সাইয়্যিদাতুন নিসা আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার কতিপয় ছিফতী নাম মুবারক


আরবী মাসসমূহের ষষ্ঠ মাস হচ্ছে “জুমাদাল উখরা।” ‘জুমাদা’ শব্দটি মুয়ান্নাছ (স্ত্রী লিঙ্গ) তার অর্থ ‘জমাট পানি’ বা ‘বরফ।’ সে হিসেবে তার পরে “উখরা” শব্দটিও ‘আখির’ শব্দ থেকে মুয়ান্নাছ এবং উনার অর্থ শেষ।
বিশুদ্ধ মতে, আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত প্রকাশের প্রায় তিন বৎসর পূর্বে ২০শে জুমাদাল উখরা তারিখ মুসলিম জাহানের শিরোমণি খাতূনে জান্নাত সাইয়্যিদাতুন নিসা আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশের দিন। তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সর্বকনিষ্ঠা বানাত ছিলেন। উনার সম্মানিতা মাতা হলেন ত্বইয়িবা, ত্বাহিরা, উম্মুল মু’মিনীন, আল উলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!
নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি স্বয়ং উনার এই উত্তম বানাত উনার নাম মুবারক রাখেন ফাতিমা। এটি উনার মূল নাম মুবারক। এছাড়াও আরো কয়েকটি লক্বব বা গুণবাচক নাম মুবারক-এ তিনি পরিচিত হয়ে আছেন। যেমন- সাইয়্যিদা, ত্বাহিরাহ, যাহরা, যাকিয়াহ, রদ্বিয়াহ, মারদ্বিয়াহ, উম্মু আবীহা ও বাতূল। সুবহানাল্লাহ!
“সাইয়্যিদা” অর্থ শ্রেষ্ঠা। তিনি এ মুবারক লক্ববে ভূষিত হয়েছিলেন এ কারণে যে, ‘তিনি দুনিয়ায় যেমন নারীদের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্বের অধিকারিণী তেমনি বেহেশতেও হবেন নারীকুলের সাইয়্যিদা।’ সুবহানাল্লাহ!
“ত্বাহিরাহ”- ত্বাহিরাহ অর্থ পবিত্রা। এ লক্বব মুবারকটি বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ উভয় প্রকার পবিত্রতার সাথে সম্পর্কযুক্ত। এ লক্বব মুবারকটি দেয়ার একটা কারণ হলো এই যে, মহিলাদের সন্তান হওয়ার পর নামায তরক করতে হয়। কিন্তু উনার ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ বিপরীত। আছরের নামায পড়ার পরই উনার সম্মানিত সন্তান মুবারক উনারা পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। অতঃপর মাগরিব থেকে যথারীতি তিনি নামায আদায় করেন। অর্থাৎ উনার এক ওয়াক্ত নামাযও তরক হয়নি। সুবহানাল্লাহ!
“যাহ্রাহ”- অর্থ কুসুুম কলি বা ফুল। বাস্তবিক পক্ষে তিনি একটি অনুপম সুন্দর সুরভিত কুসুম কলির মতোই রূপে-গুণে সুষমাম-িত ছিলেন। সুবহানাল্লাহ!
“যাকিয়াহ”- অর্থ বুদ্ধিমতি, প্রখর মেধার অধিকারিণী। লক্বব মুবারকটি দেয়া হয়েছিল এ জন্য যে, তিনি কোনো বিষয় শোনা মাত্রই তা আয়ত্ত করে ফেলতেন। সুবহানাল্লাহ!
“রদ্বিয়াহ”- অর্থ সন্তুষ্ট। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে সুখে-দুঃখে, বিপদে-আপদে অবিচলভাবে তিনি ছিলেন পরিপূর্ণভাবে মহান আল্লাহ পাক উনার ইচ্ছা ও সন্তুষ্টির উপর পূর্ণ নির্ভরশীল। সুবহানাল্লাহ!
“মারদ্বিয়াহ”- অর্থ সন্তুষ্টিপ্রাপ্তা। এ লক্বব মুবারকটি এজন্য যে, তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি লাভে ধন্য হয়েছিলেন। সুবহানাল্লাহ!
“বাতূল”- অর্থ ভোগ- লিপ্সা বর্জনকারিণী। উনার এ মুবারক লক্ববটি হয়েছিল এ কারণে যে, তিনি পার্থিব ভোগ-লিপ্সা ইত্যাদি সবকিছুই একেবারে বর্জন করেছিলেন। সুবহানাল্লাহ!
উনার সম্পর্কে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত আছে, “সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ আন নূরুর রবি’য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি বেহেশতবাসিনী মেয়ে উনাদের সাইয়্যিদা।” সুবহানাল্লাহ!
অতএব, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ আন নূরুর রবি‘য়াহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি যে নারী জগতের এক বিস্ময়কর আদর্শ এবং সমগ্র নারীকুলের ঊর্ধ্বে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। শুধু ইহজগতেই নয়, পরজগতেও তিনি হবেন বেহেশতবাসিনী মেয়েগণের সাইয়্যিদা।

Views All Time
2
Views Today
4
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে