৮রাকাত তারাবিহ গ্রামার ভুল৷


*********************************************************************
৮রাকাত তারাবিহ গ্রামার ভুল৷
*********************************************************************
আরবী গ্রামার অনুযায়ী আট রাকাত তারাবিহ ভুল৷এটা মনে হয় আট রাকাত ওয়ালা বড় শায়েখরাও জানে না৷
তাই সহজ গ্রামারটা সবার উপকারের জন্য নিচে লিখলাম৷
তারাবিহ নাম করণ করা হয়েছে ﺗﺮﻭﻳﺤﺔ – তারবিহাতুন থেকে ৷ (তারবিহা একবচন) অর্থ একবার আরাম করা৷ যার দ্বিবচন ﺗﺮﻭﻳﺤﺘﺎﻥ (তারবিহাতান দ্বিবচন) অর্থ দুইবার আরাম করা৷ বহুবচনে ﺗﺮﺍﻭﻳﺢ (তারাবিহ বহুবচন)
অর্থ অনেকবার আরাম করা৷ অর্থাৎ দুই এর অধিকবার আরাম করা৷
চার রাকাত পরপর যেহেতু এই নামাজে বসে আরাম. করা হয় তাই বহু বচনে” তারাবিহ” নামকরণ করারহয়েছে৷ লক্ষ্যণিয় বিষয় হল শুধু চার রাকাত পড়ে একবার আরাম করলে তাকে তারাবিহ বলা যাবে না৷ তা হবে তারবিহা৷
আবার দ্বিতীয় চার রাকাতের পর দ্বিতীয় বার
আরাম করলেও তাকে তারাবিহ বলা যাবে না৷ তা হবে তারবিহাতান৷
এবার দুই এর অধিকবার যখন হবে শুধু তখনই তারাবিহ বলা সহিহ হবে৷
অতএব ৪+৪= ৮ রাকাতে দুইবার আরাম করাকে তারবিহাতান না
বলে আট রাকাত তারাবিহ বলা সজ্ঞানে ধোঁকা আর অজ্ঞানে বোকামী৷
আমার জানা কয়েকটি ভাষার মধ্যে শুধু আরবীতেই দ্বিবচন আছে৷
তাই গ্রামার অনুযায়ী আট রাকাত নামাজকে দ্বিবচনে তারবিহাতান বলা ছাড়া উপায় নেই৷ আর তারবিহাতান নামে কোন ইবাদত নেই৷ তারাবিহ আদায় করতে হলে আটের অধিক বিশ রাকাত
সুন্নাতই আদায় করতে হবে৷
 
এত কিছু বুঝিয়ে কি আর হবে? সুবিধাবাদীরা প্রাই
সবাই আরবীতে নিরক্ষর মূর্খ৷ শুধু সুবিধার জন্য কিছু লোককে তারা অন্ধ অনুসরণ করে৷ নাউযুবিল্লাহ।
 
লা’মাযহাবীদের তারাবীর ৮ রাকাতের পক্ষে একমাত্র দলীল, দলীল হিসাবে বিবেচ্য নয়।
================================================
হযরত আয়েশা ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম উনাকে কে জিজ্ঞাসা করা হলো, রমাদ্বান মাসে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নামায মুবারক কেমন হত? তিনি উত্তরে বলেন, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন্যাবিয়্যিন নুরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুজুর পপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রমাদ্বান শরীফ এবং রমাদ্বান শরীফ উনার বাইরে এগার রাকাতের বেশি নামায পড়তেন না। (সহীহ বুখারী ১/১৫৪)
এই হাদীস শরীফ খানা মূলত তাহাজ্জুদ নামাজের দলীল। কারন হাদীছ শরীফে বলা হচ্ছে রমাদ্বান ও রমাদ্বানের বাইরে ৩ রাকাত বিতির সহ ১১ রাকাত পড়তেন। রমাদ্বান মাস ব্যতীত অন্য মাসে তারাবী পড়া নেহায়েত হাস্যকর কথা। এখন যেহেতু সালাফীদের কাছে আর কোন দলীল নেই তাই তারা তাহাজ্জুদকে তারাবী বলে চালাচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ।
এবার দেখুন অন্য একখানা সহীহ হাদীছ শরীফে বর্ণিত আছে,
حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ صَالِحٍ ، وَمُحَمَّدُ بْنُ سَلَمَةَ الْمُرَادِيُّ ، قَالاَ : حَدَّثَنَا ابْنُ وَهْبٍ ، عَنْ مُعَاوِيَةَ بْنِ صَالِحٍ ، عَنْ عَبْدِ اللهِ بْنِ أَبِي قَيْسٍ ، قَالَ : قُلْتُ لِعَائِشَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا : بِكَمْ كَانَ رَسُولُ اللهِ صلى الله عليه وسلم يُوتِرُ ؟ قَالَتْ : كَانَ يُوتِرُ بِأَرْبَعٍ وَثَلاَثٍ ، وَسِتٍّ وَثَلاَثٍ ، وَثَمَانٍ وَثَلاَثٍ ، وَعَشْرٍ وَثَلاَثٍ ، وَلَمْ يَكُنْ يُوتِرُ بِأَنْقَصَ مِنْ سَبْعٍ ، وَلاَ بِأَكْثَرَ مِنْ ثَلاَثَ عَشْرَةَ
অর্থ: হযরত আয়েশা ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম উনাকে কে জিজ্ঞাসা করা হলোে, হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিতরে কত রাকাত পড়তেন? উত্তরে তিনি বলেন, চার এবং তিন, ছয় এবং তিন, আট এবং তিন, দশ এবং তিন। তিনি বিতরে সাত রাকাতের কম এবং তের রাকাতের অধিক পড়তেন না। (সুনানে আবু দাউদ হাদীস ১৩৬২و তহাবী শরীফ ১/১৩৯; মুসনাদে আহমদ ৬/১৪৯, হাদীস ২৫১৫৯, সুনানে কুবরা বায়হাকী ৪৫৮২, ফতহুল বারী শরহে বুখারী ৩/২১)
تحقيق الألباني : صحيح
সালাফী গুরু নাছিরউদ্দীন আলবানী হাদীস শরীফ খানা সহীহ বলেছে। (সহীহ ওয়া দ্বয়ীফ সুনানে আবু দাউদ ৩/৩৬২)
অর্থাৎ এই সহীহ হাদীছ শরীফ থেকে আমরা দেখছি হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ৩ রাকাত বিতির ছাড়া ৪ রাকাত, ৬ রাকাত, ৮ রাকাত, ১০ রাকাত তাহাজ্জুদ নামাজ পড়তেন।
এ কারনে ৮ রাকাত সংশ্লিষ্ট বুখারী শরীফের হাদীছ শরীফ উনার ব্যাখ্যায় হাদীছ শরীফের অন্যতম ব্যাখাকার , হাফিজ ইবনে হাজার আসকালানী রহতুল্লাহি আলাইহি বলেন,এই হাদিসে ইযতিরাব তথা অস্পষ্টতা ও পরস্পর বিরোধিতা থাকায় এ দিয়ে দলিল দেয়া ঠিক নয়। আল্লামা কুরতুবী রহতুল্লাহি আলাইহি বলেন-আমি হযরত আয়েশা ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম উনার এই বর্ণনাটি অনেক আহলে ইলমদের কাছে জিজ্ঞাসা করেছি অনেকেই এতে অস্পষ্টতা ও পরস্পর বিরোধিতা আছে বলে মত প্রকাশ করেছেন। (ফাতহুল বারী শরুহুল বুখারী ৩/১৭)
সূতরাং দেখা যাচ্ছে ৮ রাকাত ছাড়াও আরো অনেকগুলো বর্ণনা আছে যেগুলো ভিন্ন ভিন্ন রাকাত নির্দেশ করে, যার মূল বর্ণনাকারীও স্বয়ং হযরত আয়েশা ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম। উনার থেকে ১০ রাকাতের বর্ণনাও আমরা পেয়েছি। তাই ৮ রাকাত নামাজ অন্য গুলোর বিপরীত। এধরনের ইযতিরাবের জন্য ৮ রাকাতের একক দলীল গ্রহনযোগ্য নয়।
আর যদি সালাফীদের দৃষ্টিভঙ্গি অনুযায়ী তাহাজ্জুদ ও তারাবীহ একাকার করা হয় তবে ৪ রাকাত, ৬ রাকাত, ১০ রাকাত তারাবীও পড়তে হবে। সালাফীরা কি সেটা পড়ে? অবশ্যই না।
সূতরাং নিজেদের নফসের চাহিদা পুরন করতে রোজার মাসে ৮ রাকাত তারাবী পড়ার লম্ফঝম্ফ নেহায়েতই হাস্যকর। আল্লাহ পাক তাদের সহীহ বুঝ দান করুন। আমিন।
 
Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে