সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।
*********************************************************************
যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনি উনার সম্মানিত কিতাব কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন।
وَمَا كَانَ لِمُؤْمِنٍ وَلَا مُؤْمِنَةٍ إِذَا قَضَى اللَّهُ وَرَسُولُهُ أَمْرًا أَن يَكُونَ لَهُمُ الْخِيَرَةُ مِنْ أَمْرِهِمْ وَمَن يَعْصِ اللَّهَ وَرَسُولَهُ فَقَدْ ضَلَّ ضَلَالًا مُّبِينًا
মহান রব তায়ালা ও রসুল সাইয়্যিদুল মুরসালীন ইমামুল মুরসালীন খাতামুন্যাবিয়্যিন নুরে মুজাসসাম হাবিবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনারা কোন কাজের যখন আদেশ মুবারক করেন, কোন ঈমানদার পুরুষ ও ঈমানদার নারীর সে বিষয়ে ভিন্ন ক্ষমতা নেই যে, আল্লাহ পাক ও উনার হাবীব সাইয়্যিদুল মুরসালীন ইমামুল মুরসালীন খাতামুন্যাবিয়্যিন নুরে মুজাসসাম হাবিবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনাদের আদেশ অমান্য করে সে প্রকাশ্য পথভ্রষ্টতায় পতিত হয় বা হবে।সম্মানিত সূরা আল আহযাব শরীফ, সম্মানিত আয়াত শরীফ ৩৬।
 
পূর্ব প্রকাশিতের পর —
*****************
আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আনুষ্ঠানিকভাবে নুবুওওয়াত প্রকাশ ও এতদসম্পর্কিত মু’জিযা শরীফ
 
অন্য বর্ণনায় এসেছে-
اخرج حضرت البيهقى رحمة الله عليه، و حضرت أبو نعيم رحمة الله عليه من طريق حضرت موسى بن عقبة رحمة الله عليه، عن حضرت ابن شهاب رحمة الله عليه قال بلغنا ان اول ما رأى النبى صلى الله عليه وسلم ان الله أراه رؤيا فى المنام فشق ذلك عليه فذكرها لخديجة عليها السلام، فقالت ابشر فان الله لن يصنع بك إلا خيرا ثم انه خرج من عندها، ثم رجع اليها فأخبرها انه رأى بطنه شق، ثم طهر وغسل ثم أعيد كما كان، قالت هذا والله خير فابشر ثم استعلن له جبرئيل عليه السلام وهو بأعلى مكة فأجلسه على مجلس كريم معجب كان النبى صلى الله عليه وسلم يقول أجلسنى على بساط كهيئة الدرنوك فيه الياقوت واللؤلؤ فبشره رسالة الله حتى اطمأن النبى صلى الله عليه وسلم، ثم قال له (اقرأ) فقال كيف اقرأ؟ فقال (اقرأ باسم ربك الذى خلق) إلى قوله (ما لم يعلم)- فقبل الرسول رسالة ربه وانصرف،
অর্থ: “হযরত ইমাম বাইহাক্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি ও হযরত আবূ নায়ীম রহমতুল্লাহি আলাইহি উনারা হযরত মূসা ইবনে উক্ববা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে, তিনি হযরত ইবনে শিহাব যুহরী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, আমরা জানতে পেরেছি যে, মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সর্বপ্রথম আনুষ্ঠানিকভাবে যা দেখেছিলেন তা ছিলো নিদ্রাবস্থায় মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে একটি স্বপ্ন মুবারক। যার মধ্যে বিন্দুমাত্র সংশয় বা সন্দেহের অবকাশ ছিলো না। অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার প্রিয়তম হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে এক সুমহান স্বপ্ন মুবারক দেখান। আর সেই স্বপ্ন মুবারক উনার জন্য মহান আল্লাহ পাক উনার সঙ্গে নিগুঢ় মুহব্বতের বহিঃপ্রকাশ। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সেই স্বপ্ন মুবারক এর কথা স্বীয় আহলিয়া সাইয়্যিদাতুনা হযরত খাদীজাতুল কুবরা আলাইহাস সালাম উনাকে অবহিত করেন। সবকিছু শুনে সাইয়্যিদাতুনা হযরত খাদীজাতুল কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি বললেন, আপনার জন্য সুসংবাদ। নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি আপনার সঙ্গে খুবই উত্তম ব্যবহার করেছেন এবং করবেন; অনন্তকাল ধরে করতেই থাকবেন। সুবহানাল্লাহ!
অতঃপর নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত খাদীজাতুল কুবরা আলাইহাস সালাম উনার নিকট থেকে অর্থাৎ হুজরা শরীফ থেকে বের হলেন। কিছুক্ষণ পর মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পুনরায় সাইয়্যিদাতুনা হযরত খাদীজাতুল কুবরা আলাইহাস সালাম উনার হুজরা শরীফ-এ প্রবেশ করলেন এবং উনাকে সংবাদ দিলেন যে, নিশ্চয়ই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি দেখেছেন উনার ছিনা মুবারক চাক বা বিদীর্ণ করা হলো অতঃপর উনার তথা আমার ক্বলব মুবারক এর পবিত্রা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হলো গোসল মুবারক-এর মাধ্যমে। তারপর আমার ক্বলব মুবারক যথাস্থানে রেখে দেয়া হলো। সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাক উনার ক্বসম! আপনার ছিনা মুবারক চাক হচ্ছে, এক সুমহান খাইর বা বেমেছাল কল্যাণময়। আর আপনি এ ব্যাপারে সুসংবাদ গ্রহণ করুন।
এরপর হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম তিনি স্বীয় ছুরত মুবারক নিয়ে আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খিদমতে আগমন করলেন। মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি তখন পবিত্র মক্কা শরীফ-এর উপরিভাগে অবস্থান করছিলেন। হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম তিনি এসে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে এমন এক সুমহান ও সম্মানিত আসনে বসালেন, যা ছিলো খুবই আশ্চর্যজনক। আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম তিনি আমাকে এমন এক দুধের ফেনার ন্যায় শ্বেত শুভ্র ফরাশে বসালেন, যাতে ইয়াকুত ও লু’লু’ বা মতি জড়ানো ছিলো। ফরাশে বসানোর পর হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম তিনি আমাকে আনুষ্ঠানিকভাবে নুবুওওয়াত শরীফ-এর সুসংবাদ অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে রিসালতের ঘোষণা করলেন।
তখন মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইতমিনান বা প্রশান্তি লাভ করলেন। অতঃপর হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম তিনি বললেন, হে আমার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি পাঠ করুন। জাওয়াবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, আমি তো আপনার কথায় পাঠ করতে পারবো না। তখন হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম তিনি বললেন, আপনি অনুগ্রহ করে পাঠ করুন।”
اقرا باسم ربك الذى خلق- خلق الانسان من علق- اقرا وربك الاكرم- الذى علم بالقلم- علم الانسان مالم يعلم-
অর্থ: “আপনার রব উনার নাম মুবারকে পাঠ করুন যিনি সৃষ্টি করেছেন। তিনি মানুষকে সৃষ্টি করেছেন আলাক থেকে। পাঠ করুন (আপনার রব উনার নাম মুবারকে) কারণ আপনার রব সম্মানিত, দাতা, দয়ালু, অনুগ্রহশীল। যিনি শিক্ষা দিয়েছেন কলম বা লিখনি দ্বারা। মানুষকে শিক্ষা দিয়েছেন যা তারা জানতো না। (সূরা আলাক্ব : আয়াত শরীফ ১-৫)
অতঃপর নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আপন রব মাশুকে মাওলা মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে রিসালত কবুল করে চলে এলেন।
(ইনশাআল্লাহ চলবে)
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে