সরকারকে অবিলম্বে ইসলামবিরোধী এ শিক্ষানীতি পরিবর্তন করতে হবে।


শিক্ষা একটি জাতির জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ এবং স্পর্শকাতর বিষয়। শিক্ষানীতির সঙ্গে এদেশের ৯৯ ভাগ জনগোষ্ঠী মুসলমান উনাদের ভবিষ্যৎ জড়িত। এ কারণেই শিক্ষানীতি আইন প্রণয়নের সময় ব্যক্তি বা দলীয় চিন্তা ও দৃষ্টিভঙ্গির বিপরীতে এদেশের ৯৯ ভাগ জনগোষ্ঠী মুসলমান উনাদের চিন্তা চেতনা, আস্থা ও বিশ্বাসের আলোকে তা প্রণয়ন করা উচিত। বিশেষ করে ৯৯ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত এদেশে এমন কোনো নীতি বা আইন করা উচিত নয়; যা তাদের লালিত বিশ্বাস ও কৃষ্টি কালচারের পরিপন্থী। মুসলমান মাত্রই দুনিয়া এবং পরকালের কল্যাণ কামনা করে থাকে। আর সে কারণেই উভয় জগতের প্রয়োজন পূরণের লক্ষ্যেই শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা উচিত।

সরকারকে অবিলম্বে ইসলামবিরোধী এ শিক্ষানীতি পরিবর্তন করতে হবে। মুসলমানগণ উনাদের সাতন্ত্র্য রক্ষায় তাদের ঈমানী আক্বীদা ও আমলের চেতনা বিকাশের প্রেক্ষিতে শিক্ষানীতি বাস্তবায়ন করতে হবে ।
বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ওয়াদা- ‘পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না’। কিন্তু বাস্তবে বলা চলে- বর্তমান শিক্ষানীতি তথা পাঠ্যক্রমের পুরোটাই পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী। কাজেই সরকারকে তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি রক্ষার্থে বর্তমান শিক্ষানীতির সংশোধন করতে হবে।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে