আশিকুর রহমান -blog


...


 


তনু হত্যাকাণ্ড নিয়ে সেনাবাহিনীর ইন্টেলিজেন্স কর্মকর্তার লেখা।


নিচের লেখাটি আমার নয়। একজন সেনাবাহিনীর ইন্টেলিজেন্স কর্মকর্তার লেখা। তার নাম গোপন রাখা হয়েছে। গত কয়েকদিন কুমিল্লা সেনানিবাস অভ্যন্তরে তনু হত্যাকাণ্ড নিয়ে ডিজিটাল মাঠে অনেক কথা হচ্ছে. কিছু বলবো না ভেবেও বলতেই হচ্ছ. একজন সেনাবাহিনী কর্মকর্তা এবং সেনানিবাসের নিরাপত্তার সাথে জড়িত



তনু হত্যা প্রসঙ্গ


তনু হত্যা নিয়ে ফেসবুকে ঝড় বয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ধর্ষণ তো দেশে প্রতিদিনই হয়, জোরপূর্বক অথবা উভয়ের সম্মতিক্রমে(!) কিন্তু হঠাত এটা নিয়েই দেশের হলুদ মিডিয়ার এত চেচামেচির বিষয়টা একটু আশ্চর্যজনকই বটে! অথচ কে কাজটা করল তা নিয়ে কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন ইঙ্গিত



মসজিদে ঢুকে নামজরত মুসলমানদের উপরে হামলা চালায় উগ্র হিন্দুরা


আমার মনে হয় বাংলাদেশের মুসলমানদের হাতে চুড়ি পড়ার সময় এসে গেছে। কারন পাশের দেশ ভারতে মুসলমানেরা গরুর গোশত খাওয়ায়, গরুর ব্যাবসা করায় হত্যা করছে হিন্দুরা নির্বিচারে। অথচ বাংলাদেশের হিন্দুদের তারা আজ এমন মাথায় তুলেছে মসজিদে গিয়ে হামলা চালাচ্ছে হিন্দুরা। গোলাপগঞ্জ উপজেলার



চাকর থেকে হিন্দুদের জমিদার হওয়ার ইতিহাস ও তাদের তালিকা।


আমার পোস্টে এক হিন্দু এসে বলতেছে, “তোরা (মুসলমানরা) হিন্দুদের সব জায়গা জমি কেড়ে নিয়েছিস। তোরা হিন্দুদের চাকর ছিলি।” আপনারাও হয়ত এমন কথা ইন্টারনেটে প্রায়ই হিন্দুদের বলতে শুনে থাকবেন যে, এই বাংলাদেশের সব জমি নাকি হিন্দুদের। তারা মুসলমানদের ওপর হিন্দুদের জমি কেড়ে



ইসলামী শরীয়তের দৃষ্টিতে ‘পহেলা এপ্রিল’ বা ‘এপ্রিল ফুল’ হারাম। ‘এপ্রিল ফুল’ এর সংক্ষিপ্ত ইতিহাসঃ


  >মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি কাফির-মুশরিকদের সাথে মিল রাখবে সে তাদেরই দলভুক্ত হিসেবে গণ্য হবে।’ >আর হাদীছ শরীফ-এ বর্ণিত রয়েছে, “যে ধোঁকা দেয় বা প্রতারণা করে সে আমার উম্মত নয়”। স্মরণ রাখতে হবে যে, ইসলামী শরীয়তের দৃষ্টিতে



রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের বিরেুদ্ধে রিট খারিজ হওয়ার পর একাত্তর টিভিতে বেশ কয়েকটি টক শো ও সাক্ষাৎকার হয়। এর মধ্যে সাক্ষাৎকার


রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের বিরেুদ্ধে রিট খারিজ হওয়ার পর একাত্তর টিভিতে বেশ কয়েকটি টক শো ও সাক্ষাৎকার হয়। এর মধ্যে সাক্ষাৎকার দেয়- যে ১৫ জন রিট আবেদন করেছিলো, তাদের মধ্যে ১ জন বোরহানুদ্দিন খান জাহাঙ্গীর। বোরহানুদ্দিন খান জাহাঙ্গীরের সামনে মাইক ধরলে রায়ের প্রতিক্রিয়া



রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম নিয়ে নাস্তিকদের কিছু আপত্তি ও এর দাঁতভাঙা জবাব–


  , ১) রাষ্ট্রের আবার ধর্ম কী? রাষ্ট্র কী ধর্ম পালন করে? নামায পড়ে, রোযা রাখে? উত্তর: রাষ্ট্র হয়তো নামায পড়ে না, রোযা রাখে না। কিন্তু রাষ্ট্র নামাযের ব্যবস্থা করে দিবে, অর্থাৎ জুম্মাবারে ছুটি দিবে এবং মসজিদের কারেন্ট বিল মওকুফ করবে।



ঢাকা ও চট্টগ্রাম বোর্ডের বাংলা প্রশ্নেও উদ্দেশ্যমূলক ইসলাম অবমাননা করা হয়েছে।


, ছঁবির নাম্বার অনুযায়ী দেখুন, ১) প্রশ্নের ৪ নং পাতায় ৮ নং প্রশ্নে বলা হলো-“আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত যুবক এমদাদ। ধর্ম-খোদা-রাসূল কিছুই বিশ্বাস করে না। খেলাফত আন্দোলনে যোগ দিয়ে একেবারে বদলে গেলো। পীরের মুরীদ হয়েছে এবং নিয়মিত নামাজ পড়ছে। পীরের ভণ্ডামী ও



বাংলাদেশে প্রচুর পরিমাণে ভারতীয় হিন্দু প্রবেশ করছে, এবং বাংলাদেশের চাকুরী সেক্টর দখল করছে।


— — ভারতের শিলিগুড়ি থেকে অটো দিয়ে ফুলবাড়ি আসতে ভাড়া ১৫ টাকা। সেখান থেকে বাংলাদেশ সীমান্তে আসতে রিকশায় ভাড়া আরও ১০ টাকা। ব্যস, মাত্র ২৫ টাকায় সপরিবারে পাসপোর্ট-ভিসা নিয়ে বাংলাদেশে। গল্প নয়, আগামী বৃহস্পতিবার থেকে খুলে যাওয়া শিলিগুড়ি লাগোয়া ফুলবাড়ি-বাংলাবান্ধা সীমান্ত



পহেলা বৈশাখ পালন করা কেন হারাম?


    পহেলা বৈশাখ পালন করা কেন হারাম ?? নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হিজরতের পর মদীনা শরীফ গিয়ে ঐ এলাকাবাসীর দুটি উৎসব বন্ধ করেছিলেন। একটি হচ্ছে, বছরের প্রথম দিন উদযাপন বা নওরোজ; অন্যটির নাম ছিলো ‘মিহিরজান’। এ উৎসবের দুটির



পহেলা বৈশাখ, পহেলা জানুয়ারি, পহেলা মুহররম ইত্যাদি নববর্ষ পালন করার জন্য উৎসাহিত করা এবং সাথে সাথে ভাল খাওয়া-পড়ার জন্যও


: পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে নওরোজ বা যে কোন নববর্ষ পালন করা হারাম ও বিদয়াত।” কাজেই, নববর্ষ সেটা বাংলা হোক, ইংরেজি হোক, আরবী হোক ইত্যাদি সবই ইহুদী-নাছারা, বৌদ্ধ, মজুসী-মুশরিকদের তর্জ-তরীক্বা; যা পালন করা থেকে বিরত থাকা সকল মুসলমানের জন্য ফরয-ওয়াজিব।



সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আছে, ইসলাম’ই থাকবেই । আগুন নিয়ে খেলার পরিনাম ভাল হয় না…


    পৃথিবীতে কোনো দেশ-ধর্ম-জাতি কেউ দেখাতে পারবে না যেখানে সংখ্যাগরিষ্ঠের প্রায়োরিটি নেই। বাংলাদেশে মুসলিম মেজরিটি হলেও ভিন্ন ধর্মাবলম্বীরা প্রাধান্য পায়। - এরপরেও যারা সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম মুছেফার ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছেন তারা এসব অপচেষ্টা বন্ধ করুন। নিজেদের ধ্বংস ডেকে আনবেন