বায়েজিদ -blog


...


 


সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার মুবারক মজলিস হচ্ছে হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের তা’লীমী মজলিসের হাক্বীক্বী


যিকির-ফিকির, রিয়াযত-মাশাক্কাত করে কখনো মুজাদ্দিদে আ’যম হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিতা যাওজাহ হওয়া সম্ভব নয়। এই বিষয়টি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের কর্তৃক মনোনীত।



সবজি উৎপাদন কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে কিন্তু পর্যাপ্ত হিমাগারের অভাবে সংরক্ষণ সম্ভব হচ্ছে না। সরকারের উচিত খাদ্য সঙ্কট নিরসনে সারা


আমাদের দেশে প্রতি বছর বিশেষ করে শীত মৌসুমে প্রচুর পরিমাণে শাক-সবজি উৎপাদন হয় যা দেশের প্রয়োজনের অধিক। কিন্তু কৃষকরা পর্যাপ্ত হিমাগারের অভাবে খাদ্য-দ্রব্য সংরক্ষণ করতে পারছেন না। উদাহরণস্বরূপ ২০১৪ সালে বগুড়াতে প্রতি কেজি ১ টমেটো টাকা দামে বিক্রি হয়। সিলেটে আলো



সম্মানিত কারবালা শরীফ উনার নির্জন প্রান্তরে সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া


৬১ হিজরী সনের ১০ মুহররমুল হারাম শরীফ তারিখে সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার সম্মানিত পরিবার মুবারকসহ সম্মানিত কারবালা শরীফ উনার নির্জন প্রান্তরে সম্মানিত শাহাদাতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! মূলত,



আপনি যখন নিজেকে মুসলমান বলে দাবি করবেন, তখন আপনাকে কিছু বিষয় ভাবতেই হবে


হ্যাঁ, এটা বলার অপেক্ষা রাখে না, যখন আপনি নিজেকে একজন মুসলমান বলে দাবি করবেন তখন আপনাকে প্রথমেই ভাবতে হবে- আপনি কেন সৃষ্টি হলেন? আপনাকে কেন সৃষ্টি করা হলো? আপনার নিজের প্রতি কি দায়িত্ব? আপনার স্বজাতির প্রতি আপনার কি দায়িত্ব? আপনাকে আরো



বছর বছর ধরেই চলছে ভারতে মুসলিম নিধনের দাঙ্গা


কয়েকদিন পরপরই হিন্দু সন্ত্রাসীরা তুচ্ছ অজুহাত তুলে মুসলমানদের নির্মমভাবে শহীদ করে! ভারতে মুসলমান নিধনকারী দাঙ্গা শুধু আজকে নয়, বহু পূর্ব থেকেই হিন্দুরা জাতিগত নিধনযজ্ঞ চালিয়ে আসছে। ১৯৬১-এর অক্টোবরে আলিগড় মুসলিম নিধনে দাঙ্গা। ১৯৬২-তে মধ্য-প্রদেশের জাবালপুরে মুসলিম নিধনে দাঙ্গা। ১৯৬৪-তে মহারাষ্ট্রের ভিওয়ান্দিতে



ইমামুল মুসলিমীন, মুকতাদায়ে জামীয়ে উমাম, ইনায়েতে হিলম, পেশওয়ায়ে আহলে বাছীরাত, আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুস সাবি’ মিন আহলি বাইতি


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, اِنَّا اَعْطَيْنٰكَ الْكَوْثَرَ অর্থ: “নিশ্চয়ই আমি আপনাকে সম্মানিত কাউছার মুবারক হাদিয়া মুবারক করেছি।” সুবহানাল্লাহ! (সম্মানিত সূরা কাওছার শরীফ: সম্মানিত আয়াত শরীফ ১) এই সম্মানিত কাওছার মুবারক উনার লক্ষ-কোটি ব্যাখ্যা মুবারক। উনাদের মধ্যে একখানা ব্যাখ্যা



ভারতীয় গরু থেকে সাবধান!


বাংলাদেশের আমে ফরমালিন আছে বলে বাংলাদেশের দালাল মিডিয়াগুলো একযোগে প্রচার করেছিলো। মিডিয়ার অপপ্রচার ও বাংলাদেশের সরকারের উদ্যোগে সেবার বহু আম ধ্বংস করেছিলো প্রশাসন। এতে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলো বাংলাদেশের কৃষকরা। কিন্তু পরে আবিষ্কৃত হলো- (১). ফরমালিন আসলে ভারতীয় দালাল মিডিয়ার সৃষ্ট একটি



মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম এবং উনার হযরত আহলে পাক আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুহব্বত-মা’রিফাত, সন্তুষ্টি-রেযামন্দির মধ্যে


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি (উম্মতদেরকে) বলুন, আমি তোমাদের নিকট কোনো প্রতিদান চাই না। (আর তোমাদের পক্ষে তা দেয়াও সম্ভব নয়) তবে যেহেতু তোমাদের ইহকাল ও পরকালে নাজাত লাভ



সম্মানিত মি’রাজ শরীফ উনার রাতে জাহান্নাম দর্শনের যে ভয়াবহ দৃশ্য তার কিঞ্চিত বর্ণনা


বর্ণিত রয়েছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে যখন সম্মানিত মি’রাজ শরীফ উনার রাতে ভ্রমন করানো হলো তখন উনার সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি জাহান্নামের



নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত আব্বাজান আলাইহিস সালাম ও সম্মানিতা আম্মাজান আলাইহাস সালাম


  মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সন্তুষ্টি, মুহব্বত, মা’রিফাত, নিসবত, তাওয়াল্লুক হাছিল করার প্রধান দুটি উসীলা। প্রথমতঃ উনার মহাসম্মানিত আব্বাজান সাইয়্যিদুনা হযরত যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম ও উনার মহাসম্মানিতা আম্মাজান সাইয়্যিদাতুনা হযরত



গরুর গোশত খাওয়ানোর অভিযোগে শাস্তি


  গরুর গোশত ইস্যুতে ভারতের উত্তর প্রদেশে এক ব্যক্তিকে গলায় জুতার মালা পরিয়ে ঘোরানো হয়েছে রাস্তায়। তার মাথা টাক করে দেয়া হয়েছে। চোখের ভ্রু কামিয়ে দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, সে শুধু তিনজন ব্যক্তিকে গরুর গোশতই ভক্ষণ করায়নি। একই সঙ্গে তাদেরকে ধর্মান্তরিত



হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাটের পাশাপাশি হাজার হাজার কোটি টাকার ঋণ খেলাপীদেরও মওকুফ করে পুনঃঋণ দেয়া হচ্ছে। শোষকদের বিরুদ্ধে


দেশের ১৪টি শিল্প গ্রæপ বিশেষ ছাড় নিয়ে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকার ঋণ পুনর্গঠনের সুবিধা নিয়েছে। এর মধ্যে ৫০০ কোটি টাকা থেকে এক হাজার কোটি টাকার ঋণখেলাপীরা পর্যন্ত মাত্র ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে ঋণ নবায়ন করেছে। আর এক হাজার কোটি