হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের পূর্ণ নকশারুপে যিনি মহিয়ানা


নিশ্চয়ই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে যে সমস্ত সম্মানিত ব্যক্তিত্ব নিসবত মুবারক-এ ধন্য হয়েছেন, ঐ সমস্ত পবিত্রতম সম্মানিত ব্যক্তিত্বগণ পবিত্র কা’বা শরীফ, কুরসী শরীফ এমনকি আরশে আযীমসহ যত মর্যাদা ও ফযীলতপূর্ণ বিষয়গুলো রয়েছেন তার চেয়েও লক্ষ-কোটিগুণে মর্যাদায় মর্যাদাবান হয়েছেন। সুবহানাল্লাহ! তাহলে যিনি আখাসসুল খাছ আহলে বাইত শরীফ, যিনি মহা সম্মানিত মাদানী নূর মুবারক, যিনি আসমান যমিন সৃষ্টিকূলে মহান আল্লাহ্ পাক উনার খাছ লক্ষ্যস্থল, যিনি হিদায়েতের আলোকবর্তিকা, যিনি ইসলাহ ও পবিত্রতার মালিকা, যিনি শরীয়ত ও মারিফাতের রাহনুমা, আমাদের সম্মানিত উম্মুল উমাম হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার ফাযায়িল-ফযীলত, শান-মান, মর্যাদা-মর্তবা, বুযুর্গী-সম্মান কত বে-মিছাল তা আমাদের বোধগম্য নয়। উনার মর্যাদা মুবারকের ব্যাপকতা সমস্ত কায়িনতবাসীসহ সকল জিন-ইনসান মু’মিন বান্দা-বান্দিগণের পবিত্রতম ঈমান ও নাজাত এর মূল তথা ঈমান ও নাজাতের একমাত্র উপায় ও অবলম্বন। সুবহানাল্লাহ! উনি নূরে মুজাসসাম হাবিবল্লাহ্ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খাছ লখতে জিগার। উনি তো মিছদাকে হযরত উম্মাহাতুল মুমিনিন আলাইহিন্নাস সালাম। সুবহানাল্লাহ। হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের পূর্ণ নকশারুপে তিনি মহিয়ানা। যা সংক্ষিপ্তাকারে পর্যালোচনা করা হলো। সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, ত্বহিরা, ত্বইয়্যিবাহ, উম্মুল মু’মিনীন আল উলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার আখাছছুল খাছ মিছদাক হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম। ত্বহিরা, ত্বয়্যিবা উম্মুল মু’মিনীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার ন্যায় অসীম পবিত্রতম ইলমে গইব তথা মিল্লাদুন্না ইলমা’ উনার অধিকারীণী আমাদের হযরত আম্মা হুযুর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম! সুবহানাল্লাহ! উনার পবিত্রতম জীবন মুবারক উনার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সীমাহীন ইলম মুবারক, প্রজ্ঞা মুবারক, জ্ঞান মুবারক, বুদ্ধিমত্তা মুবারক, বিচক্ষণতা মুবারক, উদারতা মুবারক, দয়াদ্রতা মুবারক, সহানুভূতী মুবারক, সহযোগীতা-সহমর্মিতা মুবারক, ত্যাগ-তিতিক্ষা মুবারক, ধৈর্য ও সহিষ্ণুতা মুবারক, দু:খে-সুখে সর্বাবস্থায় সান্তনা মুবারক সর্বোপরি পবিত্রতম জান মুবারক ও মাল মুবারক বিলীন করে দিয়ে সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার পবিত্রতম পাক ওযুদ মুবারক-এ যে সীমাহীন ও নজীরবিহীন খিদমত মুবারক-এ আনজাম দিচ্ছেন তা ভাষায় বর্ণনাতীত, কল্পনাতীত এবং কুলকায়িনাতবাসীর আকল-সমঝ ও উপলব্ধির সীমাহীন বাইরে। সুবহানাল্লাহ! হযরত মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার সর্বোচ্চ নিসবত ও কুরবত প্রাপ্ত ব্যক্তিত্বা হযরত উম্মুল উমাম আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার প্রসঙ্গে স্বয়ং যিনি হযরত মুজাদ্দিদে আযম আলাইহিস সালাম তিনি উনার এক কওল শরীফ-এ ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমাদের হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম এবং হযরত ছিদ্দিকা আলাইহাস সালাম উনাদের সরাসরি দায়েমী নিসবত প্রাপ্ত। সুবহানআল্লাহ! আমাদের অনেক পীরবোন বর্ণনা করেছেন, স্বপ্নে উনারা প্রায়ই দেখে থাকেন হযরত উম্মুল উমাম আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনাকে এবং সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনাকে। সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার এবং সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনাদের তাওয়াল্লুক নিছবত কুরবত মুবারক এতবেশী যে, সিরত-ছুরত, দর্স-তাদরিস চলা-ফেরা, বাহ্যিক আভ্যন্তরিন উনারা হুবহু একই রূপ। সুবহানআল্লাহ। আমাদের অপর একজন পীরবোন তিনি স্বপ্নে দেখেন, একটি মজলিশে লক্ষ লক্ষ মেয়েরা উপস্থিত হয়েছেন। সকলেই সারিবদ্ধ ভাবে সামনে এগিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের সেই পীরবোনও সামনে এগিয়ে গেলেন। দেখলেন কিছু খাদিমা উনারা শরবত তৈরী করে একজন বিশেষ নূরানী ব্যক্তিত্ব উনার হাত মুবারকে দিচ্ছেন, উনি অপর একজন নূরানী ব্যক্তিত্ব উনার হাত মুবারকে দিচ্ছেন তিনি সকল মেয়েদের মাঝে বিতরণ করছেন। আমাদের পীর বোন নিকটে যেয়ে লক্ষ্য করলেন দুজন নূরানী ব্যক্তিত্বই আমাদের হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। কিন্তু উনার মনে হচ্ছে একজন মা ও একজন মেয়ে। তাহলে কে মা, কে মেয়ে? আম্মা হুযূর কিবলা আলাইহাস সালাম দুজন কেন? তিনি কাকে এ প্রশ্ন করবেন। তিনি আদবের সাথে সামনে যেয়ে একজন খাদিমা উনাকে জিজ্ঞেস করলেন, আপা- আমাদের আম্মা হুযূর দুজন কেন? তখন সেই খাদিমা বললেন, আপনি চিনতে পারেননি। একজন আমাদের হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম, আরেকজন সাইয়্যিদাতুন নিসাইল আলামীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম। সুবহানাল্লাহ। সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন অত্যন্ত অতিথিপরায়ণ এবং দানশীলা। গরীব-দুস্থদের তিনি উনার কাছে যা থাকতো- তা দু’হাত মুবারক-এ বিলিয়ে দিতেন। আমাদের সকলেরই জানা রয়েছে, আমাদের মহা সম্মানিত সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, হাবীবাতুল্লাহ, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনিও সীমহীন অতিথিপরায়ণ এবং দানশীলা। অসংখ্য গরীব-দুস্থদের ছেলে ও মেয়েদেরকে তিনি খাদ্য বস্ত্র বাসস্থান শিক্ষা চিকিৎসা ও বিয়ের ব্যবস্থা করে এক বিরল ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। প্রতিটি দিন সারা বছর তিন বেলা পবিত্র দরবার শরীফে হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ লোককে খাওয়ানো হচ্ছে তা মূলত উম্মুল খাইর, হাবীবাতুল্লাহ, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনারই খাছ কারামত মুবারক। সুবহানাল্লাহ! মহান বারে ইলাহী আল্লাহ পাক যেমন চান, যে বান্দা বান্দী তারা সব কিছু আরজু করুক, ঠিক উনার কায়িমোকাম সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, হাবীবাতুল্লাহ, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনিও সকলের সব আরজু পূরণ করেন। যে যা চাই, তাকে তিনি তাই বরং তার চেয়েও বেশী দিয়ে থাকেন। সুবহানআল্লাহ। সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছা, সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার হুবহু মিছদাক আমাদের উম্মুল খাইর, হাবীবাতুল্লাহ, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম ছিলেন সকল মানুষের মধ্যে সবচেয়ে বড় ফক্বীহ, সবচেয়ে বেশী জ্ঞানী ব্যক্তি এবং আম জনতার মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর মতামত মুবারক উনার অধিকারিণী। হযরত আম্মা হুযুর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনিও সবচেয়ে বড় ফক্বীহ, সবচেয়ে বেশী জ্ঞানী ব্যক্তি এবং আম জনতার মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর মতামত মুবারক উনার অধিকারিণী। যারা উনার ছোহবত মুবারক এখতিয়ার করেছেন উনারা সবাই জানেন উনার সীমাহীন ইলম মুবারক, প্রজ্ঞা মুবারক, জ্ঞান মুবারক, বুদ্ধিমত্তা মুবারক, বিচক্ষণতা মুবারক সত্যিই বেমেছাল। আর উনার মত বিশুদ্ধভাষিণী ২য় কেউ আর সৃষ্টি হয়নি। সুবহানাল্লাহ! পবিত্র হাদীছ শরীফে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার কাছ থেকে তোমরা তোমাদের পবিত্র দ্বীন শিক্ষা করো। সুবহানাল্লাহ! এ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার হাক্বিক্বি মিছদাক সাইয়্যিদাতুন নিসা, নূরেজাহান, হাবীবাতুল্লাহ আমাদের প্রাণের আক্বা হযরত আম্মা হুযুর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। তিনি প্রতি দিন প্রতি ক্ষণ প্রতিটি মুহুর্ত দ্বীন শিক্ষা দিচ্ছেন। আমরা জানি তিনি জারি করেছেন অনন্তকাল ব্যাপী মহা পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ উনার ফালইয়াফরাহু মাহফিল। তিনি প্রতিদিন পবিত্র কুরআন শরীফ পবিত্র হাদীছ শরীফ পবিত্র ইজমা শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ থেকে তালিম দিচ্ছেন। হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ হিদায়েত শূণ্য মানুষ হিদায়েত পেয়ে ধণ্য হচ্ছে। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আর রবিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন অধিক রাত্র জাগরণকারিনী। আমাদের সকলেরই জানা রয়েছে, আমাদের মহা সম্মানিত সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, হাবীবাতুল্লাহ, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনিও অধিক রাত্র জাগরণকারিনী। শুধু তাই নয়, সম্মানিত নববী পরিবার তথা আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুবারক সম্মানিত শিশুগণও রাত্র জাগরণ করে থাকেন। এটা মূলত উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনারই বিশেষ আয়োজন, বিশেষ তরতীব। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আল খমিসাহ আলাইহাস সালাম উনারও পরিপূর্ণ মিছাল হচ্ছেন সাইয়্যিদাতুন নিসা, নূরেজাহান, হাবীবাতুল্লাহ আমাদের প্রাণের আক্বা হযরত আম্মা হুযুর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। উম্মুল মু’মিনীন হযরত আলাইহাস সালাম উনার সম্পর্কে উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমি উম্মুল মু’মিনীন হযরত আলাইহাস সালাম উনার চেয়ে কোন মহিলাকে বেশী দ্বীনদার, বেশী পরহেযগার, বেশী সত্যভাষিণী, বেশী উদার, দানশীল, সৎকর্মশীল এবং মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারক অর্জনের লক্ষ্যে বেশী তৎপর দেখিনি।” (মুসলিম শরীফ) এ হাদীছ শরীফ উনার হুবহু মিছদাক হাবীবাতুল্লাহ আমাদের প্রাণের আক্বা হযরত আম্মা হুযুর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। তিনি অধীক দ্বীনদার, অধীক পরহেযগার, খুবই সত্যভাষিণী, সবচেয়ে উদার, বেমেছাল দানশীল, সৎকর্মশীল এবং মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারক অর্জনের লক্ষ্যে খুবই তৎপর। ৬) উম্মুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু সালামা আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন অনুপম সৌন্দর্য মুবারক, পূর্ণ প্রজ্ঞা ও সঠিক সিদ্ধান্তের গুণে গুণান্বিতা। উল্লেখিত গুণাবলী তথা খুছুছিয়ত মুবারকসমূহের পরিপূর্ণ নকশা আমাদের প্রাণপ্রিয় উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। উনার জাহির-বাতিন প্রজ্ঞা ও সৌন্দর্য মুবারক এবং সঠিক সিদ্ধান্তের গুনাবলী কুদরতময় মহান আল্লাহ পাক উনার কুদরত এবং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ্ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুজিজা শরীফ। সুবহানাল্লাহ! এক সালিককে স্বপ্নে হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, “আমার সব ইলম হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনাকে হাদিয়া করেছি, তোমাদের ইলম পেতে হলে উনার নিকট থেকেই নিতে হবে।” সুবহানআল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আস সাবিয়াহ আলাইহাস সালাম উনার অতিপ্রিয় কাজ মুবারক ছিল গরীব-দুঃখী, অসহায়দের ও ক্ষুধার্তকে খাদ্য দান করা, বস্ত্রহীনকে বস্ত্র দান করা। সাইয়্যিদাতুন নিসা, নূরেজাহান, হাবীবাতুল্লাহ আমাদের প্রাণের আক্বা হযরত আম্মা হুযুর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি উম্মুল মু’মিনীন, উনার হাক্বিক্বি মিছদাক। তিনিও গরীবদেরকে দান করেন, অসহায়দেরকে সহায় দান করেন, ক্ষুধার্তকে খাদ্য দান করেন, বস্ত্রহীনকে বস্ত্র দান করেন। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আছ ছামিনাহ আলাইহাস সালাম উনার পবিত্রতম শান মুবারক সম্পর্কে বর্ণিত রয়েছে, “তিনি ছিলেন সর্বশ্রেষ্ঠ রূপবতী মহিলাদের সর্বশ্রেষ্ঠ ছূরত মুবারক উনার অধিকারীনী। সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি এ হাদিছ শরীফ তথা এই খুছুছিয়ত মুবারক উনার হাক্বিক্বি মিছদাক। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আত তাসিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি অত্যন্ত নরম ও শরাফত তবিয়ত মুবারক উনার মালিকা ছিলেন। উনার ব্যবহার মুবারক অত্যন্ত অমায়িক। পবিত্র ইসলাম উনার বিধি-বিধান অত্যন্ত খোদাভীতি, মুহব্বত ও আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করেন। উনারও হাক্বিক্বি মিছদাক পরিপূর্ণ মেছাল সাইয়্যিদাতুন নিসা, নূরেজাহান, হাবীবাতুল্লাহ আমাদের প্রাণের আক্বা হযরত আম্মা হুযুর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি। উনার ন¤্রতা, উনার শরাফত, উনার অমায়িকতা, উনার খোদাভীতি, মুহব্বত ও আন্তরিকতা সৃষ্টি জগতের ইতিহাসে বিরল। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আল আশিরাহ আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন সর্বাধিক শরীফ, সর্বাধিক মেধা মুবারকের অীধকারী, উঁচু বংশীয়া, অতি উত্তম ছূরত মুবারক উনার অধিকারীনী ও পবিত্র দ্বীন-ইসলাম উনার সুমহান আদর্শ মুবারক।” সুবহানাল্লাহ! (সিয়ারু আ’লামিন নুবালা শরীফ ২/২৩২) সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার বংশ বা নসবী মর্যাদা তো বলা অপেক্ষায় রাখে না। তিনি সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ্ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অর্ন্তভুক্ত সুবহানাল্লাহ! মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুরশিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার যবান মুবারক-এ আমরা শুনেছি। তিনি বলেন : “আমি মুবারক দেখলাম- নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অতি সুন্দর জায়গায় সুন্দর একটি আসন মুবারকে বসে রয়েছেন। উনার মুবারক সামনে ঘেরাও করা মনোরম জায়গা মুবারক রয়েছে। তিনি আমাকে এবং আমার আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে ডেকে নিয়ে ওই মুবারক জায়গায় বসালেন এবং বললেন : ‘আপনারা সবাই আমার আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্তর্ভুক্ত।’ সুবহানাল্লাহ! উম্মুল মু’মিনীন আল আশিরাহ আলাইহাস সালাম তিনি একজন অত্যন্ত বিদূষী, শিক্ষানুরাগী ও অসীম ফিকহী জ্ঞানসম্পন্না ছিলেন। * তিনি উনার আত্মীয়-স্বজনের নিকট পবিত্র দ্বীনি আদর্শের সুন্দর ব্যাখ্যা দিয়ে দাওয়াত দিতেন। * তিনি সর্বদা পবিত্রতম দ্বীনি কাজে তা’লীম-তালক্বীনে ব্যস্ত থাকতেন, ফলে অনেক মহিলা ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা উম্মুল মু’মিনীন হযরত আল আশিরাহ আলাইহাস সালাম উনার কাছে দ্বীনি মাসয়ালা-মসায়িলসহ- ফিকহী মাসয়ালা-মাসায়িলগুলো জেনে নিতেন। হেজাজ ও হেজাজের বাইরের হযরত মহিলা ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুন্না উনারাও পবিত্র হজ্জের সময় উনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতেন এবং অত্যন্ত জটিল মাসয়ালা-মাসায়িল জেনে নিতেন। সুবহানাল্লাহ! উল্লেখিত প্রতিটি খুছুছিয়তের পরিপূর্ণ মেছদাক সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আল হাদী আশির আলাইহাস সালাম সম্পর্কে হযরত আবূ সুফইয়ান রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, আরবের সর্বাধিক সুন্দর ও উত্তম ছূরত মুবারক আল হাদী আশির আলাইহাস সালাম তিনিই।” (মুসলিম শরীফ) আরব ও আযম তথা সারা কায়িনাতের বুকে এ পবিত্র হাদিছ শরীফ উনার হাক্বিক্বি মিছদাক সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আছ্ ছানিয়াহ আশার আলাইহাস সালাম উনর সীমাহীন শান-মান, বুযুর্গী, মর্যাদা, খুছুছিয়ত ও পবিত্রতা মুবারক পরিপূর্ণ হিস্যা মুবারক লাভ করেছেন সাইয়্যিদাতু নিসাইল আলামীন, উম্মুল খাইর, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল কায়িনাত, উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ আশার আলাইহাস সালাম উনার বে-মিছাল খুছূছিয়ত মুবারক বর্ণনা করতে গিয়ে উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম তিনি বলেন, “আমাদের মধ্যে উম্মুল মু’মিনীন হযরত আছ ছালিছাহ আশার আলাইহাস সালাম তিনি সবচেয়ে বেশী মহান আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করতেন এবং সবচেয়ে বেশী আত্মীয়তার সম্পর্ক অটুট রাখতেন।” (তবাক্বাত শরীফ ৮/১৩৮) উল্লেখিত গুনাবলীর হাক্বিক্বি মালিকা সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল খাইর, উম্মুল উমাম মামদূহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! মূলত, উম্মুল উমাম হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের পরিপূর্ণ কায়মোকাম তথা নকশা মুবারক। কাজেই, উনার মুবারক শানে সর্বোচ্চ হুসনে যন পোষণ করতে হবে। উনার খিদমত মুবারকের আনজাম দিতে হবে। মহান আল্লাহ পাক সকলকে তাওফীক্ব দান করুন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে