১৯৫৮ সালে শুরু হওয়া পহেলা বৈশাখ হাজার বছরের ঐতিহ্য হয় কি করে?


বর্তমানে আমাদের দেশে প্রচলিত বাংলা সন আদৌ বাঙালির কোনো সন নয়। বরং এটি শাষক আকবর কর্তৃক প্রবর্তিত এ অঞ্চলের ক্ষেত-খামারে উৎপাদিত ফসলের হিসাব-নিকাশ সহজবোধ্য করার জন্য একটি নতুন সন। যাকে ‘ফসলী সন’ বলা হয়। এটার সাথে এদেশবাসী কিংবা বাঙালি জাতির কোনো প্রকার কোনো ঐতিহ্য জড়িত নেই। তবে যে দিনটিকে পহেলা বৈশাখ বলা হয় সেই দিনটিতে হিন্দু মুশরিকদের কতিপয় পূজা রয়েছে। যেগুলো তারা পূর্ব হতেই পালন করতো। তাদের পূজোর দিনটি ফসলী সনের প্রথমদিন হওয়াতে তারা সেটাতে উৎসবের বহুরুপি মাত্রা দেয়। পাকিস্তান আমলে ১৯৫৮ সালে আমাদের দেশের কতিপয় রবীন্দ্রপূজারী সর্বপ্রথম পহেলা বৈশাখকে নববর্ষ হিসেবে পালন করে। এর পূর্বে এপার-ওপার বাংলার কোনো বাঙালি মুসলমান কোনো দিনই আকবরের আমল হতে ১৯৫৮ সাল পর্যন্ত একবারের জন্যও পহেলা বৈশাখ নববর্ষ হিসেবে উদযাপন করেননি। অতএব, আজকাল যে সমস্ত গন্ডমূর্খরা পহেলা বৈশাখকে বাঙালির হাজার বৎসরের ঐতিহ্য হিসেবে অপপ্রচার চালায়, তারা মূলত মুসলমানগণকে গুমরাহ করে বিদয়াত-বেশরায় লিপ্ত করার কুট উদ্দেশ্যেই সেটা করে থাকে। প্রত্যেক মুসলমানকে তাই এই হারাম কুফরী নববর্ষ উদযাপন হতে বিরত থাকতে হবে এবং অপরকেও বিরত রাখার চেষ্টা করতে হবে।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে