সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত। ব্লগের উন্নয়নের কাজ চলছে। অতিশীঘ্রই আমরা নতুনভাবে ব্লগকে উপস্থাপন করবো। ইনশাআল্লাহ।

১ গ্রাম বাংলাদেশি মরিচের দাম ৩ লাখ টাকা!


বাংলাদেশের এই মরিচের নাম গিনেজ বুকে উঠেছে আগেই। এখন বলা হচ্ছে এই মরিচ উৎপাদন করে আড়াই হাজার কোটি টাকার বাজেট মোকাবেলা করাও সম্ভব। কারণ, ১ গ্রাম মরিচের দাম যদি হয় তিন লাখ টাকা, তাহলে সেটা অসম্ভব কিছু নয়।

বাংলাদেশের মাটিতে জন্ম নেয়া সোনার চেয়ে দামি এ মরিচের নাম নাগা মরিচ, ইংরেজিতে ক্যাপসাইসিন। এটির স্বত্ব বাংলাদেশের। আমাদের নাগা মরিচে থাকা প্রাকৃতিক ক্যাপসাইসিন যৌগ থেকে এন্টি ক্যান্সার ওষুধ, ব্যথা নির্মূল, ওজন ঠিক রাখা প্রভৃতির ওষুধ তৈরি হয়। যে কারণে ক্যাপসাইসিন খুবই মূল্যবান একটি মরিচ। এর এক গ্রামের দাম তিন লাখ টাকার অধিক।
এদিকে, বিশ্বের সব মরিচের ঝালের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে বাংলাদেশের এই নাগা মরিচ। জন্মস্থান বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চল ছাড়াও ভারতের আসাম, নাগাল্যান্ড, মণিপুর ও শ্রীলঙ্কার কিছু গ্রামাঞ্চল। যেখানে এটি ‘কোবরা চিলি’ নামে পরিচিত। তবে উৎপাদিত বৃহত্তর সিলেটের নাগা মরিচ এখন যুক্তরাজ্যের লন্ডন সিটির বিখ্যাত চেইন শপ টেসকোতে পাওয়া যায়।
২০০৭ সালে গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড নাগা মরিচকে পৃথিবীর সবচেয়ে ঝাল মরিচ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়, যা ট্যাবাসকো সস থেকে ৪০১.৫ গুণ বেশি ঝাল। বেশ কিছুদিন যাবৎ ভারত এ মরিচ তাদের বলে দাবি করলেও নাগা মরিচের সত্ত্বাধিকার একমাত্র বাংলাদেশের।
বাংলাদেশ মসলা গবেষণা ইনস্টিটিউট বগুড়ার পরিচালক (পরিকল্পনা ও মূল্যায়ন) ড. ভাগ্য রানী বণিক জানায়, সম্প্রতি ক্যাপসাইসিন প্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য একটি মেশিন তারা পেয়েছেন। তবে প্রশিক্ষিত বৈজ্ঞানিক ছাড়া এ সব স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে কাজ করা খুবই কঠিন।
সরকারের যতœশীল, গুরুত্বপূর্ণ নজরদারি থাকলে ক্যাপসাইসিন দিয়ে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে অনেক বেশি লাভবান হতে পারবে। মরিচের যৌগ রপ্তানি করে বাজেটের অর্থও যোগান দেয়া সম্ভব।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে