মুহম্মদ মুসাদ্দিক হুসাইন সাজু -blog


...


মুহম্মদ মুসাদ্দিক হুসাইন সাজু
 


ইসলামবিদ্বেষী ও বিদ্রোহীদের ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করা সকল ঈমানদার মুসলমানের জন্য ফরয-ওয়াজিব


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের এবং দ্বীনি যাবতীয় বিষয়ের উপর যার অন্তরের বিশ্বাসসহ মৌখিক স্বীকৃতি থাকে, তাকে ঈমানদার বলা যায়। পবিত্র ঈমানে মুফাসসাল উনার মধ্যে বর্ণিত হয়েছে, ‘আমি



হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম ও আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মুহব্বতকারীদের জন্য সম্মানিত জান্নাত উনার


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে রয়েছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- من مات على حب ال محمد صلى الله عليه وسلم بشره ملك الموت بالجنة ثم منكرنكير অর্থ: যে ব্যক্তি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ



মহান আল্লাহ পাক উনাকে তুমি বলে সম্বোধন করা জায়েয হবে না


এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- يٰايُّهَا الَّذِيْنَ اٰمَنُوْا لَا تُحِلُّوْ ا شَعَائِرِ اللهِ অর্থ: “হে ঈমানদারগণ তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন সমূহকে অসম্মান করো না।” (পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ২) পবিত্র হাদীছ



সাইয়্যিদুনা ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সুমহান বুযুর্গী-সম্মান ও ফযীলত মুবারক


সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ সাইয়্যিদুনা ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বিলাদত শরীফ তৃতীয় হিজরী সনের পবিত্র শা’বান শরীফ মাস উনার ১৫ তারিখ বলে উল্লেখ আছে। সে হিসেবে মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম,



মহিলাদের মসজিদে জামায়াতে নামায পড়া নাজায়িজ


অতীতের আমল নিষিদ্ধ হয়ে গেলে তার উপর আমল করা নাজায়িজ। নামাযের মধ্যে কথা বলা, শরাব পান করা এগুলো ইসলামের প্রথম যুগে ছিল, পরে মানসুখ/বাতিল হয়ে যায়। আবার হজ্জ, নামায, কুরবানি, হিজাব এগুলো প্রথমে ছিল না-পরে এসেছে। প্রথম যুগের দলীল দেখিয়ে বাতিল



বাগেরহাটের রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প চরম আত্মঘাতী। ভারত মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে মালিকানা পাবে ৮৫ ভাগ!! একজন বাংলাদেশী


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “স্বদেশের মুহব্বত পবিত্র ঈমান উনার অঙ্গ।” স্বদেশের স্বার্থ রক্ষা করা, সম্পদ রক্ষা করা ও জনগণকে রক্ষা করা স্বদেশকে মুহব্বতের নিদর্শন এবং ঈমানের পরিচায়ক। দেশে এ যাবৎ যতগুলো কালো চুক্তি হয়েছে তন্মধ্যে বাগেরহাটের ১৩২০



কি করলে মনে শান্তি পাওয়া যাবে?


ভাল লাগছে না… পড়তে ভাল লাগে না। কি করব? একটু মুভি দেখি। নাহ তাও ভাল লাগে না। তাহলে গান শুনি। নাহ তবুও ভাল লাগছে না। একটু খেলাধুলা করি। নাহ হল না। মেয়েদের সাথে চ্যাট করি। তাও ভাল লাগছে না। তাহলে কি



আইন করে হরতাল বন্ধের দাবি ব্যবসায়ীদের


আইন করে হরতাল বন্ধের দাবি তুলেছে ব্যবসায়ী মহল। হরতালের কারণে নানাভাবে ক্ষতির মুখে পড়া ব্যবসায়ীরা অনেক আগে থেকেই এ দাবি তুলে এলেও ধর্মাশ্রয়ী হেফাজতের সাম্প্রতিক তা-বের পর সেই দাবি আরো জোরালো হয়ে উঠেছে। কেননা এক দিনের হরতালে ২ হাজার কোট টাকার



সাভারে নিহতের সংখ্যা আটশ ছাড়াল


রানা প্লাজা ধসে পড়ার পঞ্চদশ দিনেও  ধ্বংসস্তূপ থেকে উদ্ধার করা হচ্ছে একের পর এক লাশ সাম্প্রতিক বিশ্বের ‘ভয়াবহতম’ এই ভবন ধসের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮০৩ জনে। রানা প্লাজার ধ্বংসস্তূপের সামনে উদ্ধার অভিযানের অস্থায়ী নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়, মঙ্গলবার



সাভারে যারা মারা গিয়েছেন, তাদের মাগফিরাতের উদ্দেশ্যে মিলাদ শরীফ পড়ে দোয়া করুন


সাভারে চার শতাধিক মানুষ একদিনে মুহূর্তের মাঝে নির্মমভাবে শহীদ হলেন। অবশ্যই এটা জাতির জন্য চরম মর্মান্তিক ঘটনা। যদিও তারা হয়ত স্বল্প আয়ের গার্মেন্টস কর্মচারী, কিন্তু তারাও মানুষ। তারা নিশ্চয় এমন মৃত্যুর উপযুক্ত নয়। যারা শহীদ হয়েছেন, উনাদের পরিবারকে আর্থিকভাবে সহায়তা করা



ভারতের সকল স্বার্থ রক্ষা করলেও বাংলাদেশ অবহেলিত কেন? আছেন কি কোন দেশপ্রেমিক?


বাংলাদেশ ভারতকে বেরুবাড়ী ইউনিয়ন ছেড়ে দেয়ার পরও ভারত আঙ্গরপোতা-দহগ্রাম তিন বিঘা করিডোর তো ছেড়ে দিচ্ছেই না। এমনকি স্বাধীনভাবে ব্যবহার করতেও দিচ্ছে না। তাহলে ভারতকে কিভাবে ট্রানজিট দেয়া যেতে পারে? এছাড়া ভারত বাংলাদেশের ২১টি নদী ও খালে বাঁধ নির্মাণ করে এদেশের স্বাধীনতা



ব্লগ কোন অপরাধ জগত নয়; কিন্তু গালিবাজ উগ্র নাস্তিকেরা সমাজের জন্জাল।


যার বিশ্বাস, তার কাছে। কিন্তু যারা মুসলমান দেশের মানুষদের ইসলামী চেতনায় আঘাত দিয়ে কটুক্তি করে, তারা অবশ্যই শাস্তির যোগ্য মনে করি।