১৭ রমাদ্বান শরীফ…যে কারণে সম্মানিত


ইসলাম সে তো পরশমণি
তাকে কে পেয়েছে খুঁজি?
পরশে তাহার সোনা হলো যারা
তাঁদেরই মোরা বুঝি…
আসলেই কি বুঝি!?!না,উনাদের শান মান মর্যাদা মুবারক কখনোই আমাদের পক্ষে বুঝা সম্ভব না।তবে যদি উনাদের জীবনী মুবারক আলোচনা করা হয়,পড়া হয়,শুনা হয় তবে হয়তো কিছুটা অনুধাবন করা অনেকের পক্ষেই সম্ভব হয়।
এখন,কখন কার জীবনী মুবারক আলোচনা করবো তা সহজ হয় যেই দিন মুবারক উনাদের সাথে যে সম্মানিত ব্যক্তিত্ব মুবারক উনাদের বিষয়াবলী,ঘটনা জড়িত সেই দিন মুবারকে সেই ব্যক্তিত্ব মুবারক উনাদের শান মুবারকে যদি আলোচনা করা হয়।তাহলে দেখা যায় যে,পর্যায়ক্রমে সকলের সম্পর্কেই কম বেশি জানা সহজ ও সম্ভব হয়।আর জানা সম্ভব হলে অনুসরণ করাটাও সহজ হয়ে যায়।
আগামী ১৭ রমাদ্বান শরীফ একটি অত্যন্ত বরকতময় দিন—এ সম্মানিত দিন মুবারকে অনেকগুলো সম্মানিত বিশেষ ঘটনা মুবারক সংঘটিত হওয়ায় দিনটি বেমেছাল ফযীলতপূর্ণ এবং নসীহতপূর্ণ। উম্মুল মু’মিনীন হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম,উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম এবং হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহু আলাইহিস সালাম উনারা এ দিন মুবারকে সম্মানিত বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ। এ দিন মুবারকে ঐতিহাসিক বদর জিহাদ সংঘটিত হয় এবং মক্কা শরীফ বিজয় করা হয়।সুবহানাল্লাহ!
মুসলিমমাত্রই নিজ ইতিহাস সম্পর্কে জেনে সেখান থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা উচিত,সাথে সাথে সম্মানিত ব্যক্তিত্ব মুবারক উনাদের সাথে সম্পৃক্ত বিশেষ বিশেষ দিন মুবারক উনাদের তাযীম-তাকরীম করে,হযরত সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম ,হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম ,হযরত আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং হযরত আওলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনাদের শান-মুবারকে বেশি বেশি আলোচনা করে,শুনে,পড়ে সে অনুসারে আমল করার,উনাদের মুহব্বত করার কোশেশ করা উচিত।মহান আল্লাহ্ পাক যেন আমাদের সকলকে সেই তৌফিক দান করেন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে