সাইয়্যিদুল আসইয়াদ, সাইয়্যিদুশ শুহূর, শাহরুল আ’যম মহাপবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফ মাস যথাযথভাবে পালন করার জন্য যাবতীয় আঞ্জাম দেয়া সকল মুসলমানদের দায়িত্ব-কর্তব্য


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাই ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমাদের কেউ ততক্ষণ পর্যন্ত মু’মিনে কামিল হতে পারবে না; যতক্ষণ পর্যন্ত না তার পিতা-মাতা, সন্তান-সন্ততি এবং অন্যান্য সকল মানুষ অপেক্ষা আমাকে বেশি মুহব্বত করবে”।
সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ, সাইয়্যিদে ঈদে আ’যম, সাইয়্যিদে ঈদে আকবর, পবিত্র ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হলেন সমস্ত কায়িনাতের হাক্বীক্বী ঈদ। কারণ এদিন মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এ যমীনে তাশরীফ মুবারক আনেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হলেন সৃষ্টির মূল, যিনি সারা জাহানের জন্য রহমত, যাঁকে সৃষ্টি না করলে মহান আল্লাহ পাক্ তিনি কোনো কিছুই সৃষ্টি করতেন না। অর্থাৎ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যদি পৃথিবীতে না আসতেন, তাহলে এ সুন্দর পৃথিবী ও মাখলুকাত কিছুই হতো না। এমনকি আপাতভাবে আমারা যেদিনগুলোকে সবচেয়ে বেশি খুশির দিন হিসাবে মনে করি এবং ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালন করি সেদিনগুলোরও সৃষ্টি হতো না। অর্থাৎ পবিত্র ঈদুল ফিতর, পবিত্র ঈদুল আযহা, পবিত্র শবে বরাত, পবিত্র শবে ক্বদর উনাদেরও সৃষ্টি হতো না। যেহেতু মহাপবিত্র শাহরুল আ’যম শরীফ মাস বিশেষভাবে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে সম্পৃক্ত, তাই এই মাস যথাযথভাবে পালন করার জন্য মুবারক খিদমতের আঞ্জাম দেয়া সকল মুসলমানদের দায়িত্ব-কর্তব্য।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে