হিন্দু শব্দের মধ্যেই রয়ে গেছে হিন্দুদের নাপাকীর পরিচয়


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি মুশরিক হিন্দুদের সম্পর্কে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- “নিশ্চয়ই মুশরিক তথা হিন্দুরা নাপাক।”

আর এই মুশরিক তথা হিন্দুদের অপবিত্রতা ও বদচরিত্রের কথা সবযুগেই সবসময়েই বিদ্যমান ছিলো। তাদের এই বদচরিত্রের কথা পূর্বের সময়কার বিভিন্ন বইয়েও ব্যাপকভাবে উল্লিখিত আছে। এখানে কয়েকটি নমুনা তুলে ধরা হলো মাত্র।
১. হিন্দু বা হিদেন-এর সহজ বাংলা অর্থ হচ্ছে- অধার্মিক, নিম্নস্তরের ধর্মাবলম্বী জাতিভুক্ত ব্যক্তি, অখ্রিস্টান, অসভ্য বা বর্বর ব্যক্তি, রুক্ষ্ম, নিষ্ঠুর, ম্লেছ প্রভৃতি। (সূত্র : Samsad English-Bangali Dictorery, Fifth edition, 1976, p. 504)
২. হিন্দু শব্দের অর্থ- অবিশ্বাসী, দাস ও কৃতদাস। (সূত্র : ফার্সী অভিধান হাফত কুলযুম, ৩য় খ-, পৃ-৯৮)
৩. হিন্দু শব্দের অর্থ- চোর, চৌকিদার, দাস ও ক্রিতদাস। এখানে আরো উল্লেখ আছে ভারতের বাসিন্দাদের হিন্দি বলা হয়; হিন্দু নয়। (সূত্র : ফার্সী অভিধান বাহরে আযম, ২য় খন্ড, পৃ-৪৯৭)
৪. হিন্দু শব্দের অর্থ- চোর, ডাকাত, ছিনতাইকারী ও গোলাম। (সূত্র : ফার্সী অভিধান- লোগাতে কিশওয়ারী, পৃ. ৮২১- ২২)
৫. এমনকি এই হিন্দুরাও নিজেদের এই বদনামীর কথা জানতো। যে কারণে হিন্দু প-িতদের অনেকেই হিন্দু নামটি ব্যবহারে অনীহা প্রকাশ করেছে। যেমন হিন্দুদের গুরু বিবেকানন্দ বলেছে- “যে হিন্দু নামে পরিচয় দেয়া এখন আমাদের নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে, তার কোনো সার্থকতা নেই। কারণ ঐ শব্দের অর্থ যারা সিন্ধু নদের পাড়ে বাস করতো।…সুতরাং আমি হিন্দু শব্দ ব্যবহার না করে ‘বৈদিক’ শব্দ ব্যবহার করবো। অবশ্য ‘বৈদান্তিক’ শব্দ ব্যবহার আরো যুক্তিসঙ্গত।” (সূত্র:- বিবেকানন্দ রচনা সমগ্র পৃ. ৭০০, ১৯৮৮)

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে