মাসউদুর রহমান -blog


...


 


সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শানে কতিপয় মৌলিক আক্বীদা


عقيدة (আক্বীদা) অর্থ: দৃঢ় বিশ্বাস, ধর্মমত, দ্বীনিমত। হাক্বীক্বী মু’মিন, হাক্বীক্বী মুসলমান হওয়ার জন্য সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শানে আক্বীদা বিশুদ্ধ হওয়া আবশ্যক। কেননা উনার মুবারক শানে বিশুদ্ধ আক্বীদাই ঈমানের মূল।



মনের পর্দা বড় পর্দা নয়


মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ উনার ৩৩নং পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “হে মু’মিনা মহিলাগণ! আপনারা আপনাদের ঘরে অবস্থান করবেন এবং আপনারা জাহিলী যুগের ন্যায় নিজেদেরকে প্রদর্শনার্থে বের হবেন না।” আরো ইরশাদ মুবারক



বিধর্মীপ্রীতি: কার উপকার কার বিপদ?


বিধর্মীপ্রীতি বা বিধর্মী তোষণের ফলে কে উপকৃত হচ্ছে, আর কে বিপদগ্রস্ত হচ্ছে তা কিঞ্চিৎ হলেও বিশ্লেষণ করা জরুরী। চরম সাম্প্রদায়িক ভারতের প্রতি আমাদের সরকারের নতজানুতার কারণে জাতি বঞ্চিত হচ্ছে নিজ উৎপাদিত খাদ্যশস্য থেকে শুরু করে অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, সংস্কৃতি, মেধাস্বত্ব,



সম্মানিত জিহাদ উনার ফযীলত: কাফিররা যতই মাল-সম্পদ খরচ করুক না কেন, তারা মুসলমানদের নিকট পরাস্ত ও পরাজিত হবেই হবে


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, إِنَّ الَّذِينَ كَفَرُوا يُنْفِقُونَ أَمْوَالَهُمْ لِيَصُدُّوا عَنْ سَبِيلِ اللَّهِ فَسَيُنْفِقُونَهَا ثُمَّ تَكُونُ عَلَيْهِمْ حَسْرَةً ثُمَّ يُغْلَبُونَ وَالَّذِينَ كَفَرُوا إِلَى جَهَنَّمَ يُحْشَرُونَ. অর্থ: “নিশ্চয়ই যারা কাফির তারা তাদের মাল-সম্পদ খরচ করে



লোডশেডিংয়ে জর্জরিত দেশ নেপাল থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করবে সরকার! এ যেন ফকিরের ঘর থেকে সাহায্য প্রার্থনা


আসলেই অবাক করার বিষয়! বিদ্যুৎ উৎপাদনে নিজ দেশের সক্ষমতা এবং পর্যাপ্ত উৎপাদন থাকার পরেও নেপালের মতো লোডশেডিংয়ে জর্জরিত দেশ থেকে কেন বিদ্যুৎ আমদানি করতে যাচ্ছে সরকার? যে দেশটিতে পানি সম্পদ ব্যবহার করে ৯০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভাবনা থাকলেও সেখানে



বিনয় ঈমানদার-মুসলমানদের অনন্য খুছুছিয়ত বা বৈশিষ্ট


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘যে ব্যক্তি মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টির জন্য বিনয়ী হবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার মর্যাদা বৃদ্ধি করে দিবেন।’ সুবহানাল্লাহ! (মিশকাত শরীফ) বিনীত বিনম্র হওয়া হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস



মাদকের সাথে জড়িত ১০ ধরণের লোকদের প্রতি মহান আল্লাহ পাক উনার লা’নত


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- عَنْ حضرت ابْنِ عُمَرَ رَضِى اللهُ تَعَالَىْ عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لَعَنَ اللهُ الْخَمْرَ وَشَارِبَهَا وَسَاقِيَهَا وَبَائِعَهَا وَمُتَبَاعَهَا وَعَاصِرَهَا وَمُعْتَصِرَهَا وَحَامِلَهَا وَالْمَحْمُوْلَةَ اِلَيْهِ. অর্থ: “হযরত ইবনে উমর রদ্বিয়াল্লাহু



ইমামে আ’যম হযরত ইমাম আবু হানীফা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার একটি ওয়াক্বেয়া মুবারক


একদিন অনেকগুলো খারিজী ফিরক্বার লোক দলবদ্ধভাবে হযরত ইমাম আবু হানীফা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ঘরে এসে জবরদস্তি করে বললো, হে আবু হানীফা রহমতুল্লাহি আলাইহি! আপনি কুফরী থেকে তওবা করুন। (যেহেতু খারিজীরা আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদেরকে কাফির ভাবে)। নাউযুবিল্লাহ! হযরত ইমাম আবু



হাজার বছর পার হলেও বিধর্মীর বিধর্মীয়ানা যায় না; কিন্তু মুসলমানের মুসলমানিত্ব যেতে, তাদের মনে হীনতা আনতে সময় লাগে না


“বাঙালি (বিধর্মী) পুরুষ ইংরেজ রাজত্বের আগে একমাত্র মুসলমান নবাবের কর্মচারী হইলে মুসলমানী পোশাক পরিত, উহা অন্দরে লইয়া যাওয়া হইত না। বাহিরে বৈঠকখানার পাশে একটা ঘর থাকিত, সেখানে চোগা-চাপকান-ইজার ছাড়িয়া পুরুষেরা ধুতি পরিয়া ভিতরের বাড়িতে প্রবেশ করিত। তাহার প্রবেশদ্বারে গঙ্গাজল ও তুলসীপাতা



যেখানে ভারতীয় পাঠ্যপুস্তকেও ক্ষুদিরাম-প্রফুল্ল চাকীদেরকে সন্ত্রাসবাদী বলে স্বীকার করা হয়েছে, সেখানে এদেশের পাঠ্যপুস্তকে কিনা…!


সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের মধ্যশিক্ষা পর্ষদ তাদের পাঠ্যপুস্তকে কথিত স্বদেশী আন্দোলনকে ‘সন্ত্রাসবাদী আন্দোলন’ বলে স্বীকার করেছে, যার ফলে হাহাকার পড়ে গিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে। ভারতীয় নিউজ ওয়েবসাইট জি নিউজ ডট কমে প্রকাশিত “মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পাঠ্য বইয়ে স্বাধীনতা সংগ্রামীরা পেল সন্ত্রাসবাদী তকমা!” শিরোনামের খবরে বলা



‘ইন্টারফেইথ (আন্তঃধর্ম) ডায়লগ’ একটি নব্য দ্বীনে ইলাহী


মোঘল বাদশাহ আকবর সকল ধর্মের লোকদেরকে নিয়ে একটা নতুন ধর্ম বা মতবাদ দ্বীনে ইলাহী তৈরি করেছিলো। যে দ্বীনে ইলাহীকে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছেন হিজরী দ্বিতীয় সহস্রাব্দের মহান মুজাদ্দিদ হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি। বর্তমানে সউদী ওহাবী ইহুদী সরকার সেই দ্বীনে



সাইয়্যিদুল আসইয়াদ, সাইয়্যিদুশ শুহূর, শাহরুল আ’যম মহাপবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফ মাস যথাযথভাবে পালন করার জন্য যাবতীয় আঞ্জাম দেয়া সকল


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাই ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমাদের কেউ ততক্ষণ পর্যন্ত মু’মিনে কামিল হতে পারবে না; যতক্ষণ পর্যন্ত না তার পিতা-মাতা, সন্তান-সন্ততি এবং অন্যান্য সকল মানুষ অপেক্ষা আমাকে বেশি মুহব্বত করবে”। সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ, সাইয়্যিদে ঈদে