত লাভের কারণ হবে।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে