সম্মানিত শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে তো অবশ্যই; এমনকি সাংবিধানিকভাবেও পহেলা বৈশাখ ও (অ)মঙ্গল শোভাযাত্রা পালন করা হারাম


বাংলাদেশের সংবিধানের ৩ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রভাষা বাংলা। সে প্রেক্ষিতে দেশে ইংরেজি ভাষাসহ বিভিন্ন উপজাতীয় ভাষার ঊর্ধ্বে যেমন রাষ্ট্রভাষা বাংলার মর্যাদা ও প্রাধান্য; তেমনি সংবিধানের ২ নম্বর ধারায় বর্ণিত রাষ্ট্রদ্বীন পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার কথা স্বীকারের প্রেক্ষিতে অন্যান্য ধর্ম ও ধর্মাবলম্বীর উপরে পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও মুসলমান উনাদের মর্যাদা ও প্রাধান্য স্বীকৃত হওয়া আবশ্যক এবং পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও মুসলমান উনাদের প্রতি সরকারি পৃষ্ঠপোষকতাও অনেক বেশি হওয়া কর্তব্য। যা মূলত প্রচলিত সংবিধানেরই ব্যাখ্যা। তাহলে সাংবিধানিকভাবে রাষ্ট্রদ্বীন  পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে অন্য ধর্মের  যেমন পহেলা বৈশাখ, (অ)মঙ্গল শোভাযাত্রা ইত্যাদি উপর প্রাধান্যতা প্রয়োগে বিধর্মীদের যাবতীয় উৎসব পালন নিষিদ্ধ করতে হবে। কারণ পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে বিধর্মীদের সকল অনুষ্ঠান হারাম। অন্যদিকে সরকার এ ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে সংবিধান লংঘনের দায়ে অভিযুক্ত হবে। তাই সরকারের দায়িত্ব-কর্তব্য হচ্ছে বিধর্মীদের যাবতীয় হারাম অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করা।
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে