সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাহম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাহম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।
***********************************************************************
পূর্ব প্রকাশিতের পর—
******************
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন-
لـم ازل انقل من اصلاب الطاهرين الى ارحام الطاهرات.
অর্থ : “আমি সর্বদা পূত-পবিত্র নারী ও পুরুষ উনাদের মাধ্যমেই স্থানান্তরিত হয়েছি।” সুবহানাল্লাহ! (তাফসীরে কবীর শরীফ- ১৩/৩৯)
তিনি আরো বলেন-
لـم يلتق ابوى قط على سفاح.
অর্থ : “আমার পিতা-মাতা (পূর্বপুরুষ) কেউই কখনও কোন অন্যায় ও অশ্লীল কাজে জড়িত হননি।” (কানযুল উম্মাল শরীফ, ইবনে আসাকীর বারাহিনে কাতিয়া)- সুবহানাল্লাহ।
 
আখিরী রসূল,সাইয়্যিদুল মুরসালীন ইমামুল মুরসালীন খাতামুন্যাবিয়্যিন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আনুষ্ঠানিকভাবে নুবুওওয়াত প্রকাশ ও এতদসম্পর্কিত মু’জিযা শরীফ:
 
সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে সাইয়্যিদুল মুরসালীন ইমামুল মুরসালীন খাতামুন্যাবিয়্যিন হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ মুবারক করেন,
أخرج حضرت الطيالسى رحمة الله عليه و حضرت الترمذى رحمة الله عليه و حضرت البيهقى رحمة الله عليه، عن حضرت جابر بن سمرة رضى الله تعالى عنه ان رسول الله صلى الله عليه قال إن بمكة لحجرا- كان يسلم على ليالى بعثت أنى لأعرفه إذا مررت عليه- وأخرجه مسلم بلفظ إنى لأعرف بمكة حجرا كان يسلم على قبل ان أبعث أنى لأعرفه الان.
অর্থ: “হযরত তায়ালিসী রহমতুল্লাহি আলাইহি, হযরত তিরমিযী রহমতুল্লাহি আলাইহি ও হযরত বায়হাক্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনারা হযরত জাবির ইবনে সামুরা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণনা করেন যে, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবীইয়ীন,নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন- নিশ্চয়ই পবিত্র মক্কা শরীফ-এ আমার আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত শরীফ প্রকাশ পায়, সে রাত্রি মুবারকে একটি পাথর আমাকে সালাম করেছিলো। এখনও আমি সেটির নিকট দিয়ে গমন করলে বিলক্ষণ চিনতে পারি।”
ছহীহ মুসলিম শরীফ-এর রেওয়ায়েতেও এভাবে বর্ণনা রয়েছে, আমি মক্কা শরীফ-এর সেই পাথরটিকে চিহ্নিত করতে পারি, যে আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত শরীফ-এর পূর্বে আমাকে সালাম করত। আমি এখনও তাকে চিনি। (খছায়িছুল কুবরা ১ম জিলদ ১৬৫ পৃষ্ঠা)
 
(ইনশাআল্লাহ চলবে)
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে