রাফসানযানী প্রিতম -blog


...


 


হালাল-হারাম বিষয়ে সীমালঙ্গন করা যাবে না


আমরা মুসলমান। আমাদের দ্বীন হচ্ছেন পবিত্র দ্বীন ইসলাম। পবিত্র দ্বীন ইসলাম এমন একটি দ্বীন বা বিধান উনার মধ্যে রয়েছে জিন ইনসানের সকল বিষয়ের সঠিক সমাধান। জিন-ইনসান কি করবে, কি করবে না, কি খাবে কি খাবে না, কোন্ পোশাক পরবে, কোন্ পোশাক



পবিত্র মীলাদ শরীফ ক্বিয়াম শরীফ পাঠ কমে যাওয়ার কারণেই মানুষ রহমত বরকত থেকে বঞ্চিত হচ্ছে


মুসলিম সমাজে পবিত্র মীলাদ শরীফ ক্বিরাম শরীফ উপলক্ষে সমবেত হওয়া, দুরূদ শরীফ এবং সালাম শরীফ উনাদের মাহফিল করা সেই সালফে সালেহীন রহমাতুল্লাহি আলাইহিম উনাদেরও আগে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের যামানা হতেই চলে আসছে। সুবহানাল্লাহ! সেই ধারাবাহিকতায় আমাদের দেশের



খেলাধূলা, মূর্তিপূজাসহ নানা হারাম কাজে সরকার বহু টাকা ঢালে! কিন্তু পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার সম্মানার্থে বাজেট কোথায়?


এ দেশের মূল জনগোষ্ঠী মুসলমান। তাদের করের টাকাতেই এ দেশ চলে। এই মুসলমানদেরই প্রশ্ন হলো- হারাম খেলাধূলা, শিরকী মূর্তি-পূজা উপলক্ষ্য করে যদি মুসলমানের থেকে অর্জিত কোটি কোটি টাকা বাজেট করা হয়ে থাকে, তাহলে মুসলমাদের পবিত্র ঈমান, মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ঈদ পবিত্র



রাষ্ট্র কর্তৃক মুসলমানদের বিয়ের বয়স নির্ধারন করে দেয়া দ্বীন ইসলাম অবমাননার শামিল


সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার বিধান অনুসারে একজন মুসলমান যে কোন বয়সে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে পারবেন। বিবাহের জন্য নারী পুরুষের কোন সুনির্দিষ্ট বয়সকে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মাঝে নির্ধারন করে দেয়া হয়নি। তার মানে রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম উনাকে যারা মেনে চলবেন উনারা



গোল্ডেন রাইসের অবতারণা


বাংলাদেশে ২০১৮ অর্থাৎ এ বছরই বাণিজ্যিকভাবে জেনেটিক্যালি মোডিফাইড ধান “গোল্ডেন রাইস” উৎপাদন শুরু হবে। এ নিয়ে দেশব্যাপী বিতর্কের শেষ নেই। সবাই একে প্রাণঘাতী, সর্বনাশা, ষড়যন্ত্রের ফসল ইত্যাদি নামে আখ্যা দিচ্ছেন। কিন্তু কিভাবে এই গোল্ডেন রাইসের উৎপত্তি হলো আর কিভাবে সেটা আমাদের



সাবধান! সাবধান! সাবধান! যারা মসজিদ ভাঙ্গছে তাদের সামনে কঠিন লাঞ্ছনা-গঞ্জনা এবং পরকালে তাদের জন্য প্রস্তুত রয়েছে জাহান্নামের আযাব-গযব ও


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, وَمَنْ أَظْلَمُ مِمَّنْ مَنَعَ مَسَاجِدَ اللهِ أَنْ يُذْكَرَ فِيهَا اسْمُهُ وَسَعَى فِي خَرَابِهَا أُولَئِكَ مَا كَانَ لَهُمْ أَنْ يَدْخُلُوهَا إِلَّا خَائِفِينَ لَهُمْ فِي الدُّنْيَا خِزْيٌ وَلَهُمْ فِي الْآخِرَةِ عَذَابٌ عَظِيمٌ অর্থ: “ওই ব্যক্তির চেয়ে



চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত ও ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি উৎপাদিত বাবু সম্প্রদায়


বাংলায় ইংরেজরা প্রথমে বনিকের ছদ্মবেশে আগমন করার পর তারা যখন রাজশক্তি নিজের হাতে কুক্ষিগত করে ৷ তারপর তারা মীর জাফরের বংশধরদের নাম মাত্র নবাব হিসেবে সিংহাসনে বসালেও প্রকৃত রাজ ক্ষমতা তথা দেশ পরিচালনা করার ক্ষমতা ইংরেজদের অধিনে থাকতো ৷ 1765 সালে



নিদৃষ্ট স্থানে পশু কোরবানী কতটা নিরাপদ?


একই স্থানে শত শত ব্যাক্তি যখন উপস্থিত থাকে তথন সে স্থানের আইন শিংঙ্খলা পরিস্থিতি আবনতি হবার আশংকা খুব বেশি থাবে ৷ আবার তার যদি উপস্থিত প্রতিটি ব্যাক্তির নিকট কোন না কোন ধাঁরালো অস্ত্র থাকে ৷ তখন যে কোন সময় সে স্থানটি



ইংরেজ শাসিত বাংলায় কোরবানী ঈদ


বাংলায় ইংরেজরা প্রথমে বনিকের ছদ্মবেশে আগমন করার পর তারা যখন রাজশক্তি নিজের হাতে কুক্ষিগত করে ৷ তারপর তারা মীর জাফরের বংশধরদের নাম মাত্র নবাব হিসেবে সিংহাসনে বসালেও প্রকৃত রাজ ক্ষমতা তথা দেশ পরিচালনা করার ক্ষমতা ইংরেজদের অধিনে থাকতো ৷ ১৭৬৫ সালে



আসামে বাংলা ভাষা ও বাঙ্গালীরা


1947 সালে জনগনের দাবির ভিত্তিতে দ্বীজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে ব্রিটিশ শাসিত উপনিবেশ ভারত ভাগ হয়ে পাকিস্থান ও ভারত নামক দুটি রাষ্টের সৃষ্টি হলো ৷ তখন আসামের পার্শবর্তী পর্ব বাংলার জেলা গুলো থেকে যে সকল লোকজন আসামের স্থায়ী ভাবে বসবাস করতে চাইল ও



সুচির বাবা অং সান কেমন ছিল


অং সান ছাত্র জীবনে থাকিন পার্টি Thakin party নামক একটি দলের সাথে সংযুক্ত ছিল ৷ থাকিন পার্টি মায়ানমারে জাপানিদের সহায়তায় ইংরেজ বিরোধী আন্দোলন করত সে কারনে দলটি জাপানিদের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে কোন সময় বিরোধীতা করেনি ৷ তৎকালিন মায়ানমারে মুসলিম নিধনেও থাকিন পার্টির



বাংলাদেশর অকৃত্রিম বন্ধু নবাব আলী ইয়ার জং


নবাব আলী ইয়ার জং ভারতের হায়দারাবাদ ( বর্তমানে যেটি তেলঙ্গানা রাজ্য )অধিবাসী ৷ ভারত স্বাধীনের পূর্বে তিনি ছিলেন হায়দারাবাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তবে এর পূর্বে তিনি ওসমানীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ভারত স্বাধীন হবার পর তিনি আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ও ভিসি ছিলেন ৷ তিনি যুক্তরাজ্য মিশর