৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় ভারতের ডেঙ্গু পরিস্থিতি


 

ভারতের দিল্লিতে ডেঙ্গু পরিস্থিতি গত ৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় পৌঁছেছে। ডেঙ্গুর ভয়াবহতা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে ডাক্তাররা। এ পরিস্থিতিতে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের সর্বোচ্চ সেবায় দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী হাসপাতালগুলোতে এক হাজার শয্যা বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছে। চলতি সেপ্টেম্বর (২০১৫) মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত ভারতের রাজধানী দিল্লিতে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সাড়ে বারোশ’ ছাড়িয়েছে। ২০০৯ সালের পর থেকে কখনো ডেঙ্গুর প্রকোপ এমন ভয়াবহ আকার ধারণ করেনি। ২০০৯ সালে এ সংখ্যা ছিল পনেরশ’র উপর। চিকিৎসকরা আশঙ্কা করছে, আগামী চার সপ্তাহে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।
এত রোগীকে চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে দিল্লির হাসপাতালগুলো। হাসপাতালে পর্যাপ্ত শয্যার অভাবে অনেক রোগীকেই ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ অবস্থায় দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জেইন হাসপাতালগুলোতে শয্যা বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছে। দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছে, ‘সরকারি হাসপাতালগুলোকে বাড়তি ১ হাজার শয্যার ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে। তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে কোনো রোগীকে যেন ফিরিয়ে দেয়া না হয়।’
নয়াদিল্লিতে ডেঙ্গু জ্বরে ৮ বছর বয়সী এক শিশুর মৃত্যুতে তার বাবা-মা’য়ের আত্মহত্যার ঘটনার পরই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এমন নির্দেশ এলো। গত সপ্তাহে ওই দম্পতি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত ছেলেকে চিকিৎসার জন্য বেশ কয়েকটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে তারা শয্যা খালি না থাকায় তাকে ফিরিয়ে দেয়। এরপর একটি হাসপাতালে ভর্তি হতে পারলেও অবস্থা বেশি খারাপ থাকায় সে রাতেই তার মৃত্যু হয়। একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে ববিতা ও লক্ষীচন্দ্র দম্পতি একটি বিদ্যালয়ের চারতলা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করে।
যে হাসপাতালগুলো ছেলেটিকে ফিরিয়ে দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে বলেছে স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এছাড়াও যেসব এলাকায় ডেঙ্গু ভাইরাস বহনকারী এডিস মশার বংশবিস্তার বেশি সেসব এলাকা চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কাজ করছে দিল্লির মিউনিসিপাল কর্পোরেশন।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে