হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম-উনাদের ফাযায়িল ফযিলত।ধারাবাহিক।


হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম-উনাদের ফাযায়িল ফযিলত।ধারাবাহিক।
**************************************************************************
হযরত আহলে বাইত ও আওলাদে রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে নিসবত-তায়াল্লুক স্থাপনকারীগণ কখনো গুমরাহ বা পথভ্রষ্ট হবেন না। সুবহানাল্লাহ।
*********************************************************************
সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে,
عَنْ حَضْرَتْ اَبِـىْ هُرَيْرَةَ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهَ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ خَيْرُكُمْ خَيْرُكُمْ لِاَهْلِىْ مِنْۢ بَعْدِىْ.
অর্থ: “হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, তোমাদের মধ্যে ওই ব্যক্তি সর্বাধিক উত্তম, শ্রেষ্ঠ, ফযীলতপ্রাপ্ত, তোমাদের মধ্যে ওই ব্যক্তি সর্বাধিক উত্তম, শ্রেষ্ঠ, ফযীলতপ্রাপ্ত, যে ব্যক্তি আমার পরে আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের নিকট সর্বাধিক উত্তম।” সুবহানাল্লাহ! (আস সুন্নাহ লিইবনে আবী ‘আছিম ২/৬১৬, আবূ ইয়া’লা শরীফ ১০/৩৩০, মুস্তাদরকে হাকিম শরীফ ৩/৩৫২, মু’জাম লিইবনিল আ’রাবী ১/৩৭৩, আল মাক্বছদুল ‘আলী ৩/১৯৭, মাজমাউয যাওয়ায়িদ শরীফ ৯/১৭৪, আল ফাতহুল কাবীর ২/৯৬, আল ঈমা’ ৬/৪৮৯, আছ ছওয়া‘ইকুল মুহরিক্বহ ২/৫৪৪ ইত্যাদি)

বিশিষ্ট ছাহাবী হযরত জাবির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন। পবিত্র বিদায় হজ্জের দিন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার কাসওয়া নামক উঠের উপর আরোহী অবস্থায় মুবারক খুতবাহ দিচ্ছিলেন। সেই সময় তিনি বললেন,
يا ايها الناس انى تركت فيكم ما ان اخذتم به لن تضلوا كتاب الله وعترتى اهل بيتى
অর্থ: “হে মানুষ সকল! আমি তোমাদের নিকট দুটি নিয়ামত মুবারক রেখে যাচ্ছি, যদি তা তোমরা দৃঢ়তার সাথে আঁকড়িয়ে ধরো, তাহলে কখনোই গুমরাহ বা পথভ্রষ্ট হবে না। একটি নিয়ামত হচ্ছে, মহান আল্লাহ পাক উনার কিতাব মুবারক। আর অপর নিয়ামত হচ্ছে- আমার হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম তথা বংশধরগণ।” (তিরমিযী শরীফ, ২/৭৩৫, মিশকাত শরীফ/৫৬৯)
কাজেই যারা হযরত আহলে বাইত শরীফ এবং হযরত আওলাদে রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে তায়াল্লুক, নিসবত, মুহব্বত রাখবে না, ইতায়াত (অনুসরণ-অনুকরণ) করবে না, তারা কখনোই হিদায়েতের উপর প্রতিষ্ঠিত থাকতে পারবে না। বরং তারা যা কিছু করুক না কেন, বলুক না কেন তারা পথভ্রষ্ট, গুমরাহ বাহাত্তর দলের অন্তর্ভুক্ত।
হযরত আবু যর গিফারী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি পবিত্র কা’বা শরীফ উনার দরজা মুবারক ধরে বললেন, “আমি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে ইরশাদ মুবারক করতে শুনেছি-

الا ان مثل اهل بيتى فيكم مثل سفينة ( حضرت)
نوح عليه السلام من ركبها نجا ومن تخلف عنها هلك.
অর্থ: “বিশ্ববাসী তোমরা সাবধান হও! আমার সম্মানিত হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালামগণ তোমাদের জন্য হযরত নূহ আলাইহিস সালাম উনার কিশতী বা নৌকার ন্যায়। যারা সেই কিশতির উপর আরোহণ করেছে তারা নাজাত (মুক্তি) পেয়েছে। আর যারা কিশতীর উপর আরোহণ করেনি তারা হালাক বা ধ্বংস হয়েছে।” (মিশকাত শরীফ-৫৭৩, খাসায়িসুল কুবরা-৪৬৬) (ইনশাআল্লাহ চলবে)।

Image may contain: text
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে