মাসউদুর রহমান -blog


...


মাসউদুর রহমান
 


মাত্র প্রায় ১.৫ ভাগ হিন্দুর জন্য ৯৮ ভাগের বেশি বিশাল জনগোষ্ঠীকে অলস বসিয়ে রাখা সরকারের ছুটি ব্যবস্থাপনায় অপরিপক্কতা ও


একটি রাষ্ট্র অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী হতে হলে তাকে ছুটি দেয়ার সময় অবশ্যই লাভ-ক্ষতির হিসেব কষতে হবে। দেশের সামান্য কিছু লোকের ছুটির প্রয়োজনে গোটা দেশের মানুষের ছুটি দিয়ে দিলে নিয়ম-শৃঙ্খলা বলে কিছু থাকবে না। কেননা একদিন ছুটি দেয়া মানে দেশের অর্থনীতিকে পুরোপুরি অবশ



রামমোহন সংস্কারবাদীর আড়ালে ছিলো মুসলিমবিদ্বেষী কাট্টা গুমরাহ


বৃটিশ দালাল রামমোহনকে অনেক কথিত মুসলমান অনেক উদার, মহৎ, সংস্কারপন্থী মনে করে তার সম্পর্কে উচ্চ ধারনা পোষন করে। বিশেষ করে সতীদাহ প্রথা নিয়ে অনেক মুসলমান তাকে প্রশংসার বন্যায় ভাষিয়ে দেয়। নাউজুবিল্লাহ! অথচ ঐতিহাসিকভাবে প্রমানিত সত্য যে রামমোহন নয়, সতীদাহ প্রথা নির্মূলীকরণে



এটা আবার কেমন সম-অধিকার?


সম-অধিকার নিয়ে এত হইচই। কিন্তু কথিত এই ‘সম-অধিকার’ শুধুমাত্র অমুসলিম-বিধর্মী ও বেপর্দা নারীদের ক্ষেত্রেই কেন বেশি উচ্চারিত হয়। হিন্দুরা পূজা করবে, বৌদ্ধরা ফানুস ওড়াবে, উপজাতিরা বৈসাবি করবে তখনই সম-অধিকারের পতাকাবাহীদের দেখা যায়। তখন দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়, যানজট



সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো- সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র


শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমানের দেশ বাংলাদেশ- যেখানে হিন্দু, বৌদ্ধ ও উপজাতি মিলে শতকরা ২ ভাগ মাত্র। তারপরও বৌদ্ধদের নাহক্ব ধর্মের জন্য বৌদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে সরকারিভাবে ছুটির ব্যবস্থা করা হয়। নাঊযুবিল্লাহ! তাহলে সত্য দ্বীন ইসলাম, যা স্বয়ং যিনি নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী,



প্রসঙ্গ ভ্যালেন্টাইন ডে: মুসলমান কেন বিধর্মীদের দিবস পালন করবে?


গোটা বাঙালি মুসলিম জাতি একটা ভয়ঙ্কর মহামারি ব্যাধিতে ভুগছে। রোগটা একটা মানসিক ব্যাধি, নাম যার ‘হীনম্মন্যতা’। এই রোগে বেশি আক্রান্ত এদেশের কথিত আঁতেল সমাজ অর্থাৎ তথাকথিত বুদ্ধিজীবী ও সুশীল সমাজ। এদেরকে ব্যবহার করে বিধর্মী-নাস্তিকরা নানাবিধ অপসংস্কৃতির প্রচলন করিয়ে আমাদের যুব সমাজকে



প্রতিদিন বারবার পড়ার মধ্যে অবশ্যই লক্ষ-কোটি শিক্ষা রয়ে গেছে


একটি বিশেষ বাক্য বা কথা কমবেশি প্রায় আমরা সবাই জানি। ‘মহান আল্লাহ পাক উনার কোনো কাজই হিকমত থেকে খালি নয়’। এ বাক্যটি ঈমানদার-মুসলমান মাত্রই বিশ্বাস করেন। আমরা প্রতিদিন প্রতি রাকয়াতের শুরুতেই যে একটি বিশেষ সূরা শরীফ পাঠ করে থাকি উনার নাম



‘ভ্যালেন্টাইন ডে’ ঈমান ধ্বংসের একটি পাঁয়তারার নাম


সংবাদ মাধ্যমগুলো খ্রিস্টান, মুশরিকদের অনুষ্ঠানগুলোকে বাংলাদেশেও প্রচার-প্রসারে উঠেপড়ে লেগেছে। কথিত ‘ভ্যালেন্টাইন ডে’ হচ্ছে সে রকম নোংরা অপসংস্কৃতির আরেকটি নাম। এদেশে তথাকথিত ভালোবাসা দিবস প্রচলনকারী হলো- কাট্টা ইসলামবিদ্বেষী ও নাস্তিক ‘যায়যায়দিন’ পত্রিকার প্রাক্তন মালিক শফিক রেহমান। সে ‘যায়যায়দিন পত্রিকার মাধ্যমে ১৯৯৩ সালে



ইসলামের দৃষ্টিতে মুসলমানদের জন্য ভ্যালেন্টাইন ডে বা ভালোবাসা দিবস পালন করা সম্পূর্ণরূপে হারাম


তথাকথিত ভালোবাসা দিবস পালন মূলত অভালোবাসা তথা নোংরামীর বিস্তার ঘটায়। পাশ্চাত্যে ভালোবাসা দিবস প্রচলনের পেছনে ছিলো ব্যবসায়ীদের স্বার্থ। পাশাপাশি এদেশে তা প্রবর্তনের পেছনে আছে পাশ্চাত্য গোলাম শফিক রেহমান ও ইহুদী খ্রিস্টানদের সুদূরপ্রসারী ইসলাম বিরোধী স্বার্থ। পশ্চিমাদের খাছ গোলাম, মুনাফিক শফিক রেহমান



মহিলাদের জন্য উত্তম আমল হলো পর্দানশীন থাকা


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “মহিলারা পর্দার সাথে থাকবে। কেননা যখন তারা বের হয় তখন শয়তান উঁকিঝুঁকি দিতে থাকে।” অর্থাৎ তাদের দ্বারা কোনো পাপ কাজ সংঘটিত করানো যায় কিনা এ চেষ্টা করতে থাকে। নাঊযুবিল্লাহ! পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার



কর্পোরেট দাসত্বের কবলে বাংলাদেশ-


বহুজাতিক কোম্পানি বা মাল্টি-ন্যাশনাল কোম্পানি হল সেসব কোম্পানি যারা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ব্যবসা চালিয়ে থাকে। উদাহরণস্বরূপ- ইউনিলিভার, ব্রিটিশ-আমেরিকা কোম্পানী, রেকিট, এইচএসবিসি, স্ট্যাণ্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাঙ্ক প্রভৃতি। এসকল কোম্পানি যে দেশে ব্যবসা করে সে দেশের কাঁচামাল ব্যবহার করে, সে দেশের থেকেই কর্মসংস্থান করে,



সুমহান ৯ জুমাদাল ঊলা শরীফ: ক্বায়িম-মাক্বামে হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম, আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত হাদিউল উমাম আলাইহিস সালাম


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার পবিত্র কালাম কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- أَلَا إِنَّ أَوْلِيَاءَ اللهِ لَا خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلَا هُمْ يَحْزَنُونَ. الَّذِيْنَ آمَنُوْا وَكَانُوْا يَتَّقُوْنَ. لَهُمُ الْبُشْرى فِى الْحَيَاةِ الدُّنْيَا وَفِى الْآخِرَةِ لَا تَبْدِيْلَ



পবিত্র ৯ই জুমাদাল ঊলা শরীফ নিয়ামতপূর্ণ, বরকতপূর্ণ, সাকীনাপূর্ণ, মাগফিরাত ও নাজাতপূর্ণ দিন


হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত মুবারক করা সম্পর্কে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি বলে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। আর চাওয়াটাও স্বাভাবিক নয়; তোমাদের পক্ষে