সম্মানিত ঈমান-আমল হিফাযত করতে হলে উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানাদেরকে চিনতে ও চিহ্নিত করতে হবে, তাহলে মুসলমানরা তাদের ঈমান ও আমল হিফাযত করতে পারবে।


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার উম্মতের মধ্যে যারা উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী তারাই সৃষ্টির নিকৃষ্টেরও নিকৃষ্ট।’ নাউযুবিল্লাহ!
উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানা কারা? কি তাদের পরিচয়? এ সম্পর্কিত পবিত্র ইলম অর্জন করা সকলের জন্যই ফরয। আর এই ফরয ইলম অর্জন করতে হলে, মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ ও দৈনিক আল ইহসান শরীফ রীতিমত পাঠ করতে হবে। উল্লেখ্য, উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানাদেরকে না চিনার কারণেই সাধারণ মুসলমানরা তাদের ধোঁকায় পড়ে সম্মানিত ঈমান-আমল বিনষ্ট করে গুমরাহীতে নিমজ্জিত হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ!
সম্মানিত ঈমান-আমল হিফাযত করতে হলে উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানাদেরকে চিনতে ও চিহ্নিত করতে হবে, তাহলে মুসলমানরা তাদের ঈমান ও আমল হিফাযত করতে পারবে।
– ক্বওল শরীফ: সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানা কারা? কি তাদের পরিচয়? এ সম্পর্কিত পবিত্র ইলম অর্জন করা সকলের জন্যই ফরয। কেননা উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানাদেরকে না চিনার কারণেই সাধারণ মুসলমান তাদের ধোঁকায় পড়ে সম্মানিত ঈমান-আমল বিনষ্ট করে গুমরাহীতে নিমজ্জিত হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ!

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, বর্তমানে তাই দেখা যাচ্ছে, কিছু সংখ্যক তথাকথিত আলিম অর্থাৎ উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ীদেরকে না চিনার কারণে মুসলমানদের সম্মানিত ঈমান-আমল হুমকির সম্মুখীন। তাদের কারণে সাধারণ লোক মনে করে গণতন্ত্র মহাপবিত্র দ্বীন ইসলাম উনারই অংশ, নাঊযুবিল্লাহ! ছবি তোলা ভিডিও করা মহাসম্মানিত শরীয়ত-এ জায়িয, নাঊযুবিল্লাহ! হরতাল করা মহাসম্মানিত শরীয়ত-এ নিষিদ্ধ নয়, নাঊযুবিল্লাহ! টেলিভিশন দেখা ও টেলিভিশনে প্রোগ্রাম করা জায়িয, নাঊযুবিল্লাহ! খেলাধুলা করা জায়িয, নাঊযুবিল্লাহ! বেপর্দা হওয়া, নারী নেতৃত্ব মানা ইত্যাদি জায়িয।’ নাঊযুবিল্লাহ! কারণ উলামায়ে ‘সূ’রা অহরহ পেপার-পত্রিকায় নিজের ছবি ছাপাচ্ছে, নাঊযুবিল্লাহ! মহাপবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার নামে টিভি চ্যানেলে প্রোগ্রাম করছে। নাঊযুবিল্লাহ! মহাপবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার নামে গণতন্ত্র করছে, নাঊযুবিল্লাহ! হরতাল করছে, নাঊযুবিল্লাহ! নারী নেতৃত্ব মানছে, নাঊযুবিল্লাহ! বেপর্দা হচ্ছে, নাঊযুবিল্লাহ! খেলাধুলা করছে ও দেখছে। নাঊযুবিল্লাহ!

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, অথচ এগুলো সবই মহাসম্মানিত শরীয়ত উনার ফতওয়া মুতাবেক কাট্টা হারাম। কিন্তু তারা বিনা দ্বিধায় এ হারাম কাজগুলো করে যাচ্ছে আর সাধারণ মানুষকে গুমরাহ বা বিভ্রান্ত করছে। মূলত এরাই হলো উলামায়ে “সূ” বা ধর্মব্যবসায়ী অর্থাৎ নাহক্ব আলিম। এদের প্রসঙ্গে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “আমার উম্মতের মধ্যে যারা উলামায়ে ‘সূ’ তাদের জন্য আফ্সুস অর্থাৎ তারা জাহান্নামী। তারা পবিত্র ইলম উনাকে ব্যবসা হিসেবে গ্রহণ করতঃ তাদের যুগের শাসকদের নিকট (থেকে অর্থ ও পদ গ্রহণের বিনিময়ে) বিক্রি করবে নিজেদের ফায়দার জন্য। মহান আল্লাহ পাক উনার প্রিয়তম রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাললাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক! তিনি (যারা নিজেদের পবিত্র ইলম দ্বারা দুনিয়াবী সরকারের সাথে ব্যবসা করতে চায় অর্থাৎ উলামায়ে সূ’) তাদের ব্যবসায় বরকত দিবেন না।”

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, এ সকল উলামায়ে ‘সূ’ বা দুনিয়াদার তথা ধর্মব্যবাসায়ী মৌলবীদেরকে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে দাজ্জালে কাযযাব বা মিথ্যাবাদী দাজ্জাল বলে এদের থেকে উম্মতদেরকে দূরে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যেমন পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আখিরী যামানায় কিছু সংখ্যক মিথ্যাবাদী দাজ্জাল বের হবে, তারা তোমাদের নিকট এমনসব (মিথ্যা-মনগড়া) কথা উপস্থাপন করবে, যা তোমরা কখনো শুননি এবং তোমাদের বাপ-দাদারাও শুনেনি, সাবধান! তোমরা তাদের কাছ থেকে দূরে থাকবে এবং তাদেরকে তোমাদের থেকে দূরে রাখবে, তবে তারা তোমাদেরকে গুমরাহ করতে পারবে না এবং ফিতনায়ও ফেলতে পারবে না। (মুসলিম শরীফ)

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মূলকথা হলো- সম্মানিত ঈমান-আমল হিফাযত করতে হলে উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানা কারা? কি তাদের পরিচয়? এ সম্পর্কিত পবিত্র ইলম অর্জন করা সকলের জন্যই ফরয। আর এই ফরয ইলম অর্জন করতে হলে, মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ ও দৈনিক আল ইহসান শরীফ রীতিমত পাঠ করতে হবে। উল্লেখ্য, উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানাদেরকে না চিনার কারণেই সাধারণ মুসলমান তাদের ধোঁকায় পড়ে সম্মানিত ঈমান-আমল বিনষ্ট করে গুমরাহীতে নিমজ্জিত হচ্ছে। সম্মানিত ঈমান-আমল হিফাযত করতে হলে উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মালানাদেরকে চিনতে ও চিহ্নিত করতে হবে তাহলে মুসলমানরা তাদের ঈমান ও আমল হিফাযত করতে পারবে। ইনশাআল্লাহ!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে