সম্রাট হুমায়ূন ছিলেন পরহেজগার মুসলমান, বিশিষ্ট বীর ও নিরপেক্ষ শাসক


সম্রাট বাবরের পুত্র হুমায়ুন,

একবার বিধবা হিন্দু রাণী কর্ণবর্তী তার শিশু পুত্রকে নিয়ে রাজ্য সামলাতে পারছিল না। ঠিক সেই সময় তাকে আক্রমণ করার প্রস্তুতি চলছিল। রাণী তখন কয়েক গাছি সূতোর বৃত্তাকার, যাকে রাখী বলা হয়, পাঠিয়েছিল সম্রাট হুমায়ুনকে আর লিখে পাঠিয়েছিল,
‘আমি আপনাকে ভাই হিসেবে এই রাখী পাঠালাম, আপনি হাতে পরবেন এবং আমাকে বোন হিসেবে ও আমার শিশুপুত্রকে ভাগ্নে হিসেবে সসৈন্য এসে রক্ষা করবেন’।
হিন্দু রাণীর সেই সূতো সম্রাট হুমায়ুন হাতে পরলেন এবং স্বয়ং একদল সৈন্য নিয়ে চললেন রানীর রাজ্য রক্ষা করতে। কিন্তু উনার পৌঁছাবার পূর্বেই রাণী ভয়ে ভীত হয়ে বিষপান করে দেহত্যাগ করেছিল। বাদশাহ হুমায়ুন সেই সংবাদে এত কেঁদেছিলেন যে হঠাৎ কেউ দেখলে অবাক না হয়ে পারতো না যে, একজন প্রাপ্তবয়স্ক বীর বাদশাহ পাতানো বোনের জন্য এমন শিশুর মতো কাঁদতে পারেন। আর ঠিক এই সুযোগেই শের শাহ শক্তি সঞ্চয় করে সম্রাট হুমায়ুনকে পরাস্ত করে দিল্লি ও আগ্রা দখল করেছিল।

কালক্রমে বিকৃত ইতিহাস এর আড়ালে চাপা পড়ছে প্রকৃত সত্য। গুজব যাই হোক, মূলত তিনি ছিলেন পরহেজগার মুসলমান, বিশিষ্ট বীর ও নিরপেক্ষ শাসক।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে