সম্মানিত খিলাফত মুবারক।


পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের আলোকে খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনিই হচ্ছেন বর্তমানে বাংলাদেশসহ সমগ্র বিশ্বের চরম নির্যাতিত ও নিপীড়িত মানুষের একমাত্র ত্রাণকর্তা, মুক্তির দিশারী। সুবহানাল্লাহ!-ধারাবাহিক।
*********************************************************************
পূর্ব প্রকাশিতের পর —
*********************
খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার সম্মানিত কিতাব কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন –
كَم مِّن فِئَةٍ قَلِيلَةٍ غَلَبَتْ فِئَةً كَثِيرَةً بِإِذْنِ اللّهِ وَاللّهُ مَعَ الصَّابِرِينَ
অনেক লোকের মধ্যে কম সংখ্যক লোকই বিজয়ী হয়েছেন অধিকাংশের উপর মহান রব তায়ালা উনার সম্মানিত নির্দেশ মুবারকে, এবং আল্লাহ পাক ধৈর্যশীলদের সাথে রয়েছেন। সুবহানাল্লাহ। সম্মানিত সুরা বাক্বারা শরীফ উনার সম্মানিত আয়াত শরীফ ২৪৯।
 
অন্য বর্ণনায় এসেছে,
عَنْ حَضْرَتْ ثَوْبَانَ رَضِيَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى الله عَليْهِ وسَلَّمَ يُقْتَلُ عِنْدَ كَنْزِكُمْ هذَا ثَلاَثَةٌ كُلُّهُمُ ابْنُ خَلِيفَةٍ وَفِـىْ رِوَايَةٍ اُخْرٰى وُلْدُ خَلِيْفَةٍ ثُـمَّ لاَ يَصِيْرُ الْاَمْرُ اِلـٰى وَاحِدٍ مِنْهُمْ ثُـمَّ تَطْلُعُ الرَّايَاتُ السُّوْدُ مِنْ قِبَلِ الْـمَشْرِقِ فَيَقْتُلُونَكُمْ قَتْلاً لَـمْ يُقْتَلْهُ قَوْمٌ فَإِذَا رَاَيْتُمُوْهُ فَبَايِعُوْهُ وَلَوْ حَبْواً عَلَى الثّلْجِ فَإِنَّه خَلِيْفَةُ اللهِ الْـمَهْدِيُّ.
“হযরত ছাওবান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, যিনি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, )হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার প্রকাশ পাওয়ার পূর্বে) আপনাদের এই কেন্দ্রের নিকট তিনজন ব্যক্তি শহীদ হবেন। উনারা প্রত্যেকেই হবেন একজন মহান খলীফা আলাইহিস সালাম উনার আওলাদ বা সন্তান। অন্য বর্ণনায় এসেছে- وُلْدُ خَلِيْفَةٍ তথা উনারা প্রত্যেকেই হবেন একজন আখাচ্ছুল খাছ বিশেষ খলীফা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার মুবারক বংশধর। অতঃপর উনাদের একজনের নিকটও সম্মানিত খিলাফত মুবারক পৌঁছাবেন না তথা উনাদের সম্মানিত খিলাফত মুবারক স্থায়ী হবে না। তারপর পূর্বদেশ থেকে কালো পতাকা উত্তোলন করা হবে। অতঃপর তারা তোমাদেরকে এমনভাবে শহীদ করবে, যেমনটি ইতঃপূর্বে কোনো জাতি করেনি। অতঃপর তোমরা যখন উনাকে (হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম) দেখতে পাবে, তখন উনার মুবারক হাতে বাইয়াত গ্রহণ করবে, যদিও তোমাদেরকে বরফের উপর দিয়ে হামাগুড়ি দিয়ে যেতে হয়। কেননা তিনিই হচ্ছেন মহান আল্লাহ পাক উনার খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম।”
(বি.দ্র. এখানে এই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার শাব্দিক বা সরাসরি অর্থ দেয়া হলো। পরবর্তীতে ইনশাআল্লাহ আমরা এই পবিত্র হাদীছ শরীফ মুবারক উনার ব্যাখ্যামূলক আলোচনা করবো)
(বিদায়া-নিহায়া ৬ষ্ঠ খ- ২৪৬ পৃষ্ঠা, দালাইলুন নুবুওওয়াহ লিল বাইহাক্বী ৬ষ্ঠ খ- ৫১৫ পৃষ্ঠা, জামিউল আহাদীছ ৯ম খ- ৩৩৩ পৃষ্ঠা হাদীছ শরীফ নম্বর ২৮৬৫৮, তারিখে দিমাশক্ব আল কাবীর ৩২তম খ- ২৮১ নম্বর পৃষ্ঠা হাদীছ শরীফ নং ৬৬৭৯, খছাইছুল কুবরা লিস সুয়ূতী ২য় খ- ২০২ পৃষ্ঠা, ইযালাতুল খফা ১ম খ- ৬০৭ পৃষ্ঠা, নিহায়া ফিল ফিতান ২৬ নম্বর পৃষ্ঠা, মুসনাদে বায্যার ২য় খ- ১২০ পৃষ্ঠা, মুসনাদে রুইয়ানী ১ম খ- ২০৯ পৃষ্ঠা, মুস্তাদরকে হাকিম ৪র্থ খণ্ড ৪৬৩ পৃষ্ঠা, আস সুনানুল ওয়ারিদা ফিল ফিতান ৫ম খণ্ড ১০৩২ পৃষ্ঠা, আল ফাতহুল কাবীর লিস সুয়ূত্বী ৩য় খ- ৪০২ পৃষ্ঠা, আহকামুশ শরীয়াহ শরীয়াহ, মুছান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক, মুস্তাদরাকে হাকিম, ইবনে মাযাহ শরীফ ইত্যাদি) (ইনশাআল্লাহ চলবে)
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে