হযরত আহলুবাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত ফাযায়িল ফযিলত।


হযরত আহলুবাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত ফাযায়িল ফযিলত।
***************************************************************
“মহান আল্লাহ পাক উনার সবচেয়ে বড় শি‘য়ার বা সম্মানিত নিদর্শন মুবারক হচ্ছেন সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি, উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা এবং উনাদের সংশ্লিষ্ট দিবস-রজনীসমূহ ও বিষয়সমূহ। সুবহানাল্লাহ।
 
সাইয়্যিদুল মুরসালীন ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন্যাবিয়্যিন, নুরে মুজাসসাম হাবিবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন – ইমামুল আউওয়াল সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি বর্ণনা করেন-
قال رسول الله صلى الله عليه وسلم اربعة انا لـهم شفيع يوم القيامة الـمكرم لذريتى والقاضى لـهم حوائجهم والساعى لهم فى امورهم عند اضطرارهم اليه والمحب لهم بقلبه ولسانه-
অর্থ: “নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ক্বিয়ামতের দিন আমি নিজেই চার শ্রেণীর লোককে খাছভাবে সুপারিশ করবো- ১. যে ব্যক্তি আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে সম্মান করবে। ২. যে ব্যক্তি অর্থ-সম্পদ দ্বারা আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের খিদমত করবে। ৩. যে ব্যক্তি দৈহিক শক্তি দিয়ে, শ্রম দিয়ে হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের খিদমত করবে। ৪. যে ব্যক্তি হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মনে-প্রাণে, জবানে গভীরভাবে মুহব্বত করবে।” (আল বুরহানু ফী তাফসীরিল কুরআন লিল বাহরানী- ১/২৩, তাফসীরু নূরিছ ছাক্বালাইন লিল হুয়াইযী ২/৫০৪)
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-
عَنْ حَضْرَتْ سَلمَةَ بْنِ الأَكْوَع رَضِىَ الله تَعَالى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ النجوم أمان لأهل السماء ، وأهل بيتي أمان لأهل الأرض ، فإذا ذهبت النجوم ذهب أهل السماء ، وإذا ذهب أهل بيتي ذهب أهل الأرض
অর্থ: “হযরত সালমা ইবনে আকওয়া রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- আকাশের তারকারাজি আসমানবাসীদের জন্য নিরাপত্তা দানকারী। আর আমার পবিত্র আহলু বাইত শরীফ তথা আওলাদুর রসূল আলাইহিমুস সালাম উনারা আমার উম্মত তথা গোটা কায়িনাতবাসীর একমাত্র নিরাপত্তা দানকারী তথা নাজাত দানকারী। সুবহানাল্লাহ! তারকারাজি যখন বিদায় নিবে, তখন আসমানবাসীগণও বিদায় নিবেন। আর আমার পবিত্র আহলু বাইত শরীফ তথা আওলাদুর রসূল আলাইহিমুস সালাম যখন বিদায় নিবেন, তখন যমীন ধ্বংস হয়ে যাবে।” (কানযুল উম্মাল)
 
অর্থাৎ যমীনে দায়িমীভাবে সবসময় খাছ পবিত্র আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের কেউ না কেউ অবস্থান মুবারক করবেন। উনাদের উসীলায় এই যমীন টিকে থাকবে। ক্বিয়ামতের আগে এই যমীন পবিত্র আহলু বাইত শরীফ তথা আওলাদুর রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের থেকে খালি হবে না। সুবহানাল্লাহ। আর যখন উনারা থাকবেন না তখন আর যমিনের কোন ক্ষমতা থাকবে না স্থির থাকা বা ঠিক থাকা, তখনই ক্বিয়ামত সংগঠিত হবে। সুবহানাল্লাহ।
 
অতএব মহাসম্মানিত হযরত আহলুবাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত ছানা ছিফত মুবারক করা, সম্মানিত তাজিম তাকরীম মুবারক করা এবং উনাদের হাক্বীকি খিদমত মুবারক উনার আঞ্জাম মুবারক দিয়ে উনাদের সম্মানিত রেজামন্দি মুবারক হাসিল করার তৌফিক যেন উনারা আমাদেরকে নসীব করেন সে আর্জু উনাদের নূরী ক্বদম মুবারকে। উনারা আমাদেরকে ক্ববুল করুন আবাদুল আবাদের তরে। আমীন।
Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে