সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত। ব্লগের উন্নয়নের কাজ চলছে। অতিশীঘ্রই আমরা নতুনভাবে ব্লগকে উপস্থাপন করবো। ইনশাআল্লাহ।

‘হযরত ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম’ সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক রাখার বেমেছাল হিকমত মুবারক


মূলত, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত নির্দেশ মুবারক মুতাবিক উনার মহাসম্মানিতা আওলাদ আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক রাখেন ‘হযরত ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম’। সুবহানাল্লাহ! উক্ত সম্মানিত নাম মুবারক উনার অর্থ মুবারক হচ্ছেন- উদ্ধারকারিণী, পৃথককারিণী, রক্ষাকারিণী। সুবহানাল্লাহ! এই সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক রাখার পিছনে লক্ষ কোটি হিকমত মুবারক নিহিত রয়েছে। যেটা সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম-কায়িনাতবাসীর চিন্তা ও কল্পনার উর্ধ্বে। সুবহানাল্লাহ! নিম্নে এ বিষয়ে সংক্ষিপ্তকারে কিছু আলোচনা করা হলো-
সম্মানিত ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে,
عَنْ حَضْرَتْ اَبِيْ هُرَيْرَةَ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ عَنِ النَّبِىِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ اِنَّـمَا سَـمَّيْتُ حَضْرَتْ فَاطِمَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ لِاَنَّ اللهَ فَطَمَ مَنْ اَحَبَّهَا مِنَ النَّارِ.
অর্থ: “হযরত আবূ হুরায়রাহ রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার থেকে বর্ণনা করেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, নিশ্চয়ই উম্মু আবীহা, আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনাকে যাঁরা মুহব্বত করবেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাদেরকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দিবেন। সুবহানাল্লাহ! তাই উম্মু আবীহা, আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক রাখা হয়েছে ‘হযরত ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম’ ।” সুবহানাল্লাহ! (ইমাতুল ইসমা’ ৪/১৯৬)
সম্মানিত ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে,
عَنْ حَضْرَتْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللهِ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ للهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اِنَّمَا سَمَّيْتُ بْنَتِيْ حَضْرَتْ فَاطِمَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ لِاَنَّ اللهَ عَزَّ وَجَلَّ فَطَمَهَا وَفَطَمَ مُحِبِّيْهَا عَنِ النَّارِ .
অর্থ: “হযরত জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, নিশ্চয়ই আমার মহাসম্মানিতা বানাত (মেয়ে) আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম রাখার কারণ হচ্ছে, মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাকে এবং উনার মুহব্বতকারী উনাদেরকে জাহান্নাম থেকে পৃথক রেখেছেন, মুক্তি দিয়েছেন।” সুবহানাল্লাহ! (আল ফিরদাউস লিদ দায়লামী ১/৩৪৬)
অপর বর্ণনায় এসেছে,
عَنْ حَضْرَتْ اِبْنِ عَبَّاسٍ رَضِىَ اللهُ تَعَالى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ للهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ابْنَتِيْ اَلنُّوْرُ الرَّابِعَةُ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةُ الزَّهْرَاءُ عَلَيْهِ السَّلَامُ حَوْرَاءُ اٰدَمِيَّة لَمْ تَحِضْ وَلَمْ تَطْمِثْ وَإِنَّمَا سَمَّاهَا حَضْرَتْ فَاطِمَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ لِأَنَّ اللهَ فَطَمَهَا وَمُحْبِيْهَا مِنَ النَّارِ.
অর্থ: “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমার মহাসম্মানিতা বানাত (মেয়ে), লখতে জিগার আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন ‘মহাসম্মানিতা মানবীয় হুর মুবারক’। সুবহানাল্লাহ! মহিলাদের যে স্বাভাবিক মাজূরতা রয়েছে সেটা উনার নেই। সুবহানাল্লাহ! মহান আল্লাহ পাক তিনি আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনাকে এবং উনার মুহব্বতকারী উনাদেরকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দিয়েছেন, তাই উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক ‘হযরত ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম’ রাখা হয়েছে।” সুবহানাল্লাহ! (তারীখে বাগদাদ ১২/৩৩১, কানযুল ‘উম্মাল ১২/১০৯, মু‘জামুশ শুয়ূখ ২/২১৬)
সম্মানিত ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে,
عَنْ حَضْرَتْ عَلِىٍّ عَلَيْهِ السَّلَامُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لِلنُّوْرُ الرَّابِعَةُ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةُ الزَّهْرَاءُ عَلَيْهِ السَّلَامُ يَا حَضْرَتْ فَاطِمَةُ عَلَيْهَا السَّلَامُ تَدْرِيْنَ لِمَ سَمَّيْتُ اَلنُّوْرُ الرَّابِعَةُ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةُ الزَّهْرَاءُ عَلَيْهِ السَّلَامُ قَالَ حَضْرَتْ عَلِىّ عَلَيْهِ السَّلَامُ يَا رَسُوْلَ اللهِ لِمَ سَمَّيْتَ اَلنُّوْرُ الرَّابِعَةُ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةُ الزَّهْرَاءُ عَلَيْهِ السَّلَامُ قَالَ اِنَّ اللهَ عَزَّ وَجَلَّ قَدْ فَطَمَهَا وَذُرِّيَّتَهَا عَنِ النَّارِ يَوْمَ الْقِيَامَة.
অর্থ: “সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনাকে উদ্দেশ্য করে ইরশাদ মুবারক করেন, হে আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম! আপনার কি জানা রয়েছে যে, কেন আপনার নাম মুবারক ‘হযরত ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম’ রাখা হয়েছে? সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! কেন আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত নাম মুবারক ‘হযরত ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম’ রাখা হয়েছে? নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, নিশ্চয়ই নিশ্চয়ই যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি সাইয়্যদাতুনা আন নূরুর রবি‘য়াহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনাকে এবং উনার সম্মানিত বংশধর উনাদেরকে ক্বিয়ামতের দিন জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্ত রাখবেন। সুবহানাল্লাহ! এ জন্য উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক রাখা হয়েছে, ‘সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাত্বিমাহ আলাইহাস সালাম’। সুবহানাল্লাহ! (যাখায়িরুল ‘উক্ববাহ শরীফ ১/২৬)
সম্মানিত ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে,
عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ مَسْعُودٍ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اِنَّ حَضْرَتْ فَاطِمَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ أَحْصَنَتْ فَرْجَهَا فَحَرَّمَ اللهُ ذُرِّيَتَهَا عَلَى النَّارِ.
অর্থ: “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাস‘ঊদ রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, নিশ্চয়ই আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি উনার সম্মানিত চরিত্র মুবারক পবিত্র থেকে পবিত্রতম রেখেছেন, ফলে মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার এবং উনার সম্মানিত বংশধর উনাদের উপর জাহান্নাম হারাম করে দিয়েছেন।” সুবহানাল্লাহ! (মুসনাদে বাযযার ১/২৯৫, ৫/২২৩, হিলইয়াতুল আউলিয়া ৪/১৮৮, মুস্তাদরকে হাকিম ৩/১৫২, ৩/১৬৫, আস সওয়ায়িকুল মুহরিক্বহ)
সাইয়্যিদাতু নিসায়ি ‘আলাল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা, উম্মুল আইম্মাহ, আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনাকে যাঁরা মুহব্বত করবেন, উনারা প্রত্যেকই নাজাতপ্রাপ্ত। সুবহানাল্লাহ! আর এ বিষয়টি উনার সম্মানিত নাম মুবারক থেকেই স্পষ্টভাবে প্রকাশিত। সুবহানাল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে