সুমহান বরকতময় আযীমুশ্শান ২০শে জুমাদাল উখরা শরীফ।


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি মহিলাগণ উনাদের সাইয়্যিদাহ।’ সুমহান বরকতময় আযীমুশ্শান ২০শে জুমাদাল উখরা শরীফ। সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করার বরকতময় দিন। যেদিনটি সকলের জন্য সুমহান ঈদ বা খুশির দিন। পবিত্র ২০ জুমাদাল উখরা শরীফ যা এবছরের জন্য ৩১ আশির ১৩৮৩ শামসী, ৩০ মার্চ ২০১৬ ঈসায়ী ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার। তাই প্রত্যেকের জন্য ফরয হচ্ছে, উনার পবিত্র সাওয়ানেহে উমরী বা জীবনী মুবারক জানা, উনাকে মুহব্বত ও অনুসরণ-অনুকরণ করা। বিশেষ করে সমস্ত মহিলাদের জন্য ফরয হলো, উনাকে সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম ও পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে অনুসরণ-অনুকরণ করা। আর সরকারের জন্যও ফরয হচ্ছে- মাহফিলসমূহের সার্বিক আনজাম দেয়ার সাথে সাথে উনার পবিত্র জীবনী মুবারক শিশুশ্রেণী থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ শ্রেণী পর্যন্ত সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সিলেবাসের অন্তর্ভুক্ত করা এবং উক্ত দিবসে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা। যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি বিশ্বের সকল মহিলাদের সাইয়্যিদাহ, তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার লখতে জিগার, হযরত ইমামুছ ছানী আলাইহিস সালাম ও হযরত ইমামছ ছালিছ আলাইহিস সালাম উনাদের সম্মানিতা মাতা, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার গোশত মুবারক উনার টুকরা মুবারক এবং সর্বপ্রথম উম্মুল মু’মিনীন হযরত খাদীজাতুল কুবরা আলাইহাস সালাম উনার ৭ জন আওলাদ উনাদের মধ্যে তিনি হলেন ৭ম। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি আনুষ্ঠানিক নুবুওয়াত প্রকাশের ৩ বৎসর পূর্বে ২০ জুমাদাল উখরা শরীফ, ইয়াওমুল জুমুয়াহ বা জুমুয়াবার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। তখন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দুনিয়াবী বয়স মুবারক ছিল ৩৭ বৎসর। যেমনিভাবে আবনাউ নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের কেউ জীবিত থাকেননি, তদ্রƒপ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার থেকে ব্যতীত অন্য কোনো বানাতু রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের থেকে কোনো বংশীয় ধারা জারি নেই। কেবল সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বংশ মুবারক উনার মুবারক ধারা চালু হয়েছে ও চালু রয়েছে। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, অল্প বয়স মুবারক হতেই তিনি সম্মানিত পিতা উনার খিদমত মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যখন তায়েফ গমন করেন তখন সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি পবিত্র মক্কা শরীফ-এ ছিলেন। তায়েফ হতে তিনি দুশমনদের আঘাতে আঘাতপ্রাপ্ত অবস্থায় ফিরে আসেন। সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি তখনো উনার সেবা শ্মশ্রƒষা করেন। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পবিত্র বদর জিহাদের পর দ্বিতীয় হিজরী যিলহজ্জ মাসে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার শাদী মুবারক উনার অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। গাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশে এ অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার মোহর মুবারক ধার্য করেন ৫ শত দিরহাম। এ পরিমাণ মোহর বরকতময় বলে গণ্য করা হয়। যা ‘মহরে যাহরায়ী শরীফ’ বা ‘মহরে হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম’ হিসেবে মশহুর। স্বামীগৃহে তুলে দেয়ার সময় নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হাদিয়া হিসেবে দশটি জিনিস প্রদান করেন। শয়নের চৌকি মুবারক, দুইটি তোষক মুবারক, একটি চাদর মুবারক, পানির পাত্র মুবারক, মশক মুবারক, কলসি মুবারক, বদনী মুবারক, মাটির দুইটি পাত্র মুবারক, একটি কাঠের পেয়ালা মুবারক ও যাঁতা মুবারক। সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সহযাত্রী হিসেবে উনার সাথে উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা এবং বনী হাশিম ও আনছার মহিলা ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুন্নাগণ উনারা সানন্দে বরের ঘর পর্যন্ত গমন করেন। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মুবারক বিবাহ উনার দশ মাস পর ১৫ই শাবান শরীফ ৩য় হিজরী হযরত ইমামুছ ছানী আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। ৪র্থ হিজরী ৫ই শাবান হযরত ইমামুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। ৫ম হিজরীতে হযরত জয়নব আলাইহাস সালাম, ৬ষ্ঠ হিজরীতে হযরত রুকাইয়া আলাইহাস সালাম, ৭ম হিজরী সনে হযরত উম্মে কুলছুম আলাইহাস সালাম এবং ৯ম হিজরী সনে হযরত মুহসিন আলাইহিস সালাম উনারা পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, হিজরী ১১ সনের প্রথম দিকে অর্থাৎ পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনার মধ্যে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মারিদ্বী শান মুবারক গ্রহণ করেন এবং ১২ই রবীউল আউওয়াল শরীফ তিনি পবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। এতে উম্মু আবীহা, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি জুদাইর কারণে হুযনী শান মুবারক প্রকাশ করেন। এ জুদাই উনার পবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশের মাত্র প্রায় ছয় মাস যমীনে ছিলেন। তিনি হিজরী ১১ সনে ৩রা রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম শরীফ বা সোমবার বাদ আছর পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। উনার জানাযার নামায হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি পড়ান। উনার পবিত্র রওজা শরীফ পবিত্র জান্নাতুল বাক্বীতে অবস্থিত। মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মূলকথা হলো- সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্যতম ব্যক্তিত্ব এবং আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মূল ব্যক্তিত্বের অন্তর্ভুক্ত। উনার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ উনার মাস হচ্ছে ‘পবিত্র জুমাদাল উখরা শরীফ’। অর্থাৎ তিনি এ পবিত্র মাসের ২০ তারিখ জুমুয়ার দিন সুবহে সাদিকের সময় পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। যেদিনটি সকলের জন্য সুমহান ঈদ বা খুশির দিন। তাই প্রত্যেকের জন্য ফরয হচ্ছে- উনার পবিত্র সাওয়ানেহে উমরী বা জীবনী মুবারক জানা, উনাকে মুহব্বত ও অনুসরণ-অনুকরণ করা। বিশেষ করে সমস্ত মহিলাদের জন্য ফরয হলো, উনাকে সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম ও পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে অনুসরণ-অনুকরণ করা। আর সরকারের জন্যও ফরয হচ্ছে- মাহফিলসমূহের সার্বিক আনজাম দেয়ার সাথে সাথে উনার পবিত্র জীবনী মুবারক শিশুশ্রেণী থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ শ্রেণী পর্যন্ত সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সিলেবাসের অন্তর্ভুক্ত করা এবং উক্ত দিবসে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে