দেশী ও বিদেশী সিনেমা, টিভি চ্যানেলে ও বিলবোর্ডে প্রদর্শিত অশ্লীল ছবি, মোবাইল পর্নো, অশ্লীল প্রিন্ট ছবিই নারী নির্যাতনসহ সকল প্রকার অপকর্মের আসল কারণ।


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “প্রত্যেক ছবি তুলনেওয়ালা ও তোলানেওয়ালা জাহান্নামী।” নাউযুবিল্লাহ!
দেশী ও বিদেশী সিনেমা, টিভি চ্যানেলে ও বিলবোর্ডে প্রদর্শিত অশ্লীল ছবি, মোবাইল পর্নো, অশ্লীল প্রিন্ট ছবিই নারী নির্যাতনসহ সকল প্রকার অপকর্মের আসল কারণ। অর্থাৎ প্রাণীর ছবিই সকল ফিৎনার মূল। কাজেই যতক্ষণ পর্যন্ত সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার নির্দেশ মুবারক মেনে ছবি তোলা, আঁকা, রাখা বন্ধ না করবে, ততক্ষণ পর্যন্ত নারী নির্যাতন কেন; মূলত কোনো অপকর্মই বন্ধ হবে না।
তাই ৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশের সরকারের উচিত- পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের দ্বারা নিষিদ্ধ বা হারাম প্রমাণিত ছবির ব্যবহার এবং ছবি সংশ্লিষ্ট সমস্ত বিষয় বন্ধ করে দেয়া এবং এ ব্যাপারে দৃঢ় পদক্ষেপ নেয়া।
– ক্বওল শরীফ: সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম

যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, ‘যমীনে এবং পানিতে যত ফিতনা-ফাসাদ (কথিত নারীটিজিং, নারী অধিকার হরণ, নারীর সম্ভ্রম লুন্ঠন, দুর্ভিক্ষ, খাদ্যাভাব, সহিংসতা, সামাজিক অস্থিরতা) অর্থাৎ আযাব-গযব সব মানুষের হাতের কামাই।’

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, বর্তমানে নারীটিজিং বা অশ্লীলতা সমাজের একটা মারাত্মক সমস্যা। আমাদের দেশ এমন পর্যায়ে ছিল না। আমাদের সমাজে নারীর প্রতি যে সদ্ব্যবহার ছিল তা কমে যাচ্ছে। বিজাতীয় সংস্কৃতির প্রভাবে এমন হচ্ছে। হিন্দি সিনেমা, ইংরেজি ছবির অশ্লীল দৃশ্য ছোট-বড় পর্দায় প্রদর্শন করা হচ্ছে। হিন্দি, ইংরেজি এমনকি বাংলা সিনেমাতেও নারীটিজিংয়ের দৃশ্য এমনভাবে প্রদর্শন করা হচ্ছে, যেন এটা খুবই ভালো কাজ! নাউযুবিল্লাহ!

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পর্যালোচনায় জানা গেছে, আধুনিক কবিতা গল্প সাহিত্য নাটক সিনেমার ৯০ ভাগ জুড়ে এখন তরুণ-তরুণীর অশ্লীলতার ছড়াছড়ি। এছাড়া নারীটিজিংকে তথাকথিত বড় এক শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গেছে বিভ্রান্ত তরুণ নির্মাতারা। পর্দায় এসব দেখেই কোমলমতি ছেলেরা নারীটিজিং শিখে। নাউযুবিল্লাহ! আর এসবের মূলে রয়েছে হারাম ছবি। তাই সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত হারাম ছবি থেকে বিরত থাকতে কঠোরভাবে নির্দেশ মুবারক দিয়েছে।

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, মূলকথা হলো- সমাজে শুধু নারীটিজিং নয়- পরকীয়া, খুন, নারীর অধিকার হরণ, নারীর সম্ভ্রম লুন্ঠন, সামাজিক অস্থিরতাসহ সকল অপকর্ম কখনই দূর হবে না; যতক্ষণ পর্যন্ত পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের মধ্যে ঘোষিত ‘ছবি তোলা হারাম’- এ মূল্যবোধের জাগরণ না ঘটবে। কাজেই এদেশের ৯৮ ভাগ অধিবাসী মুসলমানদের সরকারের দায়িত্ব-কর্তব্য হলো, দেশে এমন সমাজ তৈরি করা; যেখানে ছবি তোলা ও দেখার মতো কবীরা গুনাহর কোনো সুযোগ থাকবে না এবং চর্চাও থাকবে না। সরকারকে মনে রাখতে হবে, মুসলমানরা পরকালে বিশ্বাসী; তাই মুসলমানদের পারলৌকিক কল্যাণ সাধনের দায়িত্বও সরকারের। এক্ষেত্রে সরকারের অনিবার্য কর্তব্য, পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের দ্বারা হারাম প্রমাণিত ছবির ব্যবহার নিষিদ্ধ করা এবং ছবি সংশ্লিষ্ট সমস্ত বিষয় থেকে মুসলমানদের বিরত রাখা।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে