হিদায়েত ও নছীহতের নিরূপমা দিশারী, নাজাতের কান্ডারী, জান্নাতী মেহমান, হযরত সাইয়্যিদাতুল উমাম আছ ছালিছা আলাইহাস সালাম তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার মুবারক বংশ বিস্তারের অনুপম বিকাশ


আন নি’মাতুল কুবরা আলাল আলাম, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, হুজ্জাতুল ইসলাম, ছাহিবু সুলত্বানিন্ নাছির, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুউল আউওয়াল, আওলাদে রসূল, আস্ সাফফাহ সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম এবং উনার ছাহিবাতুল মুকাররামা, ওলীয়ে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, ক্বায়িম-মাক্বামে হযরত উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল উমাম, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম উনাদের পবিত্রতম আহাল ও ইয়াল শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা সকলেই আখাছ্ছুল খাছ আওলাদে রসূল হিসেবে নূরে মুজাসসাম, মাশুকে মাওলা, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্রতম আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্তর্ভুক্ত। সুবহানাল্লাহ!
মহান আল্লাহ পাক সুবহানাহু ওয়া তায়ালা তিনি উনাদের পবিত্র শানে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন: “হে আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম! আপনাদেরকে পবিত্র থেকে পবিত্রতম করাই মহান আল্লাহ পাক উনার অভিপ্রায়।” অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাদেরকে পবিত্র করার মতো পবিত্র করেই সৃষ্টি করেছেন এবং যমীনে পাঠিয়েছেন। সুবহানাল্লাহ! আন নি’মাতুল কুবরা আলাল আলাম, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম তিনি এবং উনার পবিত্র আহাল ও ইয়াল শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা সকলেই উপরোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ মুবারক উনার পরিপূর্ণ মিছদাক্ব। সুবহানাল্লাহ!
সমগ্র কায়িনাতব্যাপী সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার দুর্বার তাজদীদ মুবারক উনার বিস্তার ও বাস্তাবায়ন, গোটা বিশ্বে আনুষ্ঠানিকভাবে খিলাফত আলা মিন হাজিন নুবুওওয়াহ উনার প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা, হিদায়েত ও নছীহতের অমিয়ধারা অক্ষুণœ রাখা, অনুসরণ ও অনুকরণের ক্বিবলা এবং নাজাতের কা-ারী হিসেবে উনার মুবারক বংশ বিস্তারের ক্রমধারা জারি থাকা অত্যন্ত জরুরী। সুবহানাল্লাহ!
এ মহান লক্ষ্যেই মহান আল্লাহ পাক সুবহানাহু ওয়া তায়ালা তিনি যমীনে পাঠিয়েছেন ওলীয়ে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, ক্বায়িম-মাক্বামে হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম, সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ঊলা ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম এবং ওলীয়ে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, ক্বায়িম-মাক্বামে হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ছানী ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম উনাদের দু’জনকে। পাঠিয়েছেন আন নি’মাতুল কুবরা, মুজাদ্দিদে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, ছানিয়ে মুজাদ্দিদে আ’যম, আল মানসুর, খলীফাতুল উমাম সাইয়্যিদুনা হযরত শাহযাদা হুযূর ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনাকে।
উনাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন ওলীয়ে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, শাফিউল উমাম, সাইয়্যিদুনা হযরত শাহদামাদ আউওয়াল ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম এবং ওলীয়ে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, হাদিউল উমাম, সাইয়্যিদুনা হযরত শাহদামাদ ছানী ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনারা। মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো পাঠিয়েছেন ওলীয়ে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, ক্বায়িম-মাক্বামে হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদের দু’জনকে। মহান আল্লাহ পাক তিনি অগ্রজা আলাইহিমাস সালাম ওই দু’জনের পরে জান্নাতী মেহমান হিসেবে যমীনে পাঠিয়েছেন উনাদের অনুজা আলাইহাস সালাম উনাকে। সুবহানাল্লাহ!
নিবরাসাতুল উমাম, হযরত শাহযাদী ছানী ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম এবং হাদিউল উমাম হযরত শাহদামাদ ছানী ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনাদের মুবারক কোল আলো করে পৃথিবীতে পরম নিয়ামতস্বরূপ ৩রা রজবুল হারাম শরীফ জান্নাত থেকে পবিত্র তাশরীফ গ্রহণ করেন সাইয়্যিদাতুল উমাম, হযরত শাহ নাওয়াসী ছালিছাহ ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম তিনি উনার রায়হানা, উনার হাবীবা, উনার লখতে জিগার শাহনাওয়াসী ছালিছা ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম উনার তাযীন-তাহনীক করেন, উনাকে কোল মুবারকে তুলে নেন এবং প্রাণভরে উনার জন্য দুআ’ করেন। সুবহানাল্লাহ!
মহান আল্লাহ পাক সুবহানাহু ওয়া তায়ালা তিনি উনার পবিত্র কিতাব পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন: “(হে আমার প্রিয়তম হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি দয়া করে সকল উম্মতকে বলে দিন, “তোমাদের নিকট আমি কোনো বিনিময় চাইনা। (মূলত বিনিয়ম তোমরা কেউই দিতে পারবে না। বরং বিনিময় দেয়ার চিন্তা করাটাও কুফরী। তবে উম্মতের মুহব্বত-মারি’ফাত, তায়াল্লুক-নিসবত, রেযামন্দি-সন্তুষ্টি মুবারক হাছিল করা যেহেতু ফরয) সেজন্য তোমাদের অবধারিত কর্তব্য হলো: তোমরা আমার আপনজন, অর্থাৎ আমার সম্মানিত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করো, তা’যীম করো, তাকরীম করো এবং উনাদের খিদমত করো, উনাদের গোলামী করো।” সুবহানাল্লাহ!
ওলীয়ে মাদারযাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতুল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ছালিছাহ ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম তিনি উপরোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ মুবারক উনার পরিপূর্ণ মিছদাক্ব। তিনি হিদায়েত ও নছীহতের নিরূপমা দিশারী, নাজাতের কা-ারী, তিনি জান্নাতী মেহমান। তিনি আন নি’মাতুল কুবরা আলাল আলাম, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক বংশ বিস্তারের অনুপম বিকাশ। তাই উনাকে মুহব্বত করা, তা’যীম করা, তাকরীম করা, উনার খিদমত করা, উনার গোলামী করা, উনার ছানা-ছিফত করা আমাদের সকলের জন্যই ফরয। উনার এবং উনাদের সকলের খিদমত করা, উনাদের গোলামী করা, উনাদের ছানা-ছিফত করা আমাদের জন্য কবুল ইবাদত হিসেবে গণ্য। সুবহানাল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে