সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।
***********************************************************************
পূর্ব প্রকাশিতের পর —
**********************
খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার সম্মানিত কিতাব কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন -
 
إِنَّ الَّذِينَ يُؤْذُونَ اللَّهَ وَرَسُولَهُ لَعَنَهُمُ اللَّهُ فِي الدُّنْيَا وَالْآخِرَةِ وَأَعَدَّ لَهُمْ عَذَابًا مُّهِينًا
যারা খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক ও উনার রসূল সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে কষ্ট দেয়, আল্লাহ পাক তাদের প্রতি ইহকালে ও পরকালে অভিসম্পাত করেন এবং তাদের জন্যে প্রস্তুত রেখেছেন অবমাননাকর শাস্তি। সূরা আল আহযাব শরীফ, আয়াত শরীফ ৫৭।
 
আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আনুষ্ঠানিকভাবে নুবুওওয়াত প্রকাশ ও এতদসম্পর্কিত মু’জিযা শরীফ
 
……. فوثب الحبر ونزل رداؤه وقال ذبحت يهود، وقتلت يهود. قال حضرت العباس رضى الله تعالى عنه فلما رجعنا الى منزلنا، قال حضرت أبو سفيان رضى الله تعالى عنه يا أبا الفضل إن اليهود تفزع من ابن أخيك، قلت قد رأيت مارأيت، فهل لك يا حضرت أبا سفيان رضى الله تعالى عنه ان تؤمن به، فان كان حقا كنت قد سبقت وان كان باطلا فمعك غيرك من اكفائك؟ قال لا أؤمن به حتى أرى الخيل فى كداء، قلت ماتقول؟ قال كلمة جاءت على فمى الا انى اعلم أن الله لا يترك خيلا تطلع من كداء. قال حضرت العباس رضى الله تعالى عنه فلما استفتح رسول الله صلى الله عليه وسلم مكة ونظرنا الى الخيل وقد طلعت من كداء، قلت يا حضرت أبا سفيان رضى الله تعالى عنه تذكر الكلمة؟ قال اى والله إنى
لذاكرها فالحمد لله الذى هدانى للاسلام.
 
……….এসব তথ্য শুনে ইহুদী আলিম লাফিয়ে উঠলো। তবে তার শরীরের চাদর খসে পড়ে। সে বলল, ইহুদীরা জবাই হয়ে গেছে। ইহুদীরা খুন হয়ে গেছে। সাইয়্যিদুনা হযরত আব্বাস আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, তারপর আমরা যখন বাড়ি ফিরে আসি তখন হযরত আবূ সুফিয়ান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বললেন, আবুল ফদ্বল! ইহুদীরা তো আপনার ভাতিজার নাম মুবারক শুনে আঁতকে উঠে। আমি বললাম, আপনি তো যা দেখার তাই দেখেছেন। আমিও তাই দেখছি। আচ্ছা উনার প্রতি ঈমান আনতে আপনার অসুবিধা কোথায়? হে হযরত আবূ সুফিয়ান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু! তিনি যদি হক্ব হয়ে থাকেন তাহলে আপনি সকলের আগে ভাগে উনার প্রতি ঈমান এনে ফেলবেন। আর যদি তিনি নাহক্ব হয়ে থাকেন, তাহলে মনে করবেন আপনার সমমর্যাদার আর দশজন যা করলো, আপনি তাই করলেন! হযরত আবূ সুফিয়ান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বললেন, আমি উনার প্রতি ঈমান আনবো না যতক্ষণ না আমি কোদায় ঘোড় সাওয়ার বাহিনী দেখবো। আমি বললাম, আপনি কী বলছেন? তিনি বললেন, মুখে একটি কথা এসে গেলো তাই বললাম। অন্যথায় আমি জানি, কোদা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য মহান আল্লাহ পাক উনার কোনো ঘোড় সাওয়ার বাহিনী ছেড়ে দেবেন না।
সাইয়্যিদুনা হযরত আব্বাস আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, যখন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মক্কা শরীফ বিজয়ের জন্য আসলেন এবং আমরা কোদা থেকে উনার ঘোড় সাওয়ার বাহিনী বেরিয়ে আসছে দেখতে পাই তখন আমি হযরত আবূ সুফিয়ান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে জিজ্ঞেস করলাম, হে আবূ সুফিয়ান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু! কথাটি কী এখন আপনার মনে পড়ছে? হযরত আবূ সুফিয়ান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বললেন, মহান আল্লাহ পাক উনার ক্বসম! মনে পড়ছে কি? আমি হামদ বা প্রশংসা করছি সেই মহান আল্লাহ পাক উনার, যিনি আমাকে ইসলামের পথ দেখিয়েছেন। (আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া ২য় জিলদ ৩১৮ ও ৩১৯ পৃষ্ঠা)
(ইনশাআল্লাহ চলবে)
 
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে