chader alo -blog


...


 


যেসব মুছল্লী দাঁড়িয়ে নামায পড়তে অক্ষম তারা কিভাবে নামায আদায় করবে? বসে বা দাঁড়িয়ে কোনভাবেই নামায পড়তে না পারলে


: অক্ষম ও অসুস্থ ব্যক্তি কিভাবে নামায আদায় করবে তা পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ও ফিক্বাহর কিতাবসমূহের মধ্যে সুস্পষ্ট বর্ণনা রয়েছে। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে- عن حضرت عمران بن حصين رضى الله تعالى عنه قال كانت بى



যে ঘরে প্রানীর ছবি থাকে সেখানে নামাজ হবেনাঃ-


  হাদীস শরীফে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-   ﻋﻦ ﺍﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﺍﻧﻪ ﻛﺮﻩ ﺍﻟﺼﻠﻮﺓ ﻓﻲ ﺍﻟﻜﻨﻴﺴﺔ ﺍﺫﺍ ﻛﺎﻥ ﻓﻴﺤﻬﺎ ﺗﺼﺎﻭﻳﺮ   অর্থ : হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু যে ঘরে প্রনীর ছবি থাকতো, সে ঘরে নামাজ পড়া মাকরুহ



সরকার সার্কুলার জারী করেছে সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মঙ্গলশোভাযাত্রার নামে হিন্দুদের পূজার অনুষ্ঠান করতে, নাউযু‌বিল্লাহ! নাউযু‌বিল্লাহ! নাউযু‌বিল্লাহ!


৯৮ভাগমুসলমা‌নের এই দেশের সরকার সাহস পেল কি করে সরকার সার্কুলার জারী করেছে সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মঙ্গলশোভাযাত্রার নামে হিন্দুদের পূজার অনুষ্ঠান করতে, নাউযু‌বিল্লাহ! নাউযু‌বিল্লাহ! নাউযু‌বিল্লাহ! মুসলমানরা কি সবাই সরকা‌রের ম‌তো হিন্দু হ‌য়ে‌ গে‌ছে? হিন্দু‌দের খু‌শি‌তে সরকার খু‌শি। হিন্দুদের কা‌ছে সরকা‌রের বি‌বেক



মঙ্গল শোভাযাত্রাকে সার্বজনীন করার সুযোগ নেই: অধ্যাপক মাহবুব


সরকার শিক্ষা সিলেবাসে নাস্তিক্যবাদী চিন্তা চেতনার বাস্তবায়ন করতে না পেরে নাস্তিক্যাবাদীদের সন্তুষ্ট করতেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মঙ্গল শোভাযাত্রাসহ পহেলা বৈশাখ উদযাপনের নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু নাস্তিক্যবাদী সিলেবাস যেমন এদেশের ইসলামপ্রিয় মুসলমান মেনে নেয় নি, তেমন মঙ্গলশোভা যাত্রার নির্দেশও তারা মানবে না। গতকাল আওয়ার



পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ হলো মহান আল্লাহ পাক উনার মাসঃ


খালিক্ব মালিক রব আল্লাহ পাক সুবহানাহূ ওয়া তায়ালা তিনি এবং কুল-কায়িনাতের নবী ও রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের ঘোষণাকৃত চারটি হারাম বা সম্মানিত মাস উনাদের মধ্যে একটি হলো পবিত্র



সমস্ত মুসলিমা নারীদের জন্য উম্মুল উমাম আম্মাজী ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার মোবারক ছোহবত ইখতিয়ার করা অত্যবাশ্যক।


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, হে ঈমানদারগণ! তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনার নৈকট্য লাভ করার জন্য উসীলা তালাশ কর। (পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৩৫) এই পবিত্র আয়াত শরীফ উনার ব্যাখ্যায়



মহান আল্লাহ পাক উনার যারা ওলী উনাদের বিরোধিতাকারীরা মুসলমানের অন্তর্ভুক্ত নয়


‘ওলীআল্লাহ’ অর্থ খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার বন্ধু, অভিভাবক, প্রতিনিধি। যিনি প্রকৃত ওলীআল্লাহ তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার আদেশ-নিষেধ অনুযায়ী চলে থাকেন। সম্মানিত শরীয়ত ও পবিত্র সুন্নত মুবারক উনাদের পরিপূর্ণ পাবন্দ। তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টিপ্রাপ্ত ও প্রিয়



সম্মানিত দ্বীন ইসলামই নারী জাতিকে দিয়েছেন একমাত্র সম্মান ও মর্যাদা


নারী ঘটিত বিভিন্ন ফিতনায় জর্জরিত ৯৮ ভাগ মুসলমানদের এই দেশ, প্রতিনিয়ত নারীটিজিং হতে শুরু করে এসিড নিক্ষেপ, সম্ভ্রমহরণ, এমনকি হত্যা পর্যন্ত করা হচ্ছে এই দেশের নারীদেরকে। কিন্তু কেন? এই বিষয়টি কি জানা আছে? মূলত তাহলো- পবিত্র দ্বীন ইসলাম যেভাবে নারীদের সম্মান



ইসলামই একমাত্র আধুনিকতায়, সভ্যতায় ও জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রাচুর্যতায় পূর্ণ দ্বীন|-


পবিত্র ইসলাম সর্বকালের জন্য, সর্বযুগের জন্য এমনকি ক্বিয়ামত পর্যন্ত আধুনিক। কেউ যদি পরিপূর্ণ ইসলাম উনার সৌন্দর্য অবলোকন করে তাহলে মুসলমানতো অবশ্যই, বরং অনেক কাফির মুশরিকও মুগ্ধ হবে এবং ইসলাম গ্রহণ করবে। এ যাবৎ যত অমুসলিম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছে তারা পবিত্র



পবিত্র পর্দা পালনে ও সুন্নত মুবারক অনুসরণে হযরত ফারুকে আযম আলাইহিস সালাম।


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত হয়েছে, একবার আমীরুল মু’মিনীন, খলীফাতুল মুসলিমীন হযরত উমর ফারুক আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি উনার সম্মানিত মেয়ে, উম্মুল মু’মিনীন হযরত হাফসা আলাইহাস সালাম উনার সাথে একত্রে একটি রুমে বসে কিছু বিষয় আলাপ-আলোচনা করতেছিলেন। এমন সময় আমীরুল



আসুন আমরা পিতা মাতার হক্ব আদায় করার বিশেষ ব্যাবস্থা অবলম্বন করি।


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, পবিত্র আয়াত শরীফ উনার ভাবার্থ হলো- “তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনাকে ব্যতীত অন্য কারো ইবাদত করো না। আর পিতা-মাতা উনাদের সাথে সদাচরণ করবে। উনাদের মধ্য থেকে



চন্দ্র বিদারন বা শাক্বুল কামার;নুরে মুজাস্সাম হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার শ্রেষ্ট মুজিজা শরীফ ও ইলবে গয়িব


আল্লামা হযরত শরফুদ্দীন বুসরী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি একজন খ্যাতনামা মুহাদ্দিছ, ঐতিহাসিক ও ছূফী সাধক ছিলেন। উনার রচিত ক্বছীদায়ে বুরদা শরীফ বা ‘নবী প্রশস্তি’ কাব্য গ্রন্থখানি মুসলিম জাহানে এবং আলিম সমাজে উচ্চ প্রশংসিত কিতাব হিসেবে বিবেচিত ও পরিচিত। উক্ত গ্রন্থের বিভিন্ন ভাষ্য