হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম উনারা হচ্ছেন হযরত আহলু বাইত আলাইহিমুস সালাম উনাদের খাদেম।


হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম উনারা হচ্ছেন হযরত আহলু বাইত আলাইহিমুস সালাম উনাদের খাদেম।

  বিশিষ্ট মহিলা ছাহাবী হযরত উম্মে আয়মন রদ্বিয়াল্লাহ তায়ালা আনহা তিনি বর্ণনা করেন। একদিন আমি দুপুর বেলা কোনো জরুরী কাজে সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার হুজরা শরীফ উনার মধ্যে গেলাম। দেখলাম পবিত্র হুজরা শরীফ উনার ভিতর দিক থেকে দরজা মুবারক বন্ধ কিন্তু ভিতরে যাঁতা ঘুরানোর শব্দ শুনতে পেলাম। তখন আমি বাহির হতে দেখতে পেলাম সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা, সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি ঘুমিয়ে আছেন। অথচ পার্শ্বে যাঁতা আপনা আপনি ঘুরতেছে। শিশুপুত্র হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার মুবারক দোলনা আপনা আপনি দুলতেছে। আর উনার পাশে বসে জনৈকা মহিলা তাসবীহ পাঠে রত আছেন। সুবহানাল্লাহ!

এই বিস্ময়কর ঘটনাটি আমি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খিদমত মুবারক-এ পেশ করলাম। তিনি বললেন, হে হযরত উম্মে আয়মন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা দুপুরের তীব্র গরমের কারণে সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার বিশ্রামের প্রয়োজন হয়েছে। তিনি যাঁতা ঘুরাতে ঘুরাতে ঘুমিয়ে গেছেন। কিন্তু আটা তৈরির প্রয়োজন ছিলো। নিজের ওযীফা আদায় করাও বাকি ছিলো। তাছাড়া শিশুপুত্র হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার ঘুম ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিলো। তাই মহান আল্লাহ পাক উনার মাহবুবা উনার ঘুমের ব্যাঘাত সৃষ্টি করতে চাননি। তাইতো তিনি তিনজন হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম উনাদের দ্বারা উনার করণীয় কাজগুলো সমাধা করে দিলেন। সুবহানাল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে