সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার সম্মানার্থে পোষ্ট নং-০৩ (‘নওরোজ’ বা নববর্ষ ও ‘মিহিরজান’ নামক ২টি কুফরী দিবস বাতিল করে মুসলমানদের জন্য ইয়াওমুল আদ্বহা ও ইয়াওমুল ফিতরের ঘোষণা)


Saiyidul Aiyaad sharee003f

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে-
عَنْ حَضْرَتْ اَنَسٍ رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ قَالَ قَدِمَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْمَدِينَةَ وَلَـهُمْ يَوْمَانِ يَلْعَبُوْنَ فِيْهِمَا فَقَالَ‏ مَا هٰذَانِ الْيَوْمَانِ‏،‏ قَالُوا كُنَّا نَلْعَبُ فِيْهِمَا فِي الْـجَاهِلِيَّةِ،‏ فَقَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اِنَّ اللهَ قَدْ اَبْدَلَكُمْ بِـهِمَا خَيْرًا مِنْهُمَا يَوْمَ الْاَضْحٰى وَيَوْمَ الْفِطْرِ‏.‏
অর্থ : “হযরত আনাস বিন মালিক রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে তাশরীফ মুবারক নিয়ে দেখতে পেলেন সম্মানিত মদীনা শরীফ উনার অধিবাসীরা দু’দিন খেলাধুলা করেন। তখন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, এ দু’টি দিন কি? উনারা বলেন, আমরা এ দু’দিন জাহিলি যুগ থেকেই খেলাধুলা করে আসছি। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি এই দু’দিনের পরিবর্তে তার চেয়ে উত্তম দু’টি দিন দিয়েছেন- ঈদুল আদ্বহা ও ঈদুল ফিতর।” (আবূ দাঊদ শরীফ : হাদীছ শরীফ নং ১১৩৪, মুসনাদে আহমদ শরীফ : হাদীছ শরীফ নং ১৩২১০, মুস্তাদরাক লি হাকিম শরীফ : হাদীছ শরীফ নং ১১২৪)
উপরোক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ খানা দ্বারা যে দুটি কুফরী দিবস বাতিল ঘোষণা করা হয় তাহলো-
(১) ‘নওরোজ’ বা নববর্ষ। অর্থাৎ বছরের প্রথম দিন এবং (২) ‘মিহিরজান’।
এই দুটি দিবস সম্পর্কে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে-
عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عَمْرٍو رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ عَنِ النَّبِيّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ مَنْ تَنَافٰى اَرْضَ الْاَعَاجِمِ فَصَنَعَ نَيْرُوزَهُمْ وَمَهْرِجَانِـهِمْ حُشِرَ مَعَهُمْ.
অর্থ : “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যে অনারব দেশ বিচরণ করে, অতঃপর তাদের নওরোজ ও মিহিরজান উদযাপন করে, তাদের সাথে তাকে হাশরে উঠানো হবে।” (সুনানে বায়হাক্বী শরীফ ২য় খ-, ৩২৫ পৃষ্ঠা)

উপরোক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ দ্বারা প্রমাণিত হলো যে, নওরোজ ও মিহিরজান নামক দু’টি কুফরী দিবসের পরিবর্তে মুসলমানদের জন্য দুই বিশেষ দিন- ঈদুল আদ্বহা ও ঈদুল ফিতর প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু উক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে এ কথা উল্লেখ করেননি যে, উক্ত দুইটি বিশেষ দিবস ছাড়া আর কোন বিশেষ দিবস নেই।
আরো স্মরণীয় যে, ঈদুল আদ্বহা ও ঈদুল ফিতর এই দুইটি দিবসকে কুফরী দিবসের পরিবর্তে মুসলমানদের প্রদান করা হলেও প্রাথমিক অবস্থাতেই এই দুইটি বিশেষ দিবসকে ঈদের দিন ঘোষণা করা হয়নি। বরং পরবর্তীতে ঈদের দিন ঘোষণা করা হয়েছে। কেননা পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বলা হয়েছে-
يَوْمَ الَاضْحٰى وَيَوْمَ الْفِطْرِ
অর্থাৎ আদ্বহার দিবস ও ফিতরের দিবস।

এই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আদ্বহার দিবস ও ফিতরের দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। আর এই দুটি দিবস যে ঈদের দিন সেটা পরে ঘোষিত হয়েছে। তাই দু’ঈদ ব্যতীত সব ঈদ বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে বলাই মূর্খতার পরিচায়ক।

মহান আল্লাহ পাক তিনি মানবজাতির প্রতি আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করা তথা সাইয়্যিদুল আইয়াদ পালন করাকে ফরয করে দিয়েছেন। আর এ মুবারক নির্দেশ পালনার্থেই সমস্ত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালামগণ, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ এবং হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিমগণ উনারা সারাজীবন আখিরী নবী, হাবীবুল্লাহ , নূরে মুজাসসাম, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তথা সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ পালন করেছেন।

ঈদ শব্দ উনার শাব্দিক অর্থ খুশি। আর আ’ইয়াদ হলো ঈদ শব্দ উনার বহুবচন। যেহেতু নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ , হুযূরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শানে খুশি প্রকাশ করাটা সকল খুশির চেয়ে উত্তম ও শ্রেষ্ঠ সে কারনে পবিত্র ঈদে মীলাদুন্নবী হলো সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ।

 
অনুগ্রহ করে ভিজিট করুনঃ

My fb page-www.facebook.com/CyberMark13
My fb Live Grop-www.facebook.com/groups/CMLGroup

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে