সাবধান ! আপনার শিশু আগামী ১ সপ্তাহ স্কুলে গিয়ে কি ঔষধ খাচ্ছে তার খবর নিন।


কারণ আগামীকাল থেকে ১ সপ্তাহ স্কুলগুলোতে কৃমিসপ্তাহ উপলক্ষে ৪ কোটি ৬ লক্ষ শিশুকে ফ্রি কৃমির ওষুধ খাওয়ানো হবে।(https://bit.ly/2E9DY5U) বিদেশী এনজিওদের দেয়া এসব ফ্রি ওষুধ যাচাই না করে ঠেলে দেয়া হচ্ছে আপনার বাচ্চার মুখে।

উল্লেখ্য ২০১৬ সালে এই কৃমির ওষধ খেয়ে হাজার হাজার শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলো। দেখতে পারেন

১) অনুদানে পাওয়া কৃমিনাশক খেয়ে হাজার হাজার শিশু হাসপাতালে : http://bit.ly/2lG5lka

২) কৃমি নাশক ট্যাবলেট খেয়ে প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী অসুস্থ : http://bit.ly/2z6iAOe,

৩) ঝিনাইদহে কৃমি নাশক ট্যাবলেট খেয়ে পাচ শতাধিক শিক্ষার্থী হাসপাতালে : https://bit.ly/2iVtwKh

মূলত : এসব ফ্রি প্রোগ্রামিং এর আড়ালে সম্রাজ্যবাদীরা তৃতীয় বিশ্বের জনগণের শরীরকে গিনিপিগ বানিয়ে বিভিন্ন ঔষধের পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালায়। এই পরীক্ষা-নিরীক্ষার সময় বিষক্রিয়ার ঘটনা ঘটতে পারে।

আবার অনেক সময় সম্রাজ্যবাদীরা সময় এসব ফ্রি ঔষধের মাধ্যমে জীবাণু অস্ত্রেরও পরীক্ষা চালায়। সেই ক্ষতিকারণ জীবাণুর বিষক্রিয়ায় এমনটা ঘটতে পারে। দ্য টাইমস পত্রিকায় ১১ই মে ১৯৮৭ সালে একটি রিপোর্ট—

“বিশ্ব পোলিও নির্মূলকর্মসূচিতে (যা পরিচালিত হয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ, রোটারিইন্টারন্যাশনাল এবং সেন্টারস অব ডিজিজ কন্ট্রোল) আফ্রিকার ২২ দেশের ৭৪মিলিয়ন মানুষকে ভ্যাকসিন দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু উক্ত ভ্যাকসিন নিয়ে বিতর্ক দেখা দিলে তা পরীক্ষার জন্য নেয়া হয় নাইজেরিয়ার পরীক্ষাগারে।সেই সময় গবেষণায় রেরিয়ে আসে ভয়ঙ্কর এক ফলাফল। ল্যাবরেটরি টেস্টে দেখা যায়, ওই পোলিও ভ্যাকসিনে এস্ট্রোজেন সহ অন্যান্য নারী হরমোন বিদ্যমান, যা ব্যবহারে পুরুষের বন্ধ্যাত্ব সৃষ্টি করবে।”

এগুলো অবশ্য এমনি এমনি সম্ভব হয় না। দুর্নীতিগ্রস্ত বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগকে টাকা দিয়ে এসব ওষধ প্রবেশ করানো হয়। আর সামান্য টাকার লোভে সরকারী কর্মকর্তারা কোটি কোটি শিশুকে ঠেলে দেয় ক্ষতির মুখে। আফ্রিকার রাষ্ট্রগুলোতে ফ্রি-ঔষধের নামে জীবাণু অস্ত্রের কার্যক্রমের কারণে আজ এইডস, ইবোলা, বার্ড-ফ্লু গণহারে ছড়িয়ে পড়েছে।

collected…………..

আপনারা আপনাদের আদরের সন্তান, আত্মীয় স্বজন, বন্ধু-বান্ধবের সন্তানদের সচেতন করুন। তারা যেন আগামী এক সপ্তাহ স্কুলে গিয়ে কোন ধরনের ঔষধ না খায়। খেয়াল রাখবেন, স্কুলে স্কুলে শিক্ষকরা জোর করে বলবে ওষুধ খেতে, বন্ধু-বান্ধবিরা বলবে- “চল দোস্ত, আমি খাচ্ছি তুইও খা। সমস্যা

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে