রাফসানযানী প্রিতম -blog


...


 


বাংলাদেশর মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় মুসলিমদের অবদান


বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের ৪৬টি বছর পার হয়েছে ৷আজও আমরা মুক্তিযুদ্ধের সময় যে সকল ভারতীয় মুসলিম আমাদের সাহায্য করেছে ও বাংলাদেশী শরণার্থীদের জন্য সাহায্যের ব্যবস্থা করেছে ও ভারতে বাংলাদেশর পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে প্রচারনা চালিয়েছে ৷ তাদের অবদানের সৃতিগুলো একত্রিকরন করে সাজাতে



বিহারি ও তাদের অতীত


১৯৪৭ সালে দ্বিজাতি তত্বের ভিত্তিতে ভারত ভাগ হবার আগেই মুলত তৎকালিন বাংলার পূর্ব অঞ্চলে অথ্যাৎ আজকের বাংলাদেশে বিহারিরা তৎকালিন অবিভক্ত বিহার-উড়িষ্যা রাজ্য থেকে আগমন করে ৷ উল্লেখ্য বঙ্গভঙ্গ পরর্বতী বৃহত্তর অবিভক্ত বিহার -উড়িষ্যা রাজ্য আজকে ঝাড়খন্ড -বিহার -উড়িষ্যা নামক তিনটি রাজ্যে



এপ্রিল ফুলের শিক্ষা কফেরের আশ্বাসের বিশ্বাস নেই


স্পেনে মুসলমানদের ৮০০ বছরের গৌরবময় শাসনের ফলে দেশটিতে তখন অর্থসম্পদ, বিত্ত-বৈভবের অঢেল জোয়ার ৷ মুসলমানরা ভোগ-বিলাসে মত্ত হয়ে ভুলে যায় কুরআন ও সুন্নাহর শিক্ষা ৷ নৈতিক অবক্ষয় ও অনৈক্য ধীরে ধীরে গ্রাস করে তাদের ৷ এ দুর্বলতার সুযোগ গ্রহণ করে খ্রিষ্টান



ইসলাম হচ্ছে বাংলাদেশের সংবিধানের সাথে অবিচ্ছেদ্য অংশ


1947 সালে পাকিস্তান সরকার তারদেশের রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে উর্দুকে সংবিধানে অন্তভূক্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করে কিন্তু এটি ছিল পূরপুরী অযোক্তিক কারন উদু পাকিস্তানের কোন অঞ্চলেরই ভাষা ছিল না পাকিস্তানের মোট 6% লোক উদুতে কথা বলত ৷ এমন কি খোদ জিন্নাহর ও



তথাকথিত অপির্ত সম্পতির প্রকৃত মালিক এই দেশের মুসলিম জনগন


১৭৭৫ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি সরকার ভূমি রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে প্রথমে একসনা বন্দোবস্তো চালু করে তাতে তাদের নিধারিত রাজস্ব সূর্য় অস্ত যাবার পূর্বে না দিতে পারলে সূর্যাস্ত আইনে তাদের জমি জব্দকরা হতো আর এ জব্দকৃত জমি কম্পানির হিন্দু কর্মচারীদের নিকট বিক্রয় করা



বঙ্গীয় মুসলিম সাহিত্য সমিতি ও বাংলা ভাষার অস্তিত ও রক্ষা


১৯১১ সালের ৪ সেপ্টেম্বর কলকাতায় বাংলাভাষী মুসলিমদের সাহিত্য চর্চার স্বাধীন ক্ষেত্র সৃষ্টি ও বিকাশের জন্য কলকাতাবাসী বাঙ্গালী মুসলিমদের উদ্দেগ্যে “বঙ্গীয় মুসলিম সাহিত্য সমিতি” গঠন হয় । কবি আবদুল করিম ছিলেন বঙ্গীয় মুসলিম সাহিত্য সমিতির প্রথম সভাপতি ও ডক্টর মুহম্মদ শহীদুলাহ ছিলেন



নির্মান শিল্পে বাঙ্গালী মুসলিম প্রকৌশলী ফজলুর রহমান খানের আবদান


ফজলুর রহমান খান একজন বাঙ্গালী মুসলিম প্রকৌশলী ৷ ১৯২৯ সালে জন্মগ্রহন করেন ৷ তার পিতা ছিলেন জগন্নাথ কলেজের অধ্যক্ষ ৷ ফজলুর রহমান খান ছিলেন আকাশচুম্বী ভবন নির্মানের পতির্থক ও computer-aided design(CAD) এর আগ্রদূত ৷ তাকে বলা হয় The father of tubular



উন্নয়ন কি শুধু ঢাকাতেই হবে ?


ঢাকা বাংলাদেশের রাজধানী এটি বর্তমানে আমাদের দেশের উন্নয়নের ও কেন্দ্র বিন্দুতে পরিনত হয়েছে ৷ আবার অনেক ক্ষেত্রে অনেক ব্যয় বহুল ও অউৎপাদনশীল প্রকল্প গুলো এখানেই বাস্তবায়ন করছে ৷ যার ফলে অউৎপাদনশীল ক্ষেত্রে খরচ করার কারনে লাভজনক কিছু পাওয়া যাচ্ছে না ৷



নগ্ন ছবি প্রকাশ কি সংবাদ মাধ্যমের প্রকৃত স্বাধীনত্বা ?


banglanews24এর ওয়াব সাইটে “ সাম্বায় উদোম উদ্দাম রিও, জিকায় সতর্কতা চুম্বনে! ’’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রতিবেদন দেখলাম (প্রতিবেদনটির লিংক=http://tinyurl.com/zrcmke4)। সংবাদ প্রতিবেদনটিতে সংযুক্ত ছবি গুলো সবগুলোই রুচিশীল পাঠকদের কাছে আপত্তিকর , আশলীল ও নগ্ন যা উপমহাদেশীয় সভ্যতা ও সমাজের বিকাশের সাথে সাংঘষিক



প্রথম হিন্দু মেলা ও তার চেতনা


হিন্দু মেলা ১৮৬৭ সালের এপ্রিল মাসে ঠাকুর পরিবারের সহযোগিতায় কলকাতায় প্রথম আয়োজিত হয়েছিল । রাজনারায়ণ বসু, দ্বিজেন্দ্রনাথ ঠাকুর ও নবগোপাল মিত্র ছিল প্রথম হিন্দু মেলার আয়োজক । হিন্দু মেলার প্রথম সচিব ছিল গণেন্দ্রনাথ ঠাকুর । প্রথম দিকের হিন্দু মেলা উদ্বোধন করা



হিজরী ও শামসী ক্যালেন্ডারই মুসলমানদের অনুসরণ করা উচিত


যিনি খ্বালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি চন্দ্র ও সূর্যের ঘূর্ণন বা আবর্তনের সাথে রাত-দিনের বা তারিখের পরিবর্তনের বিষয়টি নির্ধারণ করে দিয়েছেন। যার কারণে চন্দ্রের হিসাব অনুযায়ী-প্রবর্তন করা হয়েছে হিজরী সন ও ক্যালেন্ডার। আর সূর্যের হিসাব অনুযায়ী প্রবর্তন করা হয়েছে



ডাক্তার নেই, ভ্যাকসিন নেই: ক্ষুরা রোগে শতাধিক পশুর মৃত্যু


দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলায় ব্যাপক আকারে গবাদি পশুর খুরা রোগ দেখা দিয়েছে। সময়মত ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সুবিধা না পাওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে শতাধিক গরুর মৃতুর খবর পাওয়া গেছে। এতে সর্বশান্ত হয়েছেন, অনেক খামারী ও গবাদিপশু মালিক। এদিকে, পার্বতীপুর উপজেলায় দীর্ঘদিন ধরে প্রাণী